× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৮ মার্চ ২০২১, সোমবার

কষ্টার্জিত জয়ে শুরু আবাহনীর

খেলা

স্পোর্টস রিপোর্টার
১৫ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার

বাতিল হয়ে যাওয়া গত মৌসুমের প্রথম লীগ ম্যাচে ঢাকা আবাহনীর প্রতিপক্ষ ছিল পুলিশ এফসি। দেশের পেশাদার ফুটবলে পুলিশ এফসির অভিষেক ম্যাচে আবাহনী জিতেছিল ২-০ গোলে। এবারের লীগের শুরুটাও আকাশী-নীলরা করল পুলিশের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে। বৃহস্পতিবার ১-০ গোলের কষ্টার্জিত জয় পেয়েছে রেকর্ড ছয়বারের চ্যাম্পিয়রা। বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে আবাহনীকে জয় এনে দেয়া গোলটি করেন হাইতিয়ান ফরোয়ার্ড বেলফোর্ট কারভেন্স। প্রায় চার বছর পর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লীগে প্রত্যাবর্তনের ম্যাচে হারের তেতো স্বাদ পেলেন পুলিশের শ্রীলঙ্কান কোচ পাকির আলী।
আক্রমণের কমতি ছিল না আকাশী-নীল শিবিরে। ম্যাচের ২৪তম মিনিটে বক্সের খুব কাছে ফ্রি-কিক পায় আবাহনী। বেলফোর্টের শট ফেরাতে গেলে বল পুলিশের অধিনায়ক এবং আইভরিকোস্টের ডিফেন্ডার ল্যান্সিন তুরের হাতে লাগে।
রেফারি হ্যান্ডবলের বাঁশি বাজান। কিন্তু সেট পিস কাজে লাগাতে পারেনি আবাহনী। মাসিহ সাইঘানির শট পুলিশের এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে চলে আসে। দ্বিতীয়ার্ধে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠা মারিও লেমোসের দল অনেকটা গোছানো ফুটবল খেলে। কিন্তু পুলিশের জমাট রক্ষণ ভাঙতে পারছিল না তারা। বেলফোর্ট, ফ্রান্সিসকো, রাফায়েলদের থামানোর জন্য রক্ষণভাগে দেয়াল হয়ে দাঁড়ান জালাল মিয়া ও ফয়সালরা। ছোট ছোট পাসে খেলার কৌশল পরিবর্তন করে দূর থেকে শট নিতে থাকে আবাহনী। তাতেও কাজ হচ্ছিল না। বেলফোর্ট ও মামুনুলদের জোরালো শটগুলো বিপদ হয়ে ওঠতে পারেনি পুলিশের জন্য। দলের বিদেশিদের মধ্যে মাসিহ সাইঘানি কিছুটা উজ্জ্বল ছিলেন। আবাহনীর আক্রমণগুলো থামিয়ে মাঝে মাঝে পাল্টা আক্রমণ শানায় পাকির আলীর দল। কিন্তু তা গোল পাওয়ার মতো ছিল না। ম্যাচের ৮০তম মিনিটে  আবাহনীকে হতাশ করে পোস্ট। ওয়ালী ফয়সালের কর্ণারে নাসির উদ্দিন চৌধুরীর ব্যাক হেড। এরপর সাইঘানির হেড পুলিশের গোলরক্ষক নেহালের হাত থেকে পোস্টে লাগে। সামনে বল পড়লে সাইঘানি শট নিলে তা বাইরে দিয়ে চলে যায়। তবে গোল পেতে আরও মিনিট পাঁচেক অপেক্ষা করতে হয় আবাহনীকে। ম্যাচের ৮৫ মিনিটে রুবেল মিয়ার ক্রসে জীবনের পাঁ ছুয়ে বল যায় বারের খুব কাছে দাঁড়ানো বেলফোর্টের কাছে। তার নেয়া শট প্রথমে পুলিশের এক খেলোয়াড়ের গায়ে লাগে। ফিরতি বলে ডান পায়ে ঠান্ডা মাথায় গোল করেন হাইতিয়ান এ ফরোয়ার্ড (১-০)। শেষে এই ব্যবধানে জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে ঢাকা আবাহনী।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর