× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ জানুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার

অভিশংসন নিয়ে আরো সহিংসতার হুঁশিয়ারি ট্রাম্পের, ‘ভয়াবহ ক্ষোভ ও বিভক্তি সৃষ্টি অত্যন্ত বিপজ্জনক’

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ সপ্তাহ আগে) জানুয়ারি ১৩, ২০২১, বুধবার, ১২:২৯ অপরাহ্ন

আরও সহিংসতার আশঙ্কায় ওয়াশিংটন ডিসিতে যখন ইমার্জেন্সি দেয়া হয়েছে, কড়া সতর্ক অবস্থায় রয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাগুলো, তখন অভিশংসনকে কেন্দ্র করে আরো সহিংসতার হুঁশিয়ারি দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। ৬ই জানুয়ারি ক্যাপিটল হিলে ভয়াবহ, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে নজিরবিহীন হামলার ঘটনায় তিনি মোটেও অনুতপ্ত নন। তার কণ্ঠে এ জন্য কোনো অনুশোচনা দেখা যায়নি। উল্টো তিনি হুঁশিয়ার করে দিয়েছেন সবাইকে। বলেছেন, তাকে অভিশংসনে আরও সহিংসতা হতে পারে। ‘ট্রাম্প ডিফাইয়্যান্ট এন্ড আনঅ্যাপোলজেটিক এবাউট হিজ রোল ইন ইনসাইটিং ক্যাপিটল মব এটাক’ শীর্ষক প্রতিবেদনে এসব কথা লিখেছে অনলাইন ওয়াশংটন পোস্ট। এতে বলা হয়, ৬ই জানুয়ারি ওই হামলার পর মঙ্গলবার তিনি প্রথম জনসমক্ষে বেরিয়ে আসেন। তার উস্কানিতে ওই হামলা হয়েছে বলে মার্কিন মিডিয়া সহ সারাবিশ্বের মিডিয়ায় খবর প্রকাশ পেয়েছে এবং পাচ্ছে।
কিন্তু তিনি ওই সহিংস দাঙ্গায় নিজের কোনো সম্পৃক্ততা প্রত্যাখ্যান করেছেন। ওই হামলায় একজন পুলিশ কর্মকর্তাসহ মোট ৫ জন নিহত হয়েছেন। ঘটনার সময় ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স এবং কংগ্রেস সদস্যদের জীবন মারাত্মক এক ঝুঁকিতে পড়েছিল। এসব বিষয়ে তিনি বলেছেন, তার উৎসাহে তার সমর্থকরা গত সপ্তাহের বুধবার ক্যাপিটল হিলের সামনে সমবেত হন। এর মধ্য দিয়ে তিনি নির্বাচনের ফল পাল্টে দিতে আইন প্রণেতাদের ওপর চাপ প্রয়োগ করতে চেয়েছিলেন বলে যে কথা বলা হচ্ছে তার পুরোটাই যথার্থ। তিনি বলেন, ক্যাপিটল হিলের সামনে জড়ো হতে সমর্থকদের উদ্দেশে তার যে বক্তব্য তা পুরোপুরি ঠিক ছিল। তিনি বলেছেন, লোকজন তার বক্তব্য বিশ্লেষণ করে এমনটাই জানিয়েছেন। এ সময় প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প ডেমোক্রেটদের অভিশংসন উদ্যোগ নিয়ে তাদেরকে সতর্ক করেছেন। বলেছেন, তাদের এমন প্রচেষ্টা হলো ধাপ্পাবাজি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এই অভিশংসন হলো সবচেয়ে বড় উইচ-হান্ট।
ক্যাপিটল হিলে দাঙ্গার ৬ দিন পর মঙ্গলবার প্রথম জনসমক্ষে বের হন ট্রাম্প। তিনি এদিন টেক্সাসের রিও গ্রান্ডে ভ্যালিতে নতুন নির্মিত সীমান্ত দেয়ালের কিছু অংশ পরিদর্শন করেন। সে সময়ে তিনি কংগ্রেসে তাকে জবাবদিহিতায় আনার চেষ্টার বিরুদ্ধে হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে এবং ভয়াবহ বিদ্বেষপূর্ণ উইচ-হান্ট, ধাপ্পাবাজি হলো অভিশংসন। এর ফলে ভয়াবহ ক্ষোভ, বিভক্তি এবং বেদনার সৃষ্টি হচ্ছে। সাধারণ মানুষ যতটা অনুধাবন করতে পারেন এর মাত্রা তার চেয়েও অনেক অনেক বেশি, যা যুক্তরাষ্ট্রের জন্য অত্যন্ত বিপজ্জনক। বিশেষ করে তা এই কোমল সময়ে।
ডেমোক্রেট এবং কিছু রিপাবলিকান যখন মাইক পেন্সকে সংবিধানের ২৫তম সংশোধনী সক্রিয় করার আহ্বান জানাচ্ছিলেন তখন প্রথমবারের মতো এ ইস্যুতে প্রকাশ্যে কথা বললেন ট্রাম্প। এ সময় তিনি বলেন, আমার জন্য ২৫তম সংশোধনী ‘জিরো-রিস্ক’। অর্থাৎ তিনি ঝুঁকিমুক্ত। কিন্তু এটা জো বাইডেন এবং বাইডেন প্রশাসনের পিছু লেগে থাকবে।
এখানে লক্ষ্যণীয়, জো বাইডেনের নাম উচ্চারণ করলেও তিনি তার নামের আগে প্রেসিডেন্ট-নির্বাচিত পদটি ব্যবহার করেননি। ট্রাম্প বলেছেন, অভিব্যক্তি যে ধারায় অগ্রসর হচ্ছে তাতে সতর্ক থাকবেন- আপনারা কি আশা করছেন তা নিয়ে। ওয়াশিংটন পোস্ট লিখেছে, অভিশংসন ও নতুন প্রশাসনের শপথ অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে ওয়াশিংটনে রি রি পড়ে গেছে। এমনিতেই গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই সতর্কতা দিয়েছে, প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত জো বাইডেন শপথ নেয়ার আগেই ওয়াশিংটন ডিসি সহ ৫০টি রাজ্যের রাজধানী ও বিভিন্ন শহরে ক্যাপিটল হিল স্টাইলে সহিংসতা হতে পারে। এ জন্য ওয়াশিংটন ও এর আশপাশের শহরকে পুলিশ ও সেনাবাহিনী দিয়ে ঘিরে ফেলা হয়েছে। আইন প্রয়োগকারীরা আরও সহিংসতার আশঙ্কায় রয়েছে সতর্ক অবস্থায়। এর মধ্যে ট্রাম্প আরও সহিংসতার সতর্কতা দিলেন। এ সতর্কতাকে আসলে সতর্কতা হিসেবে না দেখে হুমকি হিসেবে দেখা যেতে পারে। ৬ই জানুয়ারি তার সমর্থকরা ক্যাপিটল হিলে ধ্বংসলীলা চালালে প্রাথমিকভাবে তিনি তাদেরকে বিরত থাকতে বলেননি। দ্বিধাদ্বন্দ্বে ভুগেছেন। তিনি এমন অভিব্যক্তি প্রকাশ করেন যে, সমর্থকরা তার পক্ষে লড়াই করছে। অন্যদিকে ক্যাপিটল হিলে হামলাকারীদেরকে তার মেয়ে ইভানকা ট্রাম্প ‘দেশপ্রেমিক’ হিসেবে আখ্যায়িত করে ব্যাপক সমালোচিত হন। পরে তিনি সেই টুইট মুছে ফেলেন। ততক্ষণে তা কপি হয়ে গেছে।
শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার টেক্সাসে নিজের সুর পাল্টে ফেলেন ট্রাম্প। তিনি এদিন একটি লিখিত বক্তব্য দেন। দৃশ্যত তাতে তিনি সমর্থকদের সহিংসতা না করার আহ্বান জানিয়েছেন। বলেছেন, এখন আমাদের সময় হলো জাতির ক্ষতি সারিয়ে তোলার। এখন সময় শান্তির ও শান্ত থাকার। আইনের প্রতি সম্মান দেখানো হলো মেক আমেরিকা গ্রেট এগেইন প্রচারণার ভিত্তি। এর আগে মঙ্গলবার ক্যাপিটল হিলে হামলায় ব্যক্তিগত দায়বদ্ধতার বিষয়ে এয়ারফোর্স ওয়ানে বসে টেক্সাসের জয়েন্ট বেজ অ্যানড্রুতে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন। ট্রাম্প বলেন, লোকজন যা ভেবেছে, আমি বলি তার পুরোটাই যথার্থ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর