× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার

লাঠি নিয়ে প্রস্তুত থাকবেন, তাদের গিরার নিচে পেটাবেন: কাদের মির্জা

অনলাইন

 কোম্পানীগঞ্জ (নোয়াখালী) প্রতিনিধি
(১ সপ্তাহ আগে) জানুয়ারি ১২, ২০২১, মঙ্গলবার, ৫:০৭ অপরাহ্ন

বসুরহাট পৌরসভার মেয়র প্রার্থী আবদুল কাদের মির্জা বলেছেন, আমার বড় ভাই ওবায়দুল কাদের সাহেব বলছেন- আমি নাকি স্বঘোষিত মেয়র প্রার্থী হয়েছি। তিনি জনগণের উদ্দেশ্যে বলেন, আমি কি স্বঘোষিত মেয়র প্রার্থী? দল আমাকে মেয়র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন দিয়েছেন। তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে, ভোটের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে, ভোট কে প্রশ্নবিদ্ধ করতে চেষ্টা করছে একরাম চৌধুরী। একরাম চৌধুরী তার ঘনিষ্ঠ নোয়াখালী পৌরসভার বিএনপির সাবেক মেয়র হারুনুর রশিদকে গতকাল সন্ধ্যার পর বিএনপির মেয়র প্রার্থী কামাল উদ্দিন চৌধুরী ও কাউন্সিলরদেরকে টাকা দিয়ে গেছে, আমাকে হারানোর জন্য টাকাগুলো দিয়েছে একরাম চৌধুরী। মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় বসুরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের শহীদ নুরুল হক অডিটোরিয়ামে মহিলা আওয়ামী লীগের এক কর্মী সভায় তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা কাদের বলেন, ওবায়দুল কাদের আমার সাথে নেই, কেন্দ্রীয় নেতারা আমার সাথে নেই, নোয়াখালী প্রশাসনও আমার সাথে নেই, এখানকার প্রশাসনও নেই। আপনারা আমার ভোট করবেন, স্বতঃস্ফূর্তভাবে আপনারা কেন্দ্রে গিয়ে আমাকে ভোট দিয়ে আসবেন। কোন শয়তানি করলে, ষড়যন্ত্র করলে এর দায়-দায়িত্ব ওবায়দুল কাদের সাহেব, নির্বাচন কমিশনার শাহাদাত সাহেব, নোয়াখালীর ডিসি, এসপি ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তাকে নিতে হবে।
তিনি আরও বলেন, একরামের লোক, নিজাম হাজারির লোক ভোটের দিন এ এলাকায় ষড়যন্ত্র করতে আসবে। আপনার লাঠি নিয়ে প্রস্তুত থাকবেন। শুধু তাদের গিরার নিচে পেটাবেন। একবারে মেরে ফেলবেন না, বাকিটা আমি দেখব। ভোট হবে শতভাগ সুষ্ঠু, কোন অনিয়ম বরদাশত করা হবে না। আবদুল কাদের মির্জা জগনণের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা মুনাফেকি করবেন না, মুনাফেকি করলে আল্লাহ বিচার করবেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন, বসুরহাট পৌরসভা আ’লীগের সভাপতি জামাল উদ্দিন, আমেরিকান প্রবাসী আইয়ুব আলী, আমেরিকান প্রবাসী বাবুল, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমান মিন্টু, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা মহিলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমা বেগম শিফা, বসুরহাট পৌর আ’লীগের সভানেত্রী পারভীন মুরাদ, বসুরহাট পৌর আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াছমিন মুক্তা প্রমুখ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মামুন
১৩ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১১:৫৬

হে আল্লাহ, আপনি আমাদের সকলকে ওদের মত নেতা বানান। যেন খেলা ঠিকঠাক মত জমে।

Quamrul
১৩ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৮:৫৪

Election Commission and administration incite violence by their illegal actions.

Khokon
১২ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ৮:৪৫

কাদের মির্জা মঞ্চে উঠে অভিনয় শুরু করে দিয়েছেন । আজকের ভাইর বিরুদ্ধে, আওয়ামীলীগের বিরুদ্ধে, ব্যাক্তির বিরুদ্ধে, যতসব ছলচাতুরি । আর করবেইনা কেনো, দেশ আজ চোর গুন্ডাদের হাতে বন্দি বিধাই এসব করা হচ্ছে ? আজ যদি সে কাদের মিয়ার ভাই না হতো, তাহলে তার অবস্থান কোথায় হতো, বলা বাদ রাখেনা। তার আজ এত শক্তি যে আইন নিজের হাতে তুলে নিচ্ছে, তবে তা কার আদেশে ? আজ যদি সে কাদের মিয়ার ভাই না হতো সম্ভবত এতদিনে তার লাল দালানে বসে গুনতে হতো। সে ও জানে, তাই ইলেকশনে জেতার আগেই লোকজনকে পিঠা বার আদেশ দিচ্ছেন ? দেশ কোথায় যাচ্ছে !!

Md. Harun al-Rashid
১২ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ৬:৪৫

না জনাব, এমন অধৈর্য হবেন কেন। ঐ যে বলেছিলেন- 'চাইলো ফল, আনলো গাছটা কেটে'।এখন বলছেন "গিরার নিচে" এরা মারবে মাথায়(!)। নির্দেশ ফিরিয়ে নিন।

Kazi
১২ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:২৩

Violation of election rules. A candidate cannot incite people to riot.

অন্যান্য খবর