× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৪ ডিসেম্বর ২০২০, শুক্রবার

বছরের প্রথম ৬ মাসে ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়ে ফেসবুকে রেকর্ড আবেদন সরকারের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক | ২১ নভেম্বর ২০২০, শনিবার, ৪:৩৭

বছরের প্রথম অর্ধাংশে ব্যবহারকারীদের ডাটা সম্পর্কে ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে রেকর্ড সংখ্যক অনুরোধ করেছে বাংলাদেশ সরকার। এ সময়ে বাংলাদেশ সরকার মোট ২১৪ জন ব্যবহারকারীর ডাটা চেয়েছে ফেসবুকের কাছে। আগের বছর ২০১৯ সালের প্রথম ৬ মাসের তুলনায় এই সংখ্যা আড়াই গুণেরও বেশি। ২০১৯ সালে ফেসবুকের কাছে এমন ৯৫টি অনুরোধ করেছিল সরকার। সম্প্রতি ফেসবুক কর্তৃপক্ষ তাদের গ্লোবাল ট্রান্সপারেন্সি রিপোর্টে এ তথ্য প্রকাশ করেছে। এই রিপোর্টে দেখা গেছে, সুনির্দিষ্ট ৩৭১টি একাউন্ট/ব্যবহারকারী সম্পর্কে তথ্য চেয়ে অনুরোধ করে বাংলাদেশ। ২০১৯ সালের একই সময়কালে এমন ১২৩টি একাউন্ট/ব্যবহারকারী সম্পর্কে জানতে চেয়েছিল বাংলাদেশ। সরকারের আবেদনের জবাবে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ শতকরা ৪৪ ভাগ আবেদন গ্রহণ করে।
অনুরোধের প্রেক্ষিতে তারা কিছু ডাটা সরবরাহ করেছে। আরেক পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, এসব ডাটা বা তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে ক্রমশ আইনি প্রক্রিয়ার ওপর নির্ভর করছে সরকার। বাংলাদেশ সরকার যেসব ডাটার জন্য অনুরোধ করেছে তাকে দুটি ক্যাটেগরিতে ভাগ করা যায়। প্রথমটি হলো, আইনগতভাবে তথ্য পাওয়ার বিষয়টি সাধারণত দীর্ঘমেয়াদি হয়। এক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় সপিনা, আদালতের নির্দেশ বা ওয়ারেন্ট। অন্যদিকে কোনো শিশুর ক্ষতি, মৃত্যুর ঝুঁকি অথবা কোনো ব্যক্তির শারীরিক মারাত্মক আহত করার মতো তথ্য থাকার প্রেক্ষিতে সরকার জরুরিভিত্তিতে তথ্য চেয়ে আবেদন করতে পারে। এ বছরের প্রথম ৬ মাসে আইনি প্রক্রিয়ায় যেসব আবেদন করেছে তা মোট আবেদনের শতকরা ৫৮.৯ ভাগ। আগের বছর এই হার ছিল শতকরা ১৫.৮ ভাগ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর