× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২২ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার
কলকাতা কথকতা

১১ মাস পর পশ্চিমবঙ্গে আবার খুললো স্কুলের দরজা

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা
(২ মাস আগে) ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২১, শুক্রবার, ৮:৫৭ অপরাহ্ন

কোভিডের কারণে দীর্ঘ  ১১ মাস স্কুলের ঝাঁপ বন্ধ থাকার পর শুক্রবার আবার তা  খুললো।  এদিন একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির ক্লাস শুরু  হলো স্বাস্থ্যবিধি  মেনেই।  ছাত্র-  ছাত্রীদের উৎসাহ ছিল চোখে পড়ার মতো।  অনেকেই জানালো যে, ঘরে বসে অনলাইন ক্লাস করতে করতে তারা ক্লান্ত।  ক্লাসে এসে তাদের ভালো লাগছে।  এদিন ছিল বামদের ডাকা বনধ। শিক্ষামন্ত্রী ডঃ পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন, স্কুল খোলা থাকবে।  সরকারি ও বেসরকারি  শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে উপস্থিতির হার ছিল প্রায় ১০০ শতাংশ।  প্রাথমিকভাবে উঁচু ক্লাসের পঠন-পাঠন শুরু হলেও এরপর সব ক্লাসের জন্যই স্কুলের দরজা খোলা হবে।   তবে,  বিভিন্ন স্কুল ঘুরে  দেখা গেলো,  ক্লাসরুমগুলোর চেহারায় আমূল পরিবর্তন এসেছে।  টানা বেঞ্চের বদলে সিঙ্গল ডেস্ক এর ব্যবস্থা হয়েছে।  অনেক জায়গায় বসেছে স্যানিটাইজেশন ওয়াল।  ছাত্রছাত্রীদের  করোনা হলে তার দায়  স্কুলের নয়, এই মর্মে মুচলেকাও দিতে হচ্ছে  অভিভাবকদেরকে।  তাতেও তাদের আপত্তি নেই।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আবুল কাসেম
১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ৯:২৯

আমেরিকা, ইউরোপের কয়েকটি দেশে এবং পার্শ্ববর্তী ভারতে আইলার মতো যে ক্ষতচিহ্ন রেখে যাচ্ছে করোনা মহামারি আল্লাহতায়ালার অশেষ মেহেরবানিতে বাংলাদেশে তার শত ভাগের একভাগও হয়নি। তবুও আমাদের সাবধানী পদক্ষেপ প্রশংসনীয়। বর্তমানে টিকা কার্যক্রম চলছে পুরোদমে। করোনাও অনেকটা বিলুপ্তির পথে। তাই শিক্ষার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বিদ্যালয় খোলার চিন্তা ভাবনা করার সময় হয়েছে। ভার্সিটি থেকে প্রথমে শুরু করতে হবে। তারপর কলেজ। তারপর মাধ্যমিক স্কুল। সবশেষে প্রাইমারি স্কুল খুলে দেওয়া দরকার। শিক্ষার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে হবে। ঘর বন্দী থাকতে থাকতে শিক্ষার্থীদের দম বন্ধ হয়ে গেছে। অনেক কিশোর কিশোরী অপরাধের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ছে। শিক্ষাঙ্গনগুলো শিক্ষার্থীদের পদচারণায় আবার মুখরিত হোক। এগিয়ে যাক বাংলাদেশ।

অন্যান্য খবর