× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার

মুজিববর্ষে নতুন সাজে রংপুর জেলা পরিষদ

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর থেকে
২১ জানুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার

 বৃটিশ আমলের নির্মিত শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী রংপুর জেলা পরিষদ ভবন। মুজিববর্ষকে ঘিরে এ ভবনটির সামনে নির্মিত হয়েছে বঙ্গবন্ধু মুর‌্যাল। রংপুর মহিলা লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি দেশের একমাত্র জেলা পরিষদ মহিলা চেয়ারম্যান এ্যাড. সাফিয়া খানম তার পরিষদের সদস্য ও জেলা পরিষদ নির্বাহী কর্মকর্তা নাজমুল হুদার সহযোগিতায় এটি নির্মাণের পরিকল্পনা করেন। মার্বেল পাথরের এ ম্যুরালটি শৈল্পিক কারুকার্যের রূপ দেন রংপুরের ভাস্কর অনিক রেজা। জেলা পরিষদকে দৃষ্টিনন্দন করতে প্রবেশদ্বারের দু’দিকের ঝুঁকিপূর্ণ কয়েকটি গাছ কেটে অত্যাধুনিক রাস্তা ও গেট নির্মাণ করা হয়েছে। যা সহজেই পথচারী ও দর্শনার্থীদের নয়ন জুড়িয়ে যায়। জানা যায়, ১৮৮৭ সালে ৪ একর জমির উপর জমিদারবাড়ি আদলে নির্মাণ করে রংপুর জেলা বোর্ড প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে এটি জেলা পরিষদ কার্যালয় স্থাপিত হয় ১৯১৬ সালে।
জেলা পরিষদকে ঘিরে চারপাশে বিভিন্ন গাছগাছালি লাগিয়ে এটিকে অভয়ারণ্য পরিণত করে পাখিদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল করা হয়। শতবর্ষের ঐতিহ্যবাহী রংপুর কারমাইকেল কলেজের প্রথম শিক্ষা কার্যক্রম এ ভবন থেকেই শুরু হয়। জেলা পরিষদের পিছনে বিদ্যুৎ আদালত, সামনে রংপুরের ব্যস্ততম সড়ক  স্টেশন রোড। একদিকে যেমন এটি শহরের শোভাবর্ধণ করেছে, অপরদিকে দূর-দূরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীদের বিমোহিত করছে। রংপুর জেলা পরিষদ ইতোপূর্বে সরকার মনোনীত প্রশাসক থাকলেও বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার নির্বাচনী প্রক্রিয়ার মাধ্যমে জনপ্রতিনিধি নির্বাচন করে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চালু করেন। ফলে এসাফিয়া খানম প্রধানমন্ত্রীর মনোনয়ন পেয়ে নির্বাচন করে ২০১৭ সালের ২২শে জানুয়ারি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। শুরু হয় তার জেলা পরিষদের উন্নয়ন যুদ্ধ। জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পরিষদের মালিকানাধীন সদরের লাহিড়ীর হাট এলাকার ২ একর ৮৮ শতক, পীরগঞ্জের ৬০ শতক, বদরগঞ্জের ৪৫ শতক দখলকৃত জমি উদ্ধার করেন। জেলা পরিষদের মূল ভবন অডিটরিয়াম সচিবের কক্ষ, বঙ্গবন্ধু ম্যুরালে পাদদেশে নির্মাণের মাধ্যমে পুরো ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য্য বৃদ্ধি, আয়তনে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম ৩ একর জমির ওপর নগরীর প্রাণকেন্দ্র স্টেশন রোডস্থ বেতপট্টি এলাকায় ১৮ তলা বিশিষ্ট আধুনিক বিলাসবহুল বিপণী বিতান, আবাসিক ও বাণিজ্যিক ভবন  জেলা পরিষদ সিটি সেন্টার নির্মাণের ৬ তলা পর্যন্ত ১৫৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ কাজ, মিঠাপুকুর ডাকবাংলো সম্মুখে বিশাল গেট নির্মাণ, পীরগঞ্জের ১ হাজার আসন বিশিষ্ট অত্যাধুনিক মাল্টিপারপাস মিলনায়তন হল নির্মাণ অব্যাহত রয়েছে। এছাড়া বিভাগীয় নগরীতে ডাকবাংলো চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় জরাজীর্ণ ডাকবাংলো পরিত্যক্ত ঘোষণা করে মন্ত্রণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। দৃষ্টিনন্দন ক্যাটাগরি ৮ তলা ভবনের নকশাযুক্ত ডাকবাংলো নির্মিত হলে জেলা ও অন্যান্য স্থান হতে আগত দর্শনার্থীরা আবাসিক সুবিধা পাবে। মুজিববর্ষে রংপুর জেলায় গৃহহীন ও ভূমিহীন ২৫ জনকে নতুন করে ঘর দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে বলে  জেলা পরিষদ সূত্র জানায়।
সাফিয়া খানম মানবজমিনকে বলেন, আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছুই নেই। আমি সর্বোচ্চ পেয়েছি।  বঙ্গকন্যা দেশনেত্রী শেখ হাসিনা যে বিশ্বাস নিয়ে সারা বাংলাদেশের মধ্যে একমাত্র নারী প্রার্থী হিসেবে আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। আমি নির্বাচিত হয়ে সকলের সহযোগিতা নিয়ে অন্যায়ের সাথে আপস না করে সততা ও নিষ্ঠার সাথে আমার দায়িত্ব পালনসহ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন কার্যক্রমে সহযাত্রী হয়ে মর্যাদা রাখার চেষ্টা করেছি মাত্র।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর