× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার

খাসোগি হত্যা: কি থাকছে মার্কিন গোয়েন্দা রিপোর্টে

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) ফেব্রুয়ারি ২৫, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন

আজ বৃহস্পতিবার প্রকাশ হচ্ছে সৌদি আরবের ভিন্ন মতাবলম্বী, বহুল আলোচিত সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ড নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ‘ডিক্লাসিফায়েড’ গোয়েন্দা রিপোর্ট। এতে বলা হচ্ছে, ২০১৮ সালে খাসোগিকে হত্যার অনুমোদন দিয়েছিলেন সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন ইসরাইল ন্যাশনাল নিউজ। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা রিপোর্ট সম্পর্কে জানেন এমন চারজন কর্মকর্তাকে উদ্ধৃত করা হয়েছে এতে। বুধবার তারা রয়টার্সকে জানিয়েছেন, এই গোয়েন্দা রিপোর্টে প্রধান ভূমিকা রেখেছে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ। এতে বলা হচ্ছে, সাংবাদিক জামাল খাসোগি সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্সের নীতির কড়া সমালোচনা করে ওয়াশিংটন পোস্টে কলাম লিখতেন। যুক্তরাষ্ট্রের ওই রিপোর্টে বলা হবে, জামাল খাসোগিকে হত্যার অনুমোদন দিয়েছিলেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। এমনকি তিনি এতে নির্দেশও দিয়ে থাকতে পারেন।
উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের অক্টোবরে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে সৌদি আরবের কনস্যুলেটের ভিতরে হত্যা করা হয় জামাল খাসোগিকে। সেখানেই তার শরীর টুকরো টুকরো করা হয়। এর পর তা কি করা হয়েছে সে বিষয়ে কোনো স্পষ্ট তথ্য মেলেনি। সৌদি আরব অনেক সমালোচনার পর স্বীকার করেছে যে, তাদের কনস্যুলেটে প্রবেশের পর হত্যা করা হয়েছে খাসোগিকে। কিন্তু প্রথমে তারা এ অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেছিল।
এ হত্যাকাণ্ড নিয়ে সোচ্চার হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্ট তিনি পড়েছেন এবং আশা করছেন, অল্প সময়ের মধ্যে তিনি সৌদি আরবের বাদশা সালমান বিন আবদুল আজিজের (৮৫) সঙ্গে ফোনে কথা বলার কথা। যুক্তরাষ্ট্রের সময় বুধবার ওই ফোন করার কথা। উল্লেখ্য, বাদশা সালমান হলেন ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমানের (৩৫) পিতা। রিয়াদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে বাইডেন প্রশাসনের সম্পর্ক কেমন হবে তার অনেকটা নির্ভর করছে ওই গোয়েন্দা রিপোর্টের ওপর। তবে খাসোগি হত্যাকাণ্ডকে আমলে না নিয়ে সৌদি আরবের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ধরে রেখেছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প।
হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জেন পকাসি বুধবার সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রেসিডেন্ট বাইডেন শুধু সৌদি আরবের বাদশার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন। শিগগিরই প্রকাশ হওয়ার কথা গোয়েন্দা রিপোর্ট। আগেই এই রিপোর্টকে বিস্ফোরক বলে মন্তব্য করা হয়েছে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর