× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২০, শনিবার

চট্টগ্রাম থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে গৃহকর্মী গণধর্ষণের শিকার

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার

চট্টগ্রাম থেকে চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা গ্রামে বাড়ি যাওয়ার পথে বাঁশখালী উপজেলার পুঁইছড়ি এলাকায় গণধর্ষণের শিকার হলেন কিশোরী গৃহকর্মী। এ ঘটনায় পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেছে।  
গতকাল দুপুরে বাঁশখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) রেজাউল করিম মজুমদার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, গত সোমবার রাত ১০টায় ধর্ষণের এ ঘটনায় ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে বাঁশখালী থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এরপর ধর্ষিতাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়।
আর পুলিশ দ্রুত অভিযান চালিয়ে দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃত দুই ধর্ষক হলো বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের খুদুকখালী গ্রামের মৃত নুর আহাম্মদের ছেলে আবুল বশর (৪৫) ও পুঁইছড়ি ইউনিয়নের পূর্ব পুঁইছড়ি গ্রামের আব্দুল মালেকের ছেলে মো. জমির (৩৫)।
ওসি জানান, কক্সবাজারের চকরিয়ার পূর্ব বড় ভেওলার জনৈক দিনমজুরের কিশোরী কন্যা চট্টগ্রাম শহরে এক ব্যক্তির বাসায় গৃহপরিচারিকার কাজ করতেন। গত ১৮ই অক্টোবর গৃহপরিচারিকার কাজটি পাইয়ে দেন ধর্ষক বাঁশখালীর ছনুয়া ইউনিয়নের খুদুকখালী গ্রামের মৃত নুর আহাম্মদের ছেলে আবুল বশর (৪৫)।

গত সোমবার বিকালে বাসার গৃহকর্তা মহিউদ্দিন ওই কিশোরীকে বিদায় করে দিলে আবুল বশর ওই কিশোরীকে বাড়ি পৌঁছে দেয়ার কথা বলে বাঁশখালী সড়ক হয়ে চকরিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা দেয়। রাত ৯টার দিকে বাঁশখালীর প্রেমবাজারে চা-নাস্তা করার কথা বলে গাড়ি থেকে ওই কিশোরীকে নামিয়ে নিয়ে যায় আবুল বশর।
পরে পুঁইছড়ির হাব্বান আলী সড়ক ধরে হাঁটা শুরু করে। এ সময় মো. জমির নামে আরো একজনকে সঙ্গে নেয় সে। এরপর রাত ১০টার দিকে ফসলি জমিতে নিয়ে গিয়ে দুজনই কিশোরীকে ধর্ষণ করে। ওই সময় ধর্ষিতার চিৎকারে গ্রামবাসী কিশোরীকে উদ্ধার করলেও ধর্ষকরা পালিয়ে যায়।
পরে বাঁশখালী থানার উপ-পরিদর্শক দীপক সিংহের নেতৃত্বে একদল পুলিশ তাৎক্ষণিক অভিযান চালিয়ে দুই ধর্ষককে গ্রেপ্তার করে। ধর্ষিতাকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। জড়িতদের বিরুদ্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর