× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২০, শনিবার

বৈধ কাগজপত্র নেই সেই গাড়িটির

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার

আইন-কানুনের তোয়াক্কা না করেই ১০ বছর ধরে রাজপথে চালানো হচ্ছিল গাড়িটি। বৈধ কাগজপত্র না থাকলেও ট্রাফিক পুলিশের কোনো ঝামেলায় পড়তে হয়নি। এই ল্যান্ড রোভার গাড়িটির মালিক সংসদ সদস্য হাজী সেলিম। এ গাড়ি দিয়েই ধানমণ্ডিতে ধাক্কা দেয়া হয়েছিল নৌবাহিনীর লেফটেন্যান্ট ওয়াসিফ আহমেদ খানের বাইককে। তারপর গাড়ি থেকে নেমে ওয়াসিফ আহমেদ খানকে মারধর করা হয়।
বিআরটিএ সূত্রে জানা গেছে, ২০১০ সালের সেপ্টেম্বরের পর থেকে এই গাড়িটির ফিটনেস সনদ নেই। বছরের পর বছর চলে গেলেও বাধ্যতামূলক ফিটনেস পরীক্ষার ধার ধারেননি তারা। যদিও নিয়ম রয়েছে প্রতি বছর গাড়ির ফিটনেস পরীক্ষা করে ছাড়পত্র নিতে হবে। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ অনুসারে ফিটনেস সনদ ছাড়া গাড়ি চালানো হলে ছয় মাসের কারাদণ্ড বা ২৫ হাজার টাকা জরিমানা কিংবা উভয় দণ্ড হতে পারে।
গাড়ির ট্যাক্স টোকেন না থাকলে জরিমানা দিতে হবে ১০ হাজার টাকা।
এই গাড়ির মালিকের কাছে বিআরটিএ’র পাওনা হয়েছে পাঁচ লক্ষাধিক টাকা। প্রতিটি যানবাহনকে ফিটনেস ছাড়পত্র নেয়ার সময় রোড ট্যাক্স এবং অগ্রিম আয়কর জমা দিতে হয়। এই গাড়ির মালিককে প্রতি বছর রোড ট্যাক্স সাড়ে সাত হাজার টাকা এবং এর ওপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট পরিশোধ করার নিয়ম রয়েছে। সেই সঙ্গে প্রতি বছর অগ্রিম আয়কর হিসাবে ৭৫ হাজার টাকা দেয়ার কথা। ২০১০ সাল থেকে কাগজপত্র নবায়ন না করায় পাঁচ লাখের বেশি টাকা গাড়ির মালিক পরিশোধ করেননি। সংসদ সদস্যের স্টিকার লাগানো গাড়িটি ব্যবহার করছিলেন হাজী সেলিমের পুত্র ইরফান সেলিম।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Kazi
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ১০:৪৭

সরকারী দলে নাম লিখলেই গ্রাম সদস্যরা পর্যন্ত মনে করত গ্রাম পাড়ায় তারা প্রধান মন্ত্রীর চাইতেও ক্ষমতাবান । সেই দিন শেষ। হাজি সেলিম আইন প্রণেতা হয়েই মনে করলেন আইন তার জন্য নয়। আইন বানান জনগণ তা পালন করার জন্য। উনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।

Saif
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৬:০৯

পাপ বাপকেও ছাড়ে না আল্লাহ সবার জন্য সমান

Amir
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ১২:৩৮

বৈধ কাগজপত্র নেই সেই গাড়িটির-------কাগজের দরকার আছে কি? গাড়ির মালিক "হাজী সেলিম" এটাই গাড়ির মালিক "কাগজ " মনে করেছেন!

এ কে এম মহীউদ্দীন
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৮:৪৬

বাংলাদেশে আরো অনেক এমন গাড়ি ও গাড়ির মালিক আছে।যাদের এসব দেখার কথা তারা কেবল আমাদের মতো মানুষদের উপর হম্বিতম্বি করে।

FARUKI
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ১:১৩

ছোটবেলায় পরিবার থেকে মানুষ আচার-আচরণ শেখেন। লেখাপড়া শেখেন বিদ্যালয় থেকে। রাষ্ট্রীয় আচার-আচরণ শেখেন রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের কাছ থেকে। শিশুকালে পরিবার, বিদ্যালয় এবং প্রতিবেশীর কাছ থেকে যতটুকু শেখা হয়, সেটার প্রতিফলন ঘটে বাকি জীবনে। বড় হওয়ার পর রাষ্ট্রীয় কর্মকাণ্ডে যোগ দিলেও ছোটবেলায় শিক্ষালাভ করা আচরণের প্রভাব থেকে যায়। এটাই চিরন্তন।

Shottobadi
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ১২:৫৫

বাত্তির নিচে অন্ধকার !

অন্যান্য খবর