× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

ফারদিনের বেপরোয়া জীবন

প্রথম পাতা

রুদ্র মিজান
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার

রাতভর আড্ডা। কখনো হোটেলে, কখনো বন্ধুর বাসায়। বুঁদ হয়ে থাকতো মাদকে। মদ ও নারীর নেশা ছিল প্রবল। একাধিক ঘনিষ্ঠ বান্ধবী ছিল তার। প্রায়ই ছুটে যেতো ঢাকার অদূরে কোথাও। সঙ্গী থাকতো বান্ধবী। টয়োটা এক্সিও গাড়িটি নিজেই চালাতো।
প্রতি মাসে বিপুল অঙ্কের টাকা ব্যয় করতো। মা-বাবার শাসন-বারণে তোয়াক্কা ছিল না মোটেও। যখন যা চাইতো তাই পেতো। অর্থ ও বিত্তের জোরেই বেপরোয়া হয়ে ওঠে তানভীর ইফতেফার দিহান (১৮)।
কলাবাগানের লেক সার্কাস এলাকার অনেকেই তাকে ডিজুস বয় হিসেবে চেনে। যখন তখন গাড়ি নিয়ে বের হতো। পাড়ার গলি কেঁপে উঠতো, তার গাড়িতে বাজানো হতো উচ্চ ভলিয়মের গান। হিন্দি ও ইংরেজি গান শুনতো দিহান। ঘনঘন হর্ণ বাজানো তার অভ্যাস। গাড়ির সামনে থেকে সরে যেতে সময় ক্ষেপণ করার কারণে রিকশা, ভ্যানচালকরা তার মারধরের শিকার হতো প্রায়ই। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দিহানের বাবা আব্দুর রউফ সরকার ছিলেন জেলা রেজিস্ট্রার। ২০১২ সালে অবসরে যান তিনি। ভূমি মন্ত্রণালয়ের এই গুরুত্বপূর্ণ পদে চাকরি করার সুবাদে বিপুল অর্থের মালিক হন আব্দুর রউফ সরকার। কলাবাগানের লেক সার্কাসের ডলফিন গলির পান্থনিবাস নামক বাড়িটি তার পিতা আব্দুর রউফ সরকারের। আব্দুর রউফ সরকারের তিন পুত্রের মধ্যে তানভীর ইফতেফার দিহান ছোট। দিহান যেকোনো আবদার করলে তা সহজেই পূরণ করতেন পিতা। দিহানের বয়স যখন ১৬ বছর, তখনই সাড়ে তিন লাখ টাকা মূল্যে সুজুকি মোটর সাইকেল কিনে দেন পিতা। কয়েক বছরের মধ্যেই গাড়ির বায়না করে দিহান। যেকোনো গাড়ি দিলে হবে না। দিতে হবে টয়োটা এক্সিও। ছেলের কথামতো ২০১৯ সালে ১৪ লাখ টাকা দিয়ে গাড়ি কিনে দেন তার পিতা।
দিহানের ঘনিষ্ঠরা জানান, অল্প বয়সেই বেপরয়ো জীবনযাপনে অভ্যস্ত হয়ে যায় দিহান। যে কারণে দিহানের তেমন লেখাপড়া করা হয়ে ওঠেনি। তবে ব্রিটিশ কাউন্সিলে একটি কোর্স করেছিল দিহান। তার বেশ কয়েক বান্ধবী রয়েছে। আনুশকা নুর ছাড়াও পরিচয় ছিল ইংলিশ মিডিয়ামে অধ্যয়ণরত আরো অনেকের সঙ্গে। এরমধ্যে তার একজন কিশোরী বান্ধবী রয়েছে বলে জানা গেছে। ওই মেয়েটির সঙ্গে বিভিন্ন সময়ে ধানমণ্ডির বিভিন্ন রেস্টুরেন্টে দেখা গেছে তাকে। সূত্র মতে, পুলিশের কাছে দিহান স্বীকার করেছে একাধিক মেয়ের সঙ্গে যৌন সম্পর্ক ছিল তার। একেক সময় একেক জনকে নিয়ে সময় কাটাতো। বান্ধবীরা তার প্রতি বেশ সন্তুষ্ট থাকতো, কারণে অকারণে বান্ধবীদের দামি দামি গিফট দিতো দিহান। ঘটনার কিছুদিন আগেও এক বান্ধবীর বার্থ ডে পার্টির আয়োজন করেছিল।
সূত্রমতে, প্রায়ই লং ড্রাইভে যেতো দিহান। করোনার সময় বিকালে বের হয়ে বাসায় ফিরতো গভীর রাতে। অনেক সময় রাতে বাসায় ফিরতো না। রাতে বারবিকিউ পার্টির নামে বন্ধুরা মিলে বিভিন্নস্থানে মদের আড্ডায় মজে থাকতো। গুলশান ও উত্তরার দু’টি তারকা হোটেলে দেখা যেতো তাকে। থার্টি ফাস্ট নাইটেও রাতভর হোটেলে কাটিয়েছে দিহান। এ নিয়ে প্রায়ই তার মা সানজিদা সরকারের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হতো।
ঘটনার দিন বাসা ফাঁকা থাকায় ‘ও ’ লেভেলের ছাত্রী আনুশকা নুর আমিনকে ডেকে নেয় তাদের লেক সার্কাসের বাসায়। দিহানের পিতা করোনা সংক্রমণের পর থেকেই গ্রামের বাড়ি রাজশাহীতে থাকেন। সেখানে থাকেন দিহানের বড় ভাই। ঘটনার দিন দিহানের মেজো ভাই ছিলেন নারায়ণগঞ্জে কর্মস্থলে। নানা অসুস্থ থাকায় তাকে দেখতে বগুড়া ছুটে যান দিহানের মা। ওই সুযোগেই আনুশকা নুর আমিনকে ডেকে নেয় দিহান।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Aftab Chowdhury
১৫ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ১১:৪৫

আর দিহানের ঘুষখোর বাপ যে কত হাজার হাজার মানুষকে ক্ষতিগ্রস্ত করে টাকার পাহাড় করেছে তার কুকর্মের উপর একটি অনুসন্ধানি প্রতিবেদন করুন । দুদক এবার ব্যবস্হা নিক।

md. monirul islam
১২ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ১০:৫৮

thanks manabzamin for reporting of dihans father.

Abdul Ahad
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১১:২০

আমি মনে করি ঊভয় পরিবারের দায়িত্বতার অভাব যার ফলে এরকম ঘটনা ঘটেছে

Hasan
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১:০০

I agree that Dihan is a spoiled child, brought up from the bribed money of his father. Let him go to hell. But "why" Anushka developed a friendship with Dihan ? Anushka was not a popper. Anushka was studying in a class one English medium school at Dhaka. Her parents were educated indeed. Why did she went to develop friendship with a "bad" boy like Dihan ? It was not a single day game. What the parents of Anushka was doing ? They do not bother, where their daughter is going in the name of "Group Study" ???

Jewel
১০ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার, ১১:৪০

তার বাবার ইনকাম সোর্স কি জানা জরুরী,দিহান কে নপুংশক করে দেয়া হোক। তবে আমি বোন/মেয়েদের বলছি আপনি ‌কিভাবে অপরিচিত/পরিচিত এরকম অবাধ সম্পর্কে যান ফলে পরিণতি তা হলো।

লিটন
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১১:৪২

হায়রে দেশ! কোন ঘটনার পর বিভিন্ন ভয়ংকর কাহিনী জানতে পাই। এতসব ঘটনাগুলো তো আস্তে আস্তে প্রকাশ্যেই সৃষ্টি হয়, অথচ সোনার বাংলাদেশের প্রশাসন বা দায়িত্বশীলগণ আগে থেকেই কেহ নজর দেয় না। কেন জানেন না ভাই? আপনাদের কাজ কি?

এটিএম তোহা
১০ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার, ৬:০৮

ঘুষ-দুর্নীতির টাকায় প্রাসাদ বানানো যাবে, সন্তানকে মানুষ করা যাবেনা। মানবজমিন থেকেই দিহানের বাপের পরিচিতি জানলাম। ৪/৫ দিনেও কোন মিডিয়ায় দিহানের পারিবারিক পরিচয় চোখে পড়েনি।

Nejam Kutubi
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ৬:৩৬

*মৃত্যুটা আড়াল করলে বড় লোকদের জন্য এটি হতো দুই শিশু বা কিশোরের দুষ্টুমি। **তানভীর ইফতেফার দিহানের মত বড় লোকের অনেক সন্তান এভাবেই বেপরোয়া জীবন কাটায়। আনুশকার জন্য দুঃখ হয়, কষ্ট লাগছে। সে যদি খুব বেশি অসুস্থ না হতো বা সুস্থ করে বাড়ি পাঠিয়ে দিতে পারতো, এই ঘটনা এত দূর গড়াত কিনা সন্দেহ! আনুশকা তার ডাকে গেল কেন? আমাদের দেশের আইনে তারা দু'জনেই শিশু। কোন আইনে বিচার হবে? শিশুরা এই সব করলে বাবা-মা তাকে দুষ্টুমি বলে উড়িয়ে ঘুড়ির দেশে পাঠিয়ে দেয়। ***এর আগে আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদের ছেলে বনানীর রেইনট্রি হোটেলে জন্মদিনের দাওয়াতে ডেকে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আছে। ****পুলিশ কর্মকর্তার মেয়ে ঐশী রহমানের কথাও মনে পড়ে যাচ্ছে। ধানমণ্ডির অক্সফোর্ড স্কুলে ভর্তি হয়েই পাল্টে যায় কিশোরী ঐশী। বেপরোয়া জীবনযাপন, অনিয়ন্ত্রিত প্রেম ও মাদক সেবনে ডুবে যায় সে। ইত্যাদি-ইতাদি। ***** এই জাতিয় টিনেজদের বিয়েটা অনেক আগেই দিয়ে দেওয়া উচিৎ। দিহানের বয়স (১৮) কেন? ১৯ বা ১৭ হতে পারল না? এখন বয়েসটা কমানোর জন্য... 0শেষে দেখা যাবে দিহানের পিতার মত দিহানেরও করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটবে এবং কোয়ারেন্টানে হয়ে মুছলেখার অস্থায়ী জামিন। বা কিশোর প্রমামিত হওয়াই তাকে কিশোর সংশোধনাগারে পাঠাল। 00হায়রে জাতীয় অভিভাবক! বিয়ের বয়স বুঝেনা!! দূষ্টুমি ও ধর্ষন বুঝেনা!!!

Md Yousuf Ali Mia
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ২:০২

Please seize the whole property and bank balance of Fardin,s father make from bribe during his service career and deposit to govt. fund. Everybody knows how much money a sub=register make per day. Please investigate.

Mohammad Sorwar
১০ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার, ১২:৪৪

Father's corrupted black money cause to promote like shameless crime against women.Some name also not related to muslim of this family.

Rasel Mahmud
১০ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার, ১২:৩০

দিহান মতো পাপিষ্ঠ একদিনে হয় নি।ওদের জন্য অনেক নিরপরাধ মানুষ ওদের পাপের শিকার হয়।সরকারের উচিত ওরা যার ছেলে হোক না কেন বেপরোয়া হওয়ার আগেই যেন শাস্তি দেয়।

Nam Nai
১১ জানুয়ারি ২০২১, সোমবার, ১:০৮

His Father's Corruption money caused him Jail / death sentence, a young lady to die and his Corrupt father to pay by life long embarassment . DUDOK should look into this

অন্যান্য খবর