× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, রবিবার

মৌলভীবাজারে প্রতিবন্ধী কিশোরী ও অন্তঃসত্ত্বা নারী গণধর্ষণের শিকার

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, মৌলভীবাজার থেকে
২৩ জানুয়ারি ২০২১, শনিবার

মৌলভীবাজারে পৃথক ঘটনায় এক প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণ ও অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ধর্ষিতা দু’জনকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জানা যায় কমলগঞ্জ উপজেলার রহিমপুর ইউনিয়নের জসমতপুর গ্রামের ১৩ বছরের প্রতিবন্ধী কিশোরীকে পাশের বাড়ির এক যুবক ঘরে ঢুকে ধর্ষণ করে। ঘটনাটি ঘটে গত ১৬ই জানুয়ারি দুপুরে। এ সময় শিশুটির মা-বাবা ঘরে ছিলেন না। এ ঘটনার পর স্থানীয়রা চিকিৎসা ও সমঝোতার আশ্বাস দিয়ে কাউকে কোনোকিছু না বলার জন্য জানায়। পরে প্রতিবন্ধী ওই কিশোরীর শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ৪ দিন পর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এবং ধর্ষণের ঘটনাও জানাজানি হয়।
১৩ বছরের ওই কিশোরীর মা কান্নাজড়িত কণ্ঠে বলেন, ১৩ বছর ধরে অনেক কষ্ট করে মানুষের বাড়িতে কাজ করে বাচ্চাদের লালন-পালন করছি। কিন্তু কেন যে আমার প্রতিবন্ধী মেয়ের সঙ্গে এমন করলো তার দৃষ্টান্তমূলক বিচার চাই। তিনি বলেন, সরকার থেকে আমার মেয়েটি প্রতিবন্ধী ভাতাও পাচ্ছে। অপরদিকে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার গুজারাই গ্রামের মছব্বির মিয়ার বস্তিতে ২১শে জানুয়ারি মধ্যরাতে দরজা ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে ৩ মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে ৪ জন গণধর্ষণ করে। এ সময় তার স্বামী সিএনজি চালক জুবেদ মিয়া ঘরে ছিলেন না। অন্তঃসত্ত্বা ওই গৃহবধূ বলেন, রাত ১টার দিকে প্রথমে ঘরে এসে ডাকাডাকি করে, দরজা খুলে না দেয়াতে চলে যায়। পরে রাত ৩ ঘটিকার সময় দরজা ভেঙে ঘরে ঢুকে পালাক্রমে তাকে ধর্ষণ করে। তিনি তিন মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন বলেও জানান। তিনি দোষীদের প্রকৃত শাস্তির দাবি জানান।
ধর্ষিতার স্বামী বলেন, তিনি সিএনজি চালান। তার দুই সংসার রয়েছে। এটি তার দ্বিতীয় সংসার। ঘটনার দিনে রাতে তিনি কলোনীর বাসায় না ফিরে নিজ বাড়িতে ছিলেন। রাত ৪টার দিকে ফোন পেয়ে বাসায় এসে লোকের কাছ থেকে ও তার স্ত্রীর কাছ থেকে এসব শুনেছেন। তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে পাশবিক নির্যাতনকারীদের বিচার দাবি করেন। মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যা সদর হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়ক ডা. পার্থ সারথী দত্ত কানুনগো গণমাধ্যমকর্মীদের জানান, দু’জনই সেক্সুয়াল এসল্ট নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। তাদের একটি মেডিকেল টিম চিকিৎসা দিচ্ছে।
মৌলভীবাজার মডেল থানার ওসি মো. ইয়াছিনুল হক ও কমলগঞ্জ থানার ওসি আরিফুর রহমান গতকাল বিকালে মুঠোফোনে মানবজমিনকে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন এখনো কেউ এ বিষয়ে অভিযোগ  করেননি। তার পরও বিষয়টি আমরা আমাদের মতো করে খতিয়ে দেখছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর