× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার
সিএনএনের রিপোর্ট

নিজেকে আর রিপাবলিকান মনে করি না- কলিন পাওয়েল

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ সপ্তাহ আগে) জানুয়ারি ১২, ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:৩৬ অপরাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল বলেছেন, তিনি আর নিজেকে রিপাবলিকান হিসেবে ভাবেন না। যুক্তরাষ্ট্রের পার্লামেন্ট বলে পরিচিত ক্যাপিটল হিলে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের উস্কানিতে সহিংস হামলার পর তিনি বেদনা প্রকাশ করে এ কথা বলেছেন। একই সঙ্গে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের আচরণকে সমর্থন করার জন্য তিনি নিজের রিপাবলিকান পার্টির সমালোচনা করেছেন। এ খবর দিয়েছে অনলাইন সিএনএন। কলিন পাওয়েল সিএনএনের সাংবাদিক ফরিদ জাকারিয়ার ‘জিপিএস’ অনুষ্ঠানে এসব মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, তারা যা করেছে, তার জন্য আমি নিজেকে আর রিপাবলিকান বলতে পারি না। আমি এখন থেকে দলের কেউ নই। এখন থেকে আমি সাধারণ একজন নাগরিক।
ওইসব নাগরিকের মতো, যারা ডেমোক্রেটদের ভোট দিয়েছেন। রিপাবলিকানদের ভোট দিয়েছেন- আমি তাদেরই মতো। ঠিক এই মুহূর্তে আমি আমার দেশের দিকে পর্যবেক্ষণ করছি।
কলিন পাওয়েলের এই ঘোষণায়ই বোঝা যায় প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প ও তার সমর্থকরা দলের কি ক্ষতি করেছেন। এর ফলেই দলের ভিতরে অভিজাত, বিশেষ করে কা-জ্ঞান আছে, এমন নেতারা ট্রাম্পের পাশ থেকে সরে যাচ্ছেন। যুক্তিহীনভাবে ট্রাম্প ও তার সমর্থকরা যুক্তরাষ্ট্রের গণতন্ত্রকে কলঙ্কিত করেছেন। এ জন্য বিশ্বনেতারা যে ভাষায় আক্রমণ করে ট্রাম্প ও তার সমর্থকদের নিন্দা জানিয়েছেন তা বিরল। সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের সময়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন কলিন পাওয়েল। ইরাক যুদ্ধ, আফগান যুদ্ধের রূপকার হিসেবে দেখা হয় তাকে। রিপাবলিকান দলের প্রথম সারির নেতা ও প্রভাবশালী হিসেবে দেখা হয় তাকে। তিনি বেশ কয়েকটি প্রশাসনে দায়িত্ব পালন করেছেন। একবার তাকে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জোরালো একজন প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল। তার মতো ব্যক্তি যখন ট্রাম্পের নেতৃত্বে রিপাবলিকান পার্টির এমন হতদৃশ্য অবলোকন করেন, তখন দলের ক্ষতি সম্পর্কে সহজেই অনুমান করা যায়।
কলিন পাওয়েল যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছিলেন। প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অনেক আগে থেকেই তিনি সমালোচনার অস্ত্র শাণিয়েছেন। ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছিলেন। গত ৩রা নভেম্বর অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনেও তিনি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছেন প্রেডিসডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেনকে। বর্তমানের কর্মকা-ই নয় শুধু, ট্রাম্পের অতীত কর্মকা- নিয়ে সমালোচনা না করার নিন্দা জানিয়েছেন তিনি। তিনি রিপাবলিকানদের এমন সমালোচনা করে বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দিয়ে তারা ব্যক্তিগত রাজনৈতিক স্বার্থের রাজনীতি করেছেন। কলিন পাওয়েল বলেন, এর নিন্দা করা প্রয়োজন ছিল রিপাবলিকানদের। ওইসব মানুষকে আমাদের প্রয়োজন, যিনি সত্য কথা বলেন। আমাদের স্মরণ রাখতে হবে, তারা এ দায়িত্বে এসেছেন আমাদের ফেলো নাগরিকদের জন্য। তারা এ দায়িত্বে এসেছেন আমাদের দেশের জন্য। তারা প্রেসিডেন্ট পদে আসেন শুধু পুনঃনির্বাচিত হওয়ার জন্য নয়। তিনি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে পদ থেকে সরিয়ে দেয়ার পক্ষেও। বলেছেন, অভিশংসন প্রস্তাব এলে তিনি এর পক্ষে ভোট দেবেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Wadud
১৪ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৯:২২

বর্জ্য ভাল / মন্দ ? ইরাকের উপর মিথ্যে অজুহাতে যে ধ্বংজজ্ঞ্য করেছেন তার কথা শুনলে মনে হচ্ছে ভুতের মুখে রাম রাম।

তাইন রিজভী
১২ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:০৫

ইরাকে বিরুদ্ধে জাতিসংঘে রাসায়নিক অস্ত্রের মিথ্যা তথ্য প্রমাণ উপস্থাপন করেছিলেন কে, কলিন পাওয়েল না ডোনাল্ড ট্রাম্প?

অন্যান্য খবর