× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার

জামিন পেলেন দেবাশীষ বিশ্বাস

বিনোদন

স্টাফ রিপোর্টার | ২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৩:০০

টাকা ফেরত দেয়ার শর্তে প্রতারণা মামলায় জামিন পেলেন উপস্থাপক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা দেবাশীষ বিশ্বাস। আজ প্রথম আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিলেও  প্রতিশ্রুতি দেয়ার কারণে বিচারক পরবর্তীতে তার জামিন মঞ্জুর করেন। জানা যায়, এর আগে দেবাশীষ বিশ্বাস আজ আদালতে আত্মসমর্পণ করে তার বিরুদ্ধে হওয়া প্রতারণা মামলা থেকে জামিন আবেদন করেন। এ সময় ঢাকার অতিরিক্ত মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান নূর তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। তার কিছুক্ষণ পর আইনজীবী খন্দকার মুহিবুল হাসান আপেলের মাধ্যমে চুক্তি অনুযায়ী নেয়া টাকা ফেরত দেয়ার প্রতিশ্রুতিতে পুনরায় জামিন আবেদন করেন দেবাশীষ। মামলার বিবরণীতে জানা যায়, সিএনটিভি ইউটিউব চ্যানেলের মালিক লিটন সরকার ইমন নামের এক ব্যক্তি দেবাশীষ বিশ্বাসের মা গায়ত্রী বিশ্বাস প্রযোজিত চারটি বাংলা চলচ্চিত্র—‘মায়ের মর্যাদা’, ‘শুভ বিবাহ’, ‘অপেক্ষা’ ও ‘অজান্তে’ ইউটিউব চ্যানেলে প্রচার করতে ৬০ বছরের জন্য ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় ২০১৯ সালের ৩০ জুলাই বাণিজ্যিক শর্তে কিনে নেন। তিনি ছবিগুলো ইউটিউব চ্যানেলে আপলোড করলে ইউটিউব কর্তৃপক্ষ চ্যানেল বন্ধ করে দেয়। পরে তিনি খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, এই চার চলচ্চিত্র আসামিরা তার আগেই ২০১৭ সালে অন্য দুজন ব্যক্তির কাছে বিক্রি করেন।
যার কারণে ইউটিউব চ্যানেল কর্তৃপক্ষ ছবিগুলো আপলোড করার পর লিটন সরকার ইমনের চ্যানেল বন্ধ করে দেয়। এরপরই ২০১৯ সালের ৮ সেপ্টেম্বর সিএমএম আদালতে লিটন সরকার ইমন বাদী হয়ে দেবাশীষ বিশ্বাস ও তার মায়ের নামে প্রতারণার মামলা করেন। পরে আদালত এ বিষয়ে মিরপুর রূপনগর থানাকে তদন্তের নির্দেশ দেয়। তদন্ত কর্মকর্তা ও রূপনগর থানার পরিদর্শক (অপারেশন) মো. মোকাম্মেল হোসেন তদন্ত করে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন। আদালত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে ২০১৯ সালের ৫ ডিসেম্বর আসামিদের আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন। আসামিরা হাজির না হওয়ায় চলতি বছর ২১ অক্টোবর বাদীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ারা জারি করেন। দেবাশীষ বিশ্বাস এ বিষয়ে আজ মানবজমিনকে বলেন, ভুল বোঝাবুঝির একটা বিষয় ছিলো এটি। অবশেষে আজ তার অবসান হয়েছে। আমি এখন বাসাতেই আছি। আমি সবাইকে অনুরোধ করবো সত্যতা যাচাই করে সংবাদ পরিবেশনের জন্য।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ক্ষুদিরাম
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৬:২০

আজ্ঞে মশাই বিশ্বাসদের অবিশ্বাস করে এমন হিম্মত এই আমলে কে রাখে ?? তবে তাদেরকে প্রতারক বলা জাবিনে। মোলায়েম করে বলতে হবে ভূল বোঝাবুঝি !!

Mahmud Shawkat
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৫:২৩

প্রতারককে প্রতারক বললে কস্ট পাইলে কিছু করার নাই

NARUTTAM KUMAR BISHW
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৩:৩২

মিডিয়ার লোকদের এরকম কাজ মানায় না। এইসব লোক মিডিয়ার ভিতরে ঢুকে মিডিয়াকে একটা বিতর্কিত অবস্থানে নিয়ে গেছে। দেখুন দেবাশীষ দার প্রচুর ভক্ত আছে, তারা এই খবর প্রচার হওয়ার পর কি ভাবছে? আমি নিজেও তার ভক্ত ছিলাম। প্রতারণার মামলার প্রতিবেদনটি পড়ার পর মন ভেঙ্গে গেছে।

Udashin
২৮ অক্টোবর ২০২০, বুধবার, ৩:১৭

বিশ্বাস বাবু তাহলে আজকাল এই রকম বিশ্বাস ভংগের কাজ কারবার শুরু করে দিয়েছে??

অন্যান্য খবর