× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ১৭ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার

সীতাকুণ্ডে অবৈধ কালো তেলের রমরমা বাণিজ্য

বাংলারজমিন

সীতাকুন্ড (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
৬ ডিসেম্বর ২০২০, রবিবার

সীতাকুণ্ড উপজেলার ভাটিয়ারী ইউনিয়নের সালেহা কার্পেট জাহানারাবাদ আব্দুস সালামের মালিকানাধীন কালো তেলের ডিপোতে পরিবেশ দূষণ করে গড়ে উঠেছে কালো তেলের ডিপো। এই ডিপোতে কালো তেল ও পোড়া মবিল তৈরি করতে সৃষ্ট ধোঁয়ায় জনসাধারণের প্রতিনিয়ত দম বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে। এই করোনা মধ্যে বিষাক্ত কালো ধোঁয়ার কারণে বেড়ে চলছে, শিশুদের কাশি, অ্যাজমা, হাঁপানি ও শ্বাসকষ্ট সহ বিভিন্ন রোগবালাই। সরজমিনে গেলে স্থানীয়রা জানান, ভাটিয়ারী ইউনিয়নের ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পশ্চিম পাশে গ্রামের ভেতরে সালেহা কার্পেট জাহানারাবাদ গ্রামের ভিতরে প্রায় দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে অবৈধভাবে কালো তেলের রমরমা ব্যবসা করে আসছেন অসাধু ব্যবসায়ী আব্দুস। সালেহা কার্পেট এলাকায় গেলে স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে গ্রামের পরিবেশ দূষণ করে কালো তেল পুড়িয়ে পোড়া মবিল তৈরি করে কালো তেলের ডিপো গড়ে তুলেছেন। যার কারণে পোড়া মবিলের কালো ধোঁয়ায় শিশু ও বৃদ্ধ সহ অনেকে এই করোনার মধ্যে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। কালো তেলের ডিপোর এই দুর্গন্ধ যুক্ত কালো ধোঁয়ায় যেন মানুষ তথা সকল জীবের কাছ থেকে অক্সিজেন কেড়ে নিচ্ছে। মসজিদের ইমাম হারুন বলেন, কালো তেলের বিষাক্ত ধোঁয়ার দুর্গন্ধের কারণে মুসল্লিদের নিয়ে নামাজ পড়তে পর্যন্ত অসুবিধা হয়।
এলাকার জসিম, সালাউদ্দিন ,নবী, ইউসুফ, হানিফ সহ অনেকে অভিযোগ করে জানান, পোড়া তেলের গন্ধে বাচ্চাদের নিয়ে বসবাস করতে কষ্ট অসাধ্য হয়ে পড়ছে, ঘন ঘন বাচ্চাদের অসুখ হচ্ছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নাম সর্বস্ব এই ডিপোটিতে বড় বড় বয়লার। পুরাতন জাহাজের কালো তেলের বয়লার নিয়ে কার্বন-ডাই অক্সাইড ও সালফার ডাই অক্সাইড এসিড মিশিয়ে তা পাথ পরিমাণে আগুনের তাপ দিয়ে পাতলা একটি সং মিশ্রণ তৈরি করে বোতলজাতের মাধ্যমে অটোমোবাইলের লুব অয়েল নামে বাজারে মিশ্র করে ফায়দা লুটছে অবৈধ কালো তেলের এ কারবারি। যা গাড়ির ইঞ্জিনের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকরণ বলে জানান আটোমোবাইল ইঞ্জিনিয়ারিং হালিম সিকদার। সূত্রে আরো জানা যায়, পুরাতন জাহাজের ভিতের তেল জলতে এক ধরনের কালো তেলের বর্জ্য জমে যায়। সেই বর্জ্য কম টাকায় কিনে এসিড মিশিয়ে লুব অয়েল নাম দিচ্ছে। সংঘবন্ধ কালো তেলের কারবারিরা। পরিবেশ অধিপ্তরের অনুমতি আছে কি না কালো তেল ডিপোর মালিক আব্দুর সালামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, পরিবেশকে ম্যানেজ করে সেই এবং জাহেদসহ দুজন মিলে এই ব্যবসা করে যাচ্ছে। চট্টগ্রাম পরিবেশ অধিপ্তরের ডেপুটি ডাইরেক্টর মো. জমির উদ্দিন মানবজমিনকে জানান, লাইন্সেস বিহীন অনুমোদনহীন ও পরিবেশ ছাড়পত্র ছাড়া অধৈব কর্মকাণ্ড চালিয়ে পরিবেশ বিনষ্ট করলে সরজমিন গিয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো। সীতাকুণ্ড উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. নুরুদিন রাশেদ জানান, কালো তেলে পোড়ার দুর্গন্ধের কারণে শিশু ও বয়স্কদের ডায়ারিয়া, শ্বাসকষ্ট, কাশি, সর্দি সহ বিভিন্ন রোগ বালাই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর