× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৭ মার্চ ২০২১, রবিবার

শুরু হলো বই বিতরণ, নেই উৎসব

শিক্ষাঙ্গন

স্টাফ রিপোর্টার
(২ মাস আগে) জানুয়ারি ১, ২০২১, শুক্রবার, ৭:২১ অপরাহ্ন
ফাইল ছবি

বাংলাদেশে ২০১০ সাল থেকে বছরের প্রথম দিনে বই প্রদান করা হয়ে থাকে বিনামূল্যে। বছরের প্রথম দিনে এই বই উৎসব যেনো এক প্রাপ্তি। তবে এবার নেই বই বিতরণ উৎসব। এ বছর প্রায় ৩৫ কোটি নতুন বই ছাপিয়েছে সরকার।

প্রাণঘাতী করোনার সংক্রমণ এড়াতে বন্ধ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। শিক্ষার্থীদের ঝুঁকি এড়াতে এবছর বাতিল করা হয়েছে বই উৎসব। উৎসব করে একদিনে বই দেয়া হবে না এবার। পহেলা জানুয়ারি থেকে শুরু করে ধাপে ধাপে ১২দিন ধরে দেয়া হবে বই।

শিক্ষার্থীদের সুরক্ষিত রাখতে প্রতিষ্ঠানে প্রতিষ্ঠানে দেয়া হবে বই। এই বিতরণ কার্যক্রম শুরু হয়েছে বছরের প্রথম দিন থেকে।
এরআগে এর আগে বৃহস্পতিবার গণভবন থেকে ভার্চ্যুয়ালি বই বিতরণ উৎসব উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বই বিতরণের জন্য স্কুল গুলোতে আলাদা করে শ্রেণি ভিত্তিক বুথ করা হয়েছে। এসব বুথের দায়িত্বে রয়েছেন একজন করে শিক্ষক।

এবার প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ে ২০২১ সালে সর্বমোট পাঠ্যপুস্তকের সংখ্যা ১০ কোটি ২৫ লাখ ৮২ হাজার ৫৫৫টি। এর মধ্যে প্রথম-দ্বিতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীর জন্য দুই কোটি ৫৯ লাখ ৯২ হাজার ৬৭১টি বই, তৃতীয়-চতুর্থ ও পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য ছয় কোটি ৯৬ লাখ, ৯৭ হাজার ৩৭৪টি।

এর মধ্যে ৯৪ হাজার ২৭৫ জন ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠীর (চাকমা, মারমা, ত্রিপুরা, গারো ও সাদ্রী) শিশুদের জন্য পাঁচটি ভাষায় প্রাক-প্রাথমিক থেকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত প্রায় দুই লাখ ১৩ হাজার ২৮৮টি বিশেষ ভাষার বই বিতরণ করা হবে। তবে তৃতীয় শ্রেণির শিক্ষার্থীরা তাদের ভাষায় শুধু বাংলা বইটি পাবে। এ বছর সাঁওতাল ভাষায় পাঠ্যপুস্তক দেয়া সম্ভব হয়নি।

এবার ৯ হাজার ১৯৬ জন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর জন্য ব্রেইল পদ্ধতির বই বিতরণ করা হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের জন্য ২৪ কোটি ৩৩ লাখ ৩৪ হাজার বই মুদ্রণ করার কাজ চলমান রয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর