× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার

ইতালি যাওয়ার ফাঁদে সর্বস্বান্ত সোহানা

অনলাইন

দশমিনা (পটুয়াখালী) সংবাদদাতা
(১ মাস আগে) জানুয়ারি ২০, ২০২১, বুধবার, ৭:৪০ অপরাহ্ন
প্রতীকী ছবি

ইতালি যাওয়ার ফাঁদে পরে সর্বস্বান্ত হয়েছেন সোহানা বেগম (২১)। তিনি দশমিনা উপজেলার চরহোসনাবাদ এলাকার মো. মজিবুর রহমানের মেয়ে ও তেজগাঁও মহিলা কলেজের ডিগ্রি শেষ বর্ষের ছাত্রী। সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, লেখাপড়ার সুবাদে পরিচয় হয় ঢাকার যাত্রাবাড়ী এলাকার জাবেদ আলীর মেয়ে মোসা. জান্নাতুল ফেরদাউস (২২) এর সাথে। পরিচয়ের সূত্রধরে দুজনের মাঝে বন্ধুত্বর সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে জান্নাতুল ফেরদাউস সোহানাকে ইতালি যাওয়ার স্বপ্ন দেখিয়ে আট লাখ টাকা দাবি করেন। পরে পাঁচ লাখ টাকায় সোহানা বেগমকে ইতালি পাঠানোর জন্য সমঝোতা হয়। সোহানার হতদরিদ্র পিতা মজিবুর রহমান জমি বিক্রি ও আত্মীয় স্বজনের কাছে ধারদেনা করে ২০১৯ সালের ১৫ই নভেম্বর তিন লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা দশমিনার বাড়িতে বসে আত্মীয় স্বজনের উপস্থিতিতে জান্নাতুল ফেরদাউসকে প্রদান করেন। পরে জান্নাতুল ফেরদাউস সোহানার সাথে টালবাহানা শুরু করে।
একপর্যায় জান্নাতুল ফেরদাউস টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করে বিভিন্নভাবে হুমকি ধামকি দিতে থাকেন সোহানাকে। এ ঘটনায় সোহানা বেগম ২০২০ সালের ৮ই নভেম্বর দশমিনা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করলে আদালতের বিচারক মো. আশিকুর রহমান জান্নাতুল ফেরদাউসের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। গত ৯ই জানুয়ারি জান্নাতুল ফেরদাউসকে গ্রেপ্তার করে যাত্রাবাড়ি থানা পুলিশ। ১৪ জানুয়ারি ওই মামলায় একই আদালত থেকে জামিন পান জান্নাতুল ফেরদাউস। সোহানা বেগম জানান, জামিন পাওয়ার পর মামলা তুলে নেয়ার জন্য অব্যাহতভাবে হুমকি দিয়ে যাচ্ছেন জান্নাতুল ফেরদাউস ও তার চক্রের সদস্যরা। এঘটনায় সোহানা দশমিনা থানায় বুধবার একটি সাধারণ ডায়রি করেছেন। তিনি আরও জানান, বিদেশে মানুষ পাঠানোর নাম করে শত শত মানুষের থেকে টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন জান্নাতুল ও তার চক্রের সদস্যরা। এঘটনায় অভিযুক্ত জান্নাতুল ফেরদাউসের মোবাইল নাম্বারে  একাধিকবার ফোন করলে বন্ধ পাওয়া গেছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মাসুদ রানা
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৭:২৮

ইউরোপ যে পারলে কাজের কোনো অভাব নাই। মেয়েদের ক্ষেত্রে নয়। এটা অনেকের ক্ষেত্রে হয়ে থাকে।

MD Shohag ahmed
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১১:৪৩

ওনার এই ধরনের কাজ টা করা সঠিক হয় নাই। আর বিষয় টা অনেক খারাপ।

Jashim Uddin
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১:৪৩

কি কাজ নিয়ে আপনি ইটালি যাচ্ছেন তাতো বলেননি।

লিমা
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:২৯

অল্পতেই বেচে গেছ।

Saiful islam
২০ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ১০:৩৮

মি:হোসাইন.... এটা বাংলাদেশ নয়,আপনি কিভাবে জানেন ইতালি গিয়ে মেয়েরা সবকিছু বিসর্জন দেয়। নিজের মন মানসিকতা ঠিক করেন।

Hossain
২০ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৮:৫২

সুনির্দিষ্ট কোন চাকরি ছাড়া ইতালি গিয়ে কি করবে মেয়েটি। মেয়টির ভাগ্য অনেক ভাল সে ইতালি যেতে পারে নি। মেয়েটি লেখা পড়া করে নিউজ পেপার দেখে না। বহু মেয়ে এভাবে গিয়ে নিজের সব কিছু বির্সজন দিয়েছে। লোভে পাপ আর পাপে মৃত্যু।

শামীম
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৯:২১

এটা বোকামির ফল। এরকম বোকামি করে মামলা করে কান্না কাটি করে জীবন টাকে জটিল না করে সচেতন ও সাবধান হওয়াটাই বেশি বুদ্ধিমানের কাজ।

MD ARHAM BAKTIAR
২০ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার, ৯:৩৮

যে দেশে মসজিদ থেকে জুতা চুরি করে নিয়ে যায় সে দেশে এতো বিশ্বাস করা আর গাঁধার কাছ থেকে দুধ আশা করা সমান।

অন্যান্য খবর