× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বৃহস্পতিবার
কোর্টচাঁদপুর

টেনশনে আওয়ামী লীগ আতঙ্কে বিএনপি

বাংলারজমিন

আমিনুল ইসলাম লিটন, ঝিনাইদহ থেকে
২৭ জানুয়ারি ২০২১, বুধবার

ঝিনাইদহের কোটচাঁদপুর পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে বিএনপি’র একক প্রার্থী নিয়ে বেশ ফুরফুরে মেজাজেই রয়েছে কিন্তু সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভোট হবে কি না সেজন্য আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটছে তাদের। অন্যদিকে অওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীসহ আরো দু’জন বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে টেনশনে রয়েছে সরকারি দল। আগামী ৩০শে জানুয়ারি দেশের প্রচীনতম এ পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পৌর এলাকার পাড়ামহল্লার ভোটাররা প্রচার প্রচারণায় সরগরম রয়েছে। দেশের পৌরসভাগুলোর মধ্যে কোটচাঁদপুর পৌরসভা একটি প্রাচীন পৌরসভা। ১৮৮৪ সালে কোটচাঁদপুর পৌরসভা স্থাপিত হয়। এটি একটি পুরনো শহর। এককালে এই শহরটি চিনি শিল্প হিসাবে পরিচিত ছিল।
কোটচাঁদপুর ও আশেপাশের এলাকায় প্রায় ৫শ’ ছোটবড় চিনি কারখানা ছিল। খেজুরে গুড় থেকে দেশীয় পদ্ধতিতে এ চিনি তৈরি করা হতো। যশোর ডিস্ট্রিক্ট গেজেটিয়ারের বর্র্ণিত তথ্যে থেকে এ সব তথ্য জানা যায়। এই চিনি কলকাতা বন্দর দিয়ে বিলেতে রপ্তানি হতো। কোটচাঁদপুরে এক সময় সাহেবদের বসবাস ছিল। তাদের চেষ্টাতেই ওই সময়  কোটচাঁদপুর পৌরসভা স্থাপিত হয়। জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, এবার পৌর নির্বাচনে মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শাহজাহান আলী, বিএনপি মনোনীত সাবেক মেয়র এসকেএম সালাউদ্দিন বুলবুল সিডল, স্বতন্ত্র সাবেক মেয়র মো. জাহিদুল ইসলাম ও সহিদুজ্জামান সেলিম। সহিদুজ্জামান সেলিম কোটচাঁদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম  আহ্বায়ক ও জাহিদুল ইসলাম আওয়ামী লীগ কর্মী। বিদ্রোহী হওয়ায় দল থেকে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে। জাহিদুল ইসলাম বলেন, তিনি দলের কাছে মেয়র পদে মনোনয়ন চেয়েছিলেন কিন্তু দল তাকে মনোনয়ন দেয়নি। তাই স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছি। তার প্রচার- প্রচরণায় সরকার দলীয় প্রার্থী ও নেতা কর্মীদের বিরুদ্ধে বাধা সৃষ্টির অভিযোগ করেন। জাহিদুল ইসলাম অভিযোগ করেন, তার সমর্থকরা মাঠে ভোট চাইতে গেলে সরকারি দলের লোকজন মারধর করছে। বিএনপি প্রার্থী সালাউদ্দিন বুলবুল সিডলও একই ধরনের অভিযোগ করেন। সিডল বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ধানের শীষ অবশ্যই বিজয়ী হবে। কিন্তু এ সরকার সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনকে ভয় পায়।
ইতিমধ্যেই পৌর এলাকায় সরকারি দলের সন্ত্রাসীদের লেলিয়ে দিয়েছেন। আমার দলীয় নেতাকর্মী ও সমর্থকরা মাঠে ভোট চাইতে গেলে তাদের বিভিন্ন মামলা দিয়ে এলাকা ছাড়া করার ভয় দেখাচ্ছে ও প্রাণ নাসের হুমকি দিচ্ছে। তাদের বিভিন্ন হুমকি- ধমকির ভয়ে আমার কর্মী-সমর্থকরা মানসিকভাবে ভেঙে পড়ছে।
এতো কিছুর পরও যদি সুষ্ঠু নির্বাচন হয় এবং ভোটারা কেন্দ্রে ভোট দিতে আসতে পারে তাহলে ধানের শীষ কয়েক হাজার ভোট বেশি পেয়ে বিজয়ী হবে। তবে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. শাহজাহান আলী অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষার জন্য মানুষ নৌকায় ভোট দেবে। এ পৌরসভায় মেয়র পদে ত্রিমুখী প্রতিদ্বন্দ্বিতার সম্ভাবনা থাকলেও ভোটারদের মধ্যে নানা সন্দেহ ও আতঙ্ক কাজ করছে। তথ্যমতে জামায়াতের এখানে শক্ত অবস্থান আছে। তাদের ভোটের উপরই জয়- পরাজয় নির্ভর করছে। এ পৌরসভায় সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১২ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩৩ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। মোট ভোটার সংখ্যা ২৭ হাজার ৪৯৩ জন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর