× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৭ মার্চ ২০২১, রবিবার

বাংলাদেশে এই মুহূর্তে টিকা পাঠাতে পারছে না ভারত

অনলাইন

কূটনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ১৬, ২০২১, শনিবার, ১২:২৫ পূর্বাহ্ন

বাংলাদেশসহ প্রতিবেশী দেশগুলোতে টিকা পাঠানোর বিষয়টি অগ্রাধিকারে থাকলেও এই মুহূর্তে কাছের বা দূরের কোন বন্ধু রাষ্ট্রের অনুরোধই রাখতে পারছে না ভারত। দিল্লির বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তবের বরাতে আন্তর্জাতিক একাধিক সংবাদ মাধ্যম শুক্রবার এ খবর দিয়েছে। শনিবার থেকে ভারতজুড়ে করোনা টিকা প্রদান কর্মসূচী শুরুর কথা। কলকাতার প্রতিষ্ঠিত দৈনিক আনন্দবাজারও প্রায় অভিন্ন তথ্য প্রচার করেছে। আর ভয়েস অব আমেরিকার রিপোর্টে দিল্লির অপারগতার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার পেয়েছে। রিপোর্টে জানানো হয়, দিল্লির মুখপাত্র সাংবাদিকদের জানান, এই মুহূর্তে ভারতের টিকাদান কর্মসূচি নিয়ে ব্যস্ততা চলছে, তার প্রস্তুতি চলছে, এখনো সব জায়গায় পুরো ডোজ পৌঁছায়নি। অথচ রাত পোহালে (শনিবার) টিকাদান শুরু হয়ে যাবে। সুতরাং এই মুহূর্তে বিদেশের অনুরোধ মানা সম্ভব হবে না।
যদিও ভারত বলেছে, ভারতে তৈরি টিকা যাতে সব দেশই পায় ভারত তার ব্যবস্থা করবে। সেক্ষেত্রেও প্রতিবেশী দেশগুলোকে যে অগ্রাধিকার দেয়া হবে, সেটাও ভারত আগে জানিয়ে দিয়েছে। তবে এখনই প্রতিবেশী কিংবা দূরদেশি কাউকেই দেয়া যাবে না। ঠিক কবে দেয়া যাবে তাও বলা যাচ্ছে না। রিপোর্টে প্রকাশ- করোনার প্রতিষেধক দেয়ার ব্যাপারে ভারতকে চাপে রাখতে ব্রাজিল সরাসরি ভারতে একটি বিমান পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলেছে। সেই বিমান মুম্বাইয়ে গিয়ে পুণের সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে কুড়ি লক্ষ ডোজ করোনা প্রতিষেধক বিশেষ কন্টেইনারে করে নিয়ে আসবে বলে ব্রাজিলের বিদেশ দপ্তর বিবৃতি দিয়েছে। এর আগে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট বলসোনারো ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে একটু তাড়াতাড়ি যাতে করোনা টিকা পাওয়া যায় তার অনুরোধ করেছিলেন। ব্রাজিল সরাসরি সিরাম ইনস্টিটিউট থেকে দুই লক্ষ ডোজ করোনা প্রতিষেধক কিনেছে। তার দামও মিটিয়ে দেয়া হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী মোদি যেমন বলেছেন, আমরা অবশ্যই মানবিকতার খাতিরে সব দেশকে এই টিকা সরবরাহ করবো। তবে আমাদের নিজেদের জায়গাটা গুছিয়ে নিয়ে তারপর।
ওদিকে আনন্দবাজারের রিপোর্টে ভারতে টিকা দান কর্মসূচীর প্রস্তুতির বিষয়টি যেমন তুলে ধরা হয়েছে, তেমনি ঘাটতির বিষয়টিও স্থান পেয়েছে। বলা হয়েছে, ভারতের আমজনতা কবে করোনার প্রতিষেধক পাবেন, তার নিশ্চয়তা নেই। এই পরিস্থিতিতে নরেন্দ্র মোদী সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে ব্রাজিল বিবৃতি দিলো, করোনার ২০ লক্ষ ডোজ় প্রতিষেধক নিয়ে যেতে ভারতে তারা বিমান পাঠাচ্ছে। সেই প্রতিষেধক নাকি ১৬ তারিখে ব্রাজিলে পৌঁছে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। যদিও ভারতের বিদেশ মন্ত্রকের কর্তারা বলছেন, এখনই অন্যান্য দেশে প্রতিষেধক পাঠানোর কোনও পরিকল্পনা সরকারের নেই।
রিপোর্ট মতে, এ কথা ঠিক, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ব্রাজিলকে প্রতিষেধক দেয়ার অঙ্গীকার করেছিলেন। ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জ়াইর বোলসোনারো সম্প্রতি মোদীকে দ্রুত প্রতিষেধক পাঠানোর আর্জি জানান। কিন্তু এবার ব্রাজিলের স্বাস্থ্যমন্ত্রী এদুয়ার্দো পাজ়ুয়েলো জানিয়েই দিয়েছেন, অক্সফোর্ড এবং অ্যাস্ট্রাজ়েনেকার ‘কোভিশিল্ড’ প্রতিষেধকের ২০ লক্ষ ডোজ় তাঁদের সরবরাহ করবে সিরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া। দক্ষিণ আফ্রিকারও দাবি, এই মাসেই তাদের প্রতিষেধক পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছে সিরাম। যদিও পুণের সংস্থাটি এ নিয়ে মুখ খোলেনি।
সিরামের সিইও আদার পুনাওয়ালা এর আগে বলেছিলেন, মার্চ নাগাদ তাঁরা বিদেশে প্রতিষেধক পাঠাতে পারবেন। বিদেশ মন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব জানান, ভারত কোন দেশকে কবে প্রতিষেধক পাঠাতে পারবে, তা এত তাড়াতাড়ি বলা সম্ভব নয়। ব্রাজিলের বিমান পাঠানোর প্রসঙ্গে বিদেশ মন্ত্রকের একটি সূত্র জানায়, ব্রাজিল বিমান পাঠালেও দিল্লি এখনই (প্রতিষেধক) দিচ্ছে না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Tapan Kumar Biswas
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৭:২৪

আমাদের উচিত ছিল একাধিক দেশ থেকে টিকা আনার পরিকল্পনা।এটা করলে অবশ্যই কোথাও থেকে পেয়ে যেতাম।এখন দরকার জরুরি ভাবে একাধিক দেশ থেকে আনার জন্য যোগাযোগ করা।

Tapan
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৭:২২

Very sad news

MOHAMMAD REZAUL HASA
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৪:৫১

India and its present government has no record of trust. All the countries runs on own interest. But India in spite of its repeated promise, it now ignores everything. What a pity for Bangladesh and its responsible ministries?

শাকাওয়াত
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১০:১৮

মহান রাব্বুল আলামিনের অশেষ রহমতে আমাদের দেশ অনেক ভালো অবস্থায় আছে।গতকয়েক দিন শনাক্তের হার 5% এর কম বেশি এর মাঝেই আছে। মানুষ এখন অনেক সচেতন। তাই পরামর্শ হলো প্রচুর টাকা খরচ করে vaccine কেনার প্রয়োজন নাই। ধৈর্য্য ধরুন। আল্লাহ আমাদের হেফাজত করবে।

Biswajit
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৯:১৮

Anisul hoque is 100%right

Md.Abdul Matin
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৬:৪৮

We may abandon Indian vaccine. At the moment, we can sustain a few more days without vaccine. Because our condition is far better than India. Anyway, it is a universal truth that Don't keep all eggs in one basket. Why BD govt is so unmatured that they contacted only one supplier?

Md shafiul Islam
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৫:২২

আমাদের উচিত ছিল একাধিক দেশ থেকে টিকা আনার পরিকল্পনা।এটা করলে অবশ্যই কোথাও থেকে পেয়ে যেতাম।এখন দরকার জরুরি ভাবে একাধিক দেশ থেকে আনার জন্য যোগাযোগ করা।

Ahmed noor
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ২:৫৯

জীবন রক্ষাকারী টীকা নিয়ে ভারত এত টালবাহানা কেন করতেছে বুঝলাম না।

No name
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১২:৩৯

India not only unfaithful friends, They are Masters not friends?

Md. Rabiul Islam
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১২:৩৮

Dear Mr. Anisul Islam thanks for your good opinion. I am agree with you. We have to come back from the dependency of India or China and improving practice of science and technology. I think India has no offence because they have to see their people's health first. So we have to committed that we will stand on own legs.

Tawfik Sattar
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১২:০৫

India is most communal and unfaithful neighbour of ours. That is why most of the Bangladeshies hate India.

TAWHID MOLLAH
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১১:১২

ভারত আমাদের সু-সময়ের বন্ধু, অসময়ের বন্ধু হিসাবে তার কোন প্রমান তারা দেয় নি কোন দিন আর দিবেও না।

হাবিব
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১১:০৮

মোদিকে বিশ্বাস করা মননীয় প্রধান মন্ত্রীর ভুল হয়েছে।

আনিস উল হক
১৫ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৮:৫৫

খুবই দুঃখজনক বিষয় হোল আমরা নিজেরা বিজ্ঞান প্রযুক্তি কে সন্মান করব না বিজ্ঞান চর্চা করব না সব বিষয়ে ধর্মের সংযুক্তি ঘটিয়ে দৈব নির্ভরতার প্রচার চালাব আর করোনার মত দুর্যোগে ভারত চীনের দ্বারস্হ হব।ধর্মকে নিজ বিশ্বাসের মাঝে সীমায়িত করে রাষ্টিয়ভাবে বিজ্ঞান চর্চা কে কেন আমরা গুরুত্ব দিচ্ছি না? দেশজুড়ে চাকচিক্যপূর্ণ ধর্মপ্রতিষ্ঠান তৈরী না করে সে অর্থ প্রাথমিক শিক্ষালয়গুলোতে বিজ্ঞান চর্চাকে জনপ্রিয় করে তুলছি না কেন ? সহজ একটি প্রশ্ন - আমাদের দেশের সব শ্রেণির মানুষের এখন চীনের প্রতি আস্হা নির্ভরতা বেড়ে যাচ্ছে;গত শতকের মধ্যভাগে চীনা বিপ্লবের পর চীন যদি ধর্মীয় বিষয়গুলোকে সীমায়িত না করে বিজ্ঞান চর্চায় বেশি গুরুত্ব না দিত তা হলে চীন কি আজকের মত বিশ্ব মহাশক্তি হতে পারত?চীনে কি এখনো রাষ্ট্রিয়ভাবে বিশ্বাস নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্হাকে গুরুত্ব দেয়া হয়?তাই আমাদেরও সময় এসেছে বিশ্বাস নির্ভর শিক্ষা দর্শন থেকে বেড়িয়ে এসে বিজ্ঞান নির্ভর শিক্ষা কে রাষ্টিয়ভাবে পৃষ্ঠপোষকতা করার।এক্ষেত্রে চীনা দর্শনই আমাদের অনুসরণীয়।

Khaled
১৫ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৮:০১

বেইমানী করা আর কথার বরখেলাপ করা ভারতের জন্মগত অভ্যাস এই বিষয়টা এই দেশের সবাই বুঝে বুঝে না শুধু ভারতের দালালেরা..

Nurun Nabi
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৭:১৫

Is India Trustworthy ?

Kazi
১৫ জানুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৩:১১

দেবে না । ধোকাবাজ বিজেপি সরকার । যখন চায়না ট্রায়াল দিতে চেয়েছিল সচিব পাঠিয়ে তারা টিকা দিবে বলে তা বন্ধ করল । Bangladesh government shouldn't believe their promise. If they come with proposal of promise it should be written with detailed condition. Penalty for violation of promise. This promise is associated with life and death of public

কুদ্দুস।
১৬ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১:২৬

IS BANGLADESH PART OF INDIA ? ? IF YES, WE DO NOT SAY ANYTHING. IF NOT, THEN WHY THE GOVERNMENT NOT ARRANGE CORONA VACCINE FROM OTHERS SOURCE ?

অন্যান্য খবর