× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার
সিলেটে পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রমের প্রতিবাদে সমাবেশ

আচমকা উপস্থিত মেয়র আরিফ

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার, সিলেট থেকে
২৭ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার

সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রমের প্রতিবাদে সমাবেশে হঠাৎ উপস্থিত মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। নগরীর শহীদ মিনারের সামনের ওই কর্মসূচি স্থলে মেয়রের উপস্থিতিতে বিব্রত হয়ে পড়েন আয়োজকরা। গতকাল বিকালে সিলেট নগরীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার এলাকায় ভূমিসন্তানের পক্ষ থেকে মানববন্ধন ও সমাবেশের আয়োজন করা হয়। ভূমিসন্তান বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সিটি করপোরেশন কর্তৃক উন্নয়নের নামে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও বুদ্ধিজীবী কবরস্থানের মাঝখানে অবস্থিত পুরনো বৃক্ষ কাটার প্রতিবাদে এ সমাবেশের আয়োজন করা হয়। এতে বক্তারা উন্নয়নের নামে বৃক্ষ নিধনের এই কার্যক্রমে মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে অভিযোগ তোলেন। মেয়র অনাকাঙ্ক্ষিত এ ঘটনার দায় নিজের ওপর নিয়ে আগামীতে এ ধরনের কাজের ক্ষেত্রে সকলের পরামর্শ নিয়ে করার আশ্বাস দেন। এমনকি তিনি সিলেট নগরকে সবুজায়নের জন্য নিজের পরিকল্পনার কথা জানিয়ে সকলের সহায়তা চেয়ে বলেন- ইতিমধ্যে আমি নগরীর বেশ কয়েকটি দীঘি খননের প্রস্তাব দিয়েছি। নগরের সংস্কার করা প্রতিটি সড়কের আইল্যান্ডে গাছের চারা লাগানোর উদ্যোগ নিয়েছি।
তাই গাছ কাটা হোক এটা আমিও চাই না। কিন্তু এখানে যে গাছটি কাটা হয়েছে, এটা আসলে কোনো ভাবেই কাম্য ছিল না। তাই আমি যখন জানলাম মানববন্ধনের কথা আমিও ছুটে এসেছি। এখানে এসে বৃক্ষের প্রতি ভালোবাসা থেকে মানুষের উপস্থিতি দেখে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। আশা করি আগামীতে যদি বিশেষ প্রয়োজনে গাছ কাটতেই হয় তাহলে যথাযথ পরিকল্পনা করে, আলাপ-আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। এদিকে- সমাবেশে ভূমিসন্তান বাংলাদেশের মানববন্ধনে বক্তারা বলেন- অতীতেও দেখেছি সিসিক কর্তৃপক্ষ উন্নয়নের নামে বৃক্ষ কর্তন করেছে। সে সময় প্রতিবাদ করা হলে সিসিক মেয়র দুঃখ প্রকাশ করেছিলেন এবং কোনো গাছ কাটা হলে পরিকল্পিতভাবে কাটা হবে বলে আশ্বাস দিয়েছিলেন। সে লক্ষ্যে সবুজায়নের জন্য একটি কমিটিও করা হয়েছিলো। কিন্তু পরবর্তীতে এ কমিটির আর কোনো খবর নেয়া হয়নি এবং একের পর এক পরিবেশ বিধ্বংসী কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া হচ্ছে।  এ সময় সম্প্রতি নগরীর ২১নং ওয়ার্ডের অভ্যন্তরে একটি পুকুর ভরাট করার প্রতিবাদ করে বক্তারা বলেন, কিছুদিন আগে সিসিক থেকে উন্নয়নের নামে পুকুর ভরাট করা হয়েছে। কিন্তু প্রশ্ন হলো পুকুর ভরাট করে কিসের উন্নয়ন? এ সময় সমাবেশে সংহতি জানিয়ে বক্তব্য রাখেন- সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সভাপতি মিশফাক আহমদ মিশু, সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন সিলেটের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সামির মাহমুদ, সম্প্রতি গড়ে ওঠা নাগরিক প্ল্যাটফরম ‘দুষ্কাল প্রতিরোধে আমরা’ এর সংগঠক রাজিব রাসেল প্রমুখ। ভূমিসন্তান বাংলাদেশের প্রধান সমন্বয়ক আশরাফুল কবিরের স্বাগত বক্তব্যের মধ্যদিয়ে শুরু হওয়া মানববন্ধনের সঞ্চালনা করেন আবুবকর আল আমিন। এ সময় সংহতি জানিয়ে উপস্থিত ছিলেন সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, সিলেটের সহ-সভাপতি শামসুল আলম সেলিম, ফটো জার্নালিস্ট এসোসিয়েশন সিলেটের সভাপতি মামুন হাসান, বাপা সিলেটের সদস্য সুপ্রজিত তালুকদার, দুষ্কাল প্রতিরোধে আমরা’র সংগঠক নিরঞ্জন সরকার, ভূমিসন্তান বাংলাদেশের সংগঠক আনিস মাহমুদ, রুবেল আহমদ কুয়াশা, উসা সিলেটের নির্বাহী পরিচালক নিগাত সাদিয়া, সারি বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক আব্দুল হাই আল হাদি, পরিবেশ কর্মী শাহ সিন্দার শাকিল, ভূমিসন্তান বাংলাদেশের সংগঠক শাকিল আহমদ সুহাগ, প্রথম আলো বন্ধুসভা সিলেট’র সভাপতি তামান্না ইসলামসহ সদস্যরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর