× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতা
ঢাকা, ৬ মার্চ ২০২১, শনিবার
মানবাধিকার ইস্যুতে সোচ্চার বাইডেন

চীন বলছে -ভদ্রলোক কখনো নিজের ছুরি, কাঁটাচামচ অন্যের প্লেটে তাক করেন না

অনলাইন

তারিক চয়ন
(১ সপ্তাহ আগে) ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০২১, মঙ্গলবার, ২:২২ অপরাহ্ন

যুক্তরাষ্ট্রের নতুন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের অধীনে যুক্তরাষ্ট্র-চীন সম্পর্ক নতুন করে ঢেলে সাজানোর আহ্বান জানিয়েছে চীন। মানবজমিনের এক রিপোর্টে (২২ ফেব্রুয়ারি) বলা হয় দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই যুক্তরাষ্ট্রে বাইডেন প্রশাসনের উদ্দেশ্যে বলেছেন, "ডনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের যে ক্ষতি হয়েছে সেখান থেকে বেরিয়ে আসতে, সম্পর্ক পুনঃস্থাপনে আলোচনার জন্য মুক্ত বেইজিং। ট্রাম্প প্রশাসন দমননীতি এবং চীনের প্রভাব বিস্তারের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিয়েছিল। সে কারণে চীনের অপূরণীয় ক্ষতি হয়েছে। কয়েক বছরে কার্যত সব পর্যায়ের দ্বিপক্ষীয় আলোচনা বন্ধ করে রেখেছে যুক্তরাষ্ট্র। আমরা যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপনে প্রস্তুত। সমস্যা সমাধানে আলোচনার জন্যও প্রস্তুত।"

অন্যদিকে দ্য স্ট্রেইট টাইমসের এক রিপোর্টে (২৩ ফেব্রুয়ারি) বলা হয়েছে -তাইওয়ান, জিনজিয়ান, তিব্বত এবং হংকং সম্পর্কিত চীনের জাতীয় ইস্যুগুলোর বিষয়ে ওয়াশিংটনের হস্তক্ষেপ বন্ধ করা উচিত মন্তব্য করে দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, "কোনো ভদ্র আচরণবিশিষ্ট ভদ্রলোক কখনো নিজের ছুরি আর কাঁটাচামচ অন্যের প্লেটে রাখা খাবারের দিকে তাক করেন না।"

ওই রিপোর্টে বলা হয় -চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী যখন একথা বলছেন ঠিক একই সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত কুই তিয়ানকাই একই ফোরামে বলেন, চীন এবং যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই তাদের নীতিগত সীমারেখা নির্ধারণ করতে হবে এবং একে অপরের কৌশলগত উদ্দেশ্য সম্পর্কে দুই দেশের সঠিক ধারণা থাকতে হবে।

কিন্তু চীন যতোই উপরোক্ত ইস্যুগুলকে নিজেদের 'ঘরোয়ক বিষয়' বলুক, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিন পিং এর সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রথম ফোনালাপের পর, বাইডেন এক টুইটে বলেন, ‘আমি তাকে (শি জিন পিং) বলেছি, যখন আমেরিকার জনগণের সুবিধার বিষয়টি আসবে, তখন চীনের সঙ্গে কাজ করব।’

অন্যদিকে হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে (বিবিসির রিপোর্ট) বলা হয়েছিল, বেইজিংয়ের জবরদস্তিমূলক ও অন্যায্য অর্থনৈতিক চর্চা, হংকংয়ে দমন–পীড়ন, জিনজিয়ানে মানবাধিকার লঙ্ঘন, তাইওয়ানসহ সংশ্লিষ্ট অঞ্চলে চীনের আগ্রাসী পদক্ষেপের বিষয়ে প্রেসিডেন্ট বাইডেন তার মৌলিক উদ্বেগের কথা শি জিন পিং কে জানিয়েছেন।।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর