× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শুক্রবার

ঢাকায় ওয়ার্কশপে বিস্ফোরণ, দগ্ধ ৭

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
১৭ জানুয়ারি ২০২১, রবিবার

রাজধানীর তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল থানার গুলশান লিংক রোডে একটি গাড়ির ওয়ার্কশপে কাজ করার সময় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে। এতে কর্মচারীসহ সাতজন দগ্ধ হয়েছেন। গতকাল বেলা আড়াইটার দিকে ম্যাপেললিফ ইন্টারন্যাশনাল ওয়ার্কশপে এ দুর্ঘটনা ঘটে। পরে বিকাল তিনটার দিকে দগ্ধদের শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আনা হয়। বর্তমানে তাদেরকে সেখানেই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। দগ্ধরা হলেন- ওয়ার্কশপের জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার সাকিবুল ইসলাম শিমুল (২৫), কর্মচারী জুয়েল (৩২), রবিউল ইসলাম (২৪), সুনাম (২০), প্রাইভেটকার চালক আলী আকবর (৫০), হায়দার আলী (২২) ও রুবেল হাওলাদার (২৭)।
আহতদের সহকর্মী শেখ আশরাফ জানান, তারা একই কোম্পানির গাড়ি চালান। গাড়ি মেরামতের কাজে তারা ওয়ার্কশপে ছিলেন। একই সময় পাশের আরেকটি প্রাইভেটকারে কাজ করছিল কর্মচারীরা।
তখন সেই প্রাইভেটকারের গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে আগুন ধরে যায়। এতেই তারা দগ্ধ হন। ম্যাপেললিফ ইন্টারন্যাশনাল ওয়ার্কশপের সার্ভিসিংয়ের ম্যানেজার হাবিবুর রহমান জানান, দুপুরে একটি প্রাইভেটকারে কাজ করছিল কর্মচারীরা। আশপাশে আরও কিছু গাড়ির কাজ চলছিল। তখন একটি প্রাইভেটকারের ভেতর থেকে পেপার ও পলিথিনের কাগজে আগুন লেগে যায়। মুহূর্তে সে আগুন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে গাড়িটির আশেপাশে থাকা কর্মচারী অন্যান্য ড্রাইভাররা দগ্ধ হয়। সঙ্গে সঙ্গে তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।
শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটের কর্তব্যরত চিকিৎসক জানান, আলী আকবরের ২০ শতাংশ, রবিউলের ১৪ শতাংশ, জুয়েলের ১৮ শতাংশ ও রুবেলের ১৪ শতাংশ দগ্ধ হয়েছেন। তাদের ভর্তি রাখা হয়েছে। বাকি তিনজনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এদিকে ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার মো. রাসেল শিকদার জানান, আগুন লাগার খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দু’টি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়। তবে পৌঁছানোর আগে আগুন নিভে গেছে। শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের আবাসিক সার্জন পার্থ শংকর পাল জানান, এখানে সর্বমোট ১২ জন এসেছিল। তাদের মধ্যে চারজনকে ভর্তি করা হয়েছে। দু’জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক আর দু’জন শঙ্কামুক্ত।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর