× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার

রাজনৈতিক মিত্রদের সঙ্গে দূরত্ব ট্রাম্পের

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ সপ্তাহ আগে) জানুয়ারি ১৩, ২০২১, বুধবার, ১০:০৬ পূর্বাহ্ন

নিজের একসময়কার ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের সঙ্গে দূরত্ব বেড়ে গেছে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের। গত সপ্তাহে মার্কিন আইনসভা ভবন ক্যাপিটল হিলে ট্রাম্প সমর্থকদের হামলার পর থেকেই এই অবস্থা তৈরি হয়।
সদ্য সমাপ্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ট্রাম্পের প্রতিপক্ষ জোসেফ বাইডেন জয় পান। তার এই জয় আনুষ্ঠানিকভাবে চূড়ান্ত করতে কংগ্রেসে ভোটাভুটি হয়েছিল। আর তখনই ট্রাম্পের আহ্বানে হামলা চালায় তার সমর্থকরা। কিন্তু সেই হামলা ব্যর্থ হয়। শুধু তাই নয়, ওই হামলার ঘটনায় মোহ ভাঙ্গে ট্রাম্পের দল রিপাবলিকান পার্টির অনেক আইনপ্রণেতারও।
এদের অনেকে বাইডেনের নির্বাচনি বিজয়ের বিপক্ষে ভোট দিতে চেয়েছিলেন।
কিন্তু এখন তারা অবস্থান বদলিয়েছেন। পুরো ঘটনাটিই এক চরম সংকটে পরিণত হয় ট্রাম্পের জন্য। আর এই ক্ষোভ নিজের সহযোগীদের উপর ঝাড়েন তিনি। ঘটনার দিন তার দীর্ঘ সময়ের বন্ধু ও সহযোগী ভাইস-প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্সের সঙ্গে রেগে কথা বলতেও শোনা গেছে তাকে। সূত্রের বরাত দিয়ে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, পেন্সকে উদ্দেশ্য করে ট্রাম্প বলেছেন, ‘আমি তোমার বন্ধু হতে চাই না। আমি চাই তুমি ভাইস-প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করো।’
খবরে বলা হয়, হামলার পর সারাদিন হোয়াইট হাউজে একা ঘরে বদ্ধ অবস্থায় কাটান ট্রাম্প। সাধারণত এমন ঘটনার পর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তিনি ব্যাপক সক্রিয় থাকেন। কিন্তু এদিন ফেসবুক ও টুইটার তার একাউন্ট লক করে দিলে তেমনটা করতে পারেননি তিনি।
ট্রাম্পের সহযোগীরা জানান, এমন পরিস্থিতিতে তিনি ঘণ্টার পর ঘণ্টা তার বন্ধুদের সঙ্গে ফোনে আলাপ করে থাকেন। কিন্তু গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার তার বেশ কয়েকজন উপদেষ্টা যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তাদের এড়িয়ে যান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।
ট্রাম্পের উপদেষ্টারা বলছেন, ভাইস প্রেসিডেন্ট পেন্সের প্রতি ব্যাপক ক্ষুব্ধ তিনি। তার প্রত্যাশা ছিল, জো বাইডেনের জয়কে সার্টিফাই বা চূড়ান্ত করা ঠেকাবেন পেন্স। কিন্তু পেন্স তাতে রাজি হননি। হামলার ঘটনার পর তো আর কথাই নেই। কিন্তু তারপরও পেন্সের আচরণকে প্রতারণা হিসেবে দেখেছেন ট্রাম্প।
সূত্র জানায়, গত বুধবার কংগ্রেসের কাছে বাইডেনের জয় স্বীকৃতি পাওয়া রুখতে কয়েকজন আইনপ্রণেতাদের ভোট দেওয়া থেকে বিরত রাখতে চেয়েছিলেন ট্রাম্প। এজন্য পেন্সকে চাপ দিচ্ছিলেন তিনি। কিন্তু সেদিন সমর্থকদের উদ্দেশ্যে ভাষণ দিতে যাওয়ার আগে পেন্স তাকে জানান, এমনটা করার সাংবিধানিক ক্ষমতা নেই তার। পেন্স আরো জানান, এমনটা করার চেষ্টা করলে বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর