× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

ব্রিজে উঠতে সাঁকো, ভোগান্তিতে ১৫ হাজার মানুষ

বাংলারজমিন

গোলাম মোস্তফা রুবেল, সিরাজগঞ্জ থেকে
২৪ নভেম্বর ২০২০, মঙ্গলবার

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুর উপজেলার পোরজনা ইউনিয়নের ছোট মহারাজপুর গ্রামের বাঐখোলা-পোরজনা সড়কে ১০ মাস আগে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে ১৬ লাখ ৩১ হাজার ৩২৪ টাকা ব্যয়ে ২০ ফুট কংক্রিট ব্রিজটি সেতু/কালভাট নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় নির্মাণ করা হয়। এরপর ব্রিজের দু’পাশের সংযোগ সড়ক না থাকায় ওই এলাকার ১৫টি গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ প্রতিদিন ঝুঁকিপূর্ণ বাঁশের মাচাল দিয়ে ব্রিজে উঠে  অতিকষ্টে ব্রিজটি পার হচ্ছে। গ্রামগুলো হল- বাচড়া, চর বাচড়া, পোরজনা, বাঐখোলা, রাণীকোলা, ছোট মহারাজপুর, চর কাদই, পুরান কাদই, পুঠিয়া, বেলতৈল, উল্টাডাব, চরকৈজুরি, বড় মহারাজপুর, কাকরিয়া ও জামিরতা। এ বিষয়ে ছোট মহারাজপুর গ্রামের আব্দুস সালাম, আব্দুল মান্নান, মস্তাফিজুর রহমান, পোরজনা গ্রামের, লোকমান হোসেন, জুলফিকার আলী, রাণীকোলা গ্রামের সামশাদ আলী, আব্দুল লতিফ, আবুল কালাম আজাদ ও উল্টাডাব গ্রামের আব্দুল হালিম জানান, এসব গ্রামের প্রায় ১৫ হাজার মানুষ প্রতিদিন এ সড়ক ও ব্রিজ দিয়ে ইউনিয়ন তফসিল অফিস, পোস্ট অফিস, আশ্রম, হাসপাতাল, ব্যাংক ও ৩টি হাট-বাজারে যাতায়াত করে। এছাড়া এ ব্রিজ দিয়ে প্রতিদিন ৪টি বিদ্যালয়, ১টি কলেজ ও ৫টি মাদ্রাসার ৩ হাজার শিক্ষার্খী যাতায়াত করে। প্রায় ১০ মাস ধরে ব্রিজটি নির্মাণ করা হলেও এর দু’পাশের সংযোগ সড়কে মাটি ভরাটের কাজ না করায় বর্ষার সময় গ্রামের চাকরিজীবীদের দেয়া ২০ হাজার টাকায় বাঁশের মাচাল তৈরি করে যাতায়াত করছি। এটাও পুরনো হয়ে পানিতে পচে নষ্ট হয়ওয়ায় পণ্যবোঝাই রিকশাভ্যান যাতায়াত করতে পারে না। ফলে আমাদের ধান, চাল, পাট, গৃহনির্মাণ সামগ্রী ও সেনিটারি সামগ্রী মাথায় করে নিতে হয়।
এতে খরচ ও সময় বেশি লাগে। এ ছাড়া কষ্টও অনেক বেশি হয়। বৃদ্ধ ও শিশুরা যাতায়াত করতে পারে না। পণ্যবাহী ভ্যান উল্টে দুর্ঘটনা ঘটে। তারা আরো জানান, ব্রিজটি নির্মাণের পর দায়সারা গোছের সামান্য মাটি ফেলা হয়। ফলে বর্ষার শুরুতেই তা ভেঙে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। ফলে গ্রামের চাকরিজীবীদের দেয়া চাঁদার টাকায় বাঁশের মাচাল তৈরি করে যাতায়াত করতে হচ্ছে। তারা অবিলম্বে ব্রিজটির দু‘পাশে সংযোগ সড়ক নির্মাণের জোর দাবি জানান। এ বিষয়ে পোরজনা ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ওসমান গণি বলেন, ব্রিজটি নির্মাণের পরপরই বন্যার পানি চলে আসায় মাটি ভরাট করা সম্ভব হয়নি। বন্যার পানি সরে গেলে মাটি ভরাট করে চলাচলের উপযোগী করা হবে। এ বিষয়ে শাহজাদপুর উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ব্রিজটি নির্মাণের পর কিছুটা মাটি ভরাট করা হয়েছিল। কিন্তু বন্যার পানির তীব্র চাপে তা ভেঙে গেছে। পানি সরে গেলে মাটি ভরাট করে চলাচলের উপযোগী করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর