× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, রবিবার

বৃটেনে কোভিড মহামারী শুরুর পর সর্বোচ্চ ১৬১০ জনের মৃত্যু

অনলাইন

সাঈদ চৌধুরী
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ২০, ২০২১, বুধবার, ১১:০১ পূর্বাহ্ন

বৃটেনে কোভিড মহামারী শুরুর পর গতকাল ছিল সবচেয়ে ভয়াবহতম দিন। দেশটি সংক্রমক কেন্ট স্ট্রেনের সাথে লড়াই করে চলেছে। ২০২১ সালের প্রধম মাসে তৃতীয় বারের মতো বৃটেনে রেকর্ড সংখ্যক দৈনিক প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ১৬১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। যদিও সংক্রমণ হ্রাস পেয়েছে ২৭ শতাংশ।

গতকালের মারাত্মক মৃত্যুর সংখ্যা ছিল আগের দিনের ঘোষিত ১২৪৩ জনের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি এবং দুই সপ্তাহ আগের চেয়ে প্রায় দ্বিগুণ। এছাড়াও গতকাল মঙ্গলবার নতুন সংক্রমণ হয়েছে ৩৩ হাজার ৩৫৫ জন। আগের দিন ছিল ৪৫ হাজার ৫৩৩। এর মানে সংক্রমণ কমেছে ৪৫ শতাংশ।
তৃতীয় লকডাউনের ফলে সংক্রমণের হার হ্রাস পেতে থাকায় রোগী এক চতুর্থাংশে হ্রাস পেয়েছে।

গতকালের পূর্বে মহামারী সবচেয়ে অন্ধকার দিনটি ছিল ১৩ জানুয়ারী, যখন ২৪ ঘণ্টা সময়কালে ১৫৬৪ জন মারা যান। কোভিডের সাথে ধরা পড়া এবং মারাত্মক অসুস্থ হয়ে পড়ার মধ্যে যে সময় লাগে তার কারণে সংক্রমণ থেকে কয়েক সপ্তাহ পিছিয়ে যায়। যার অর্থ ৪ঠা জানুয়ারির শাটডাউনের প্রভাব মৃত্যুর পরিসংখ্যানে পরবর্তী সপ্তাহ পর্যন্ত অনুভূত হয় না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অবশেষে সংক্রমণ নিঃশেষের আগে বৃটেনে মৃত্যুর ‘রেকর্ড ব্রেকিং’ ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন জানুয়ারীর শেষের দিকে কেয়ার হোমগুলিতে কোভিডের টিকা দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ইতিমধ্যে অর্ধেকের বেশি বাসিন্দা প্রথম ডোজ পেয়েছেন। গতকাল প্রায় ২০৪,০০০ জনকে প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে। রোববার ২২৫,০০০, শনিবার ২৭৭,০০০ এবং শুক্রবারে সর্বোচ্চ ৩২৪,০০০ জনকে তাদের প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছিল।

বৃটেনে ৪.২৬ মিলিয়নেরও বেশি মানুষ অর্থাৎ প্রতি ১৬ জনের মধ্যে ১জন এনএইচএস প্রোগ্রামের মাধ্যমে কোভিড ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ পেয়েছেন। এটি বিশ্বের অন্যতম সেরা আচ্ছাদিত দেশ হিসেবে পরিণত করে।

ডেপুটি চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. জেনি হ্যারি সংসদ সদস্যদের বলেছেন, বৃটেনে সর্বশেষ শাটডাউন থেকে বেরিয়ে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। নতুন পরিসংখ্যান মোতাবেক পরিবারের আটজনের মধ্যে একজন ডিসেম্বরের মধ্যেই করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

নিকোলা স্টারজান ঘোষণা করেছেন, স্কটল্যান্ডে লকডাউন ফেব্রুয়ারির মাঝামাঝি পর্যন্ত বাড়ানো হবে যদিও লক্ষণগুলি কমতে শুরু করেছে। এই মাসের শেষের দিক থেকে অবসন্ন হওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে স্কটল্যান্ডের প্রথমমন্ত্রী বলেছেন, তিনি 'সতর্ক' হচ্ছেন এবং আরও প্রমাণের প্রয়োজন যে এই প্রাদুর্ভাবটি 'নিম্নমুখী' রয়েছে।

এদিকে বৃটিশ হেল্থ সেক্রেটারি ম্যাট হ্যানকক সোমবার ডাউনিং স্ট্রিটে সংবাদ সম্মেলন শেষে কোভিডে আক্রান্ত ব্যক্তির সংস্পর্শে যাবার কারণে আইসোলশনে চলে গেছেন। এনএইচএসের অ্যাপের মাধ্যমে তাকে সতর্ক করা হয়েছে। এ নিয়ে একটি ভিডিও বার্তায় বলেছেন, আমি বাড়িতেই আইসোলেশনে থাকব। আগামী রোববারের আগে বাইরে বের হতে পারব না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর