× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৪ মার্চ ২০২১, বৃহস্পতিবার

বড়াইগ্রামে ভাঙা ঘরের সেই বিধবা পেলো নতুন ঘর

বাংলারজমিন

বড়াইগ্রাম (নাটোর) প্রতিনিধি
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার

আম্ফান ঝড়ে তছনছ হয়ে যাওয়া ঘরটিই ছিল বিধবা লক্ষ্মী রানীর একমাত্র আশ্রয়স্থল। তীব্র শীতে বাবা হারা ৮ বছর বয়সী ছেলেকে নিয়ে জড়োসড়ো জীবন কাটছিলো তার। নাটোরের বড়াইগ্রামের বনপাড়া পৌরসভার কালিকাপুর আদিবাসী পাড়ার মৃত অনিল সরকারের স্ত্রী জয় লক্ষ্মী রানীর এই কষ্টের চিত্র কয়েকটি প্রিন্ট ও অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত হলে তা নজরে আসে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) জাহাঙ্গীর আলম ও বনপাড়া পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেনসহ বিভিন্ন মহলের। পরের দিনই ইউএনও ও মেয়র সরজমিন ওই বিধবার বিধ্বস্ত জীর্ণ গৃহে এসে খোঁজখবর নেন এবং তাৎক্ষণিকভাবে শীত বস্ত্র ও চাল, তেল, ডালসহ বিভিন্ন ধরনের খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেন। এ সময় বিধবার জন্য অতি দ্রুত নতুন ঘর নির্মাণের ব্যবস্থা করবেন বলে আশ্বাস প্রদান করেন ইউএনও এবং অবশেষে গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে বিধবার হাতে তুলে দেন নতুন ঘরের চাবি। বিধবা জয় লক্ষ্মী রানী বলেন, গত ২০শে মে ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতে তার একমাত্র বসতঘরটি লণ্ডভণ্ড হয়ে যায়। এই ঝড়ের মাস খানেক আগে দীর্ঘদিনের শ্বাসকষ্টজনিত অসুস্থতায় মৃত্যু হয় তার স্বামীর। একমাত্র ছেলে অনিমেষ সরকারকে নিয়ে স্থানীয়দের সহায়তায় ও বিভিন্ন বাড়িতে গৃহপরিচারিকার কাজ করে দিন চালাতে থাকেন তিনি।

পৌর মেয়র কেএম জাকির হোসেন বলেন, কেউ গৃহহীন থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অঙ্গীকার গৃহহীন থাকবে না কেউ আর বাস্তবায়নে গরিব দুঃখীর পাশে আমরা আছি ও থাকবো। ইউএনও জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ভালো কাজ করতে পারার আনন্দই আলাদা। এখন থেকে ওই ছোট্ট শিশুসহ তার বিধবা মা ভালো ঘরে ঘুমাতে পারবে। আর এই সুখটা বাংলাদেশি হিসেবে আমাদের সকলের। ইউএনও আরো জানান, সরকারি তহবিল থেকে দুই বান টিন ও ৬ হাজার টাকা নগদ সহায়তাসহ পৌর মেয়রের সহায়তায় এই অসহায় বিধবাকে একটি বড় টিনের ঘর নির্মাণ করে দেয়া হয়েছে। তিনি এ কাজে সহায়তা প্রদানকারী সকলকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর