× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১২ এপ্রিল ২০২১, সোমবার

আমদানি-রপ্তানির আড়ালে টাকা পাচার, অনুসন্ধানে দুদক

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১, মঙ্গলবার

পোশাক ব্যবসায়ীদের আমদানি-রপ্তানির আড়ালে প্রতি বছর অন্তত ৬৪ হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাচার হচ্ছে। ইনভয়েস জালিয়াতির মাধ্যমে বেশকিছু পোশাক শিল্প মালিক টাকা পাচারের সঙ্গে সম্পৃক্ত। পাচারকারীদের        ধরতে এবার মাঠে নেমেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। গতকাল সংস্থাটির সচিব ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার এক ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান।
তিনি বলেন, কতিপয় গার্মেন্টস মালিকদের বিরুদ্ধে কিছু পাবলিক সার্ভেন্টের সহযোগিতায় অবৈধ সম্পদ অর্জনপূর্বক আমদানি ও রপ্তানির আড়ালে বাংলাদেশ থেকে প্রতি বছর গড়ে ৬৪ হাজার কোটি টাকা পাচার করছে। এ বিষয়ে অনুসন্ধান শুরু হয়েছে। দুদকের ৪ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে।
এদিকে, সুনির্দিষ্টভাবে আল মুসলিম গ্রুপের অনিয়ম-দুর্নীতির মাধ্যমে ১৭৫ কোটি টাকা পাচারের অভিযোগে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্তের কথাও জানিয়েছেন দুদক সচিব।

ড. মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বলেন, আল মুসলিম গ্রুপের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির মাধ্যমে রপ্তানির আড়ালে ১৭৫ কোটি টাকা বিদেশে পাচারের একটি অভিযাগ পাওয়ার পর দুদক অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয়। বর্তমানে দুদকের একটি অনুসন্ধান টিম অভিযোগের বিষয়ে অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। অনুসন্ধান টিম প্রতিবেদন দাখিল করলে তা পর্যালচনা করে কমিশন আইন মোতাবেক পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এজন্য ৩ সদস্যের একটি টিম কাজ করছে।
জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে ওভার ইনভয়েসিংয়ের অভিযাগে অনুসন্ধান প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দুর্নীতি দমন কমিশনের চাহিদার ভিত্তিতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড ওভার ইনভয়েসিং সংক্রান্ত কিছু তথ্য পাঠায়, যার ভিত্তিতে দুদক অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নিয়ে একটি অনুসন্ধান টিম গঠন করেছে। বর্তমানে উক্ত টিম অনুসন্ধান কার্যক্রম পরিচালনা করছে। অনুসন্ধানের বিষয়বস্তু ব্যাপক হওয়ায় এ বিষয়ে অনুসন্ধান সম্পন্ন করতে সময়ের প্রয়োজন। দুদক তার চাহিদার প্রেক্ষিতে এনবিআর থেকে তথ্য পেতে শুরু করেছে। আশা করা যায়, এখন থেকে এনবিআর ওভার ইনভয়েসিংয়ের তথ্য পাওয়া মাত্র নিয়মিতভাবে দুদককে তথ্য সরবরাহ করবে। বিদেশে অর্থ পাচার রোধে দুদক অত্যন্ত কঠোর। এ লক্ষ্যে দুদক ৪ সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে বলেও তিনি জানান।
তিনি আরো বলেন, তদন্তযোগ্য তথ্য পাওয়া মাত্র দুদক অর্থ পাচার রোধকল্পে সর্বাত্মক ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকে। এ ক্ষেত্রে দুদক বিএফআইইউ এবং সেন্ট্রাল অথরিটি তথা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা গ্রহণ করে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর