× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১২ এপ্রিল ২০২১, সোমবার

রায়পুরে উত্তপ্ত নির্বাচনী মাঠ

বাংলারজমিন

রায়পুর (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শুক্রবার

 নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে, ততই বাড়ছে উত্তাপ। বাড়ছে বিচ্ছিন্ন ঘটনা। প্রতিদিন ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত পেশাদার শিল্পীদের কণ্ঠে রেকর্ড করা গানের তালে তালে প্রার্থীদের গুণকীর্তন করে চলছে প্রচারণা। কেউ কেউ আবার স্থানীয় বিভিন্ন সমস্যা নিরসনে দিচ্ছেন প্রতিশ্রুতি। গণসংযোগ, মাইকিং, পোস্টার, ব্যানার, লিফলেট ও মিছিল- মিটিংয়ে সরগরম হয়ে উঠেছে রায়পুর পৌর শহর। এ উপজেলায় ৬ জন মেয়র প্রার্থীর পাশাপাশি ৫০ জন সাধারণ কাউন্সিলর এবং ৭জন সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছেন। এবারের নির্বাচনে তরুণ প্রার্থীদের সংখ্যাই বেশি। প্রচার-প্রচারণায় প্রবীণদের চেয়ে অনেক এগিয়ে নবীনরা।
নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আগামী ২৮শে ফেব্রুয়ারি রায়পুর পৌরসভা নির্বাচনে ভোট গ্রহণের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। এ পৌরসভায় মোট ভোটার রয়েছেন ২৩ হাজার ৬শ’ ৩১ জন। পুরুষ ভোটার ১১ হাজার ৯শ’ ৯০ জন ও নারী ভোটার ১১ হাজার ৬শ’ ৪১ জন। এখানে ৯টি ওয়ার্ডে ভোটকেন্দ্র রয়েছে ১৩টি। মেয়র পদের প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট (নৌকা), পৌর বিএনপি’র সভাপতি ও সাবেক মেয়র এবিএম জিলানী (ধানের শীষ), স্বতন্ত্র প্রার্থী জামায়াতে ইসলামী সমর্থিত অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক অধ্যাপক মনির আহম্মদ (মোবাইল), স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক কাউন্সিলর নাসির উদ্দিন সগির (পানির জগ), স্বতন্ত্র প্রার্থী মাসুদ উদ্দিন (নারিকেল গাছ) এবং ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা আব্দুল খালেক (হাতপাখা)। আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গিয়াস উদ্দিন রুবেল ভাট বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে এখানে নৌকার বিকল্প নেই। আমি শুধু নেতা হতে চাই না, জনগণের সেবক হতে চাই। ভোটারদের স্বতঃস্ফূর্ত সাড়া দেখে বুঝা যাচ্ছে নৌকা প্রতীকে আমি বিপুল ভোটে জয়লাভ করবো ইনশাআল্লাহ। বিএনপি’র নেতাকর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এখানে বিএনপি’র নির্বাচনী কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। আনুষ্ঠানিক শোডাউন কিংবা কর্মী সমাবেশ তেমন করা যাচ্ছে না। তবে প্রতিটি ওয়ার্ডে এবং বাড়িতে তারা প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। এ নির্বাচন নিয়ে সংশয় প্রকাশ করছেন বিএনপি’র প্রার্থী।
জামায়াতে ইসলামী সূত্র জানায়, সরকারি চাকরির কারণে তাদের প্রার্থী সরাসরি রাজনীতির সঙ্গে জড়িত না থাকলেও একচ্ছত্র ভাবে তিনি দলটির সমর্থন পেয়েছেন। দলের নেতাকর্মীরা ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত গণসংযোগ করে যাচ্ছেন। মোবাইল প্রতীকের প্রার্থী অধ্যাপক মনির আহম্মদ বলেন, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট হলে আমি জয়লাভ করবো ইনশাআল্লাহ।
এদিকে বিগত কয়েক দিনে বিচ্ছিন্ন ঘটনায় বাড়ছে উত্তেজনা। নির্বাচনে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে আচরণ বিধি লঙ্ঘন, পোস্টার ও ব্যানার ছিঁড়ে ফেলা, ভয়ভীতি দেখানো, কর্মী-সমর্থকদের মারধর ও প্রচারে বাধা সহ বিভিন্ন অভিযোগ ও পাল্টা অভিযোগ করছেন প্রার্থীরা। সম্প্রতি পোস্টার ছেঁড়াকে কেন্দ্র করে প্রতিপক্ষের হামলায় নারী সহ অন্তত ৫ জন আহত হয়েছেন। ইতিমধ্যে রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তরে এ ধরনের লিখিত অভিযোগ করেছেন একাধিক মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা। রায়পুর পৌরসভা নির্বাচনের সহকারী রিটার্নিং অফিসার দীপক বিশ্বাস বলেন, প্রচার-প্রচারণা নিয়ে কিছু অভিযোগ পেয়েছি। যার তদন্তের জন্য ম্যাজিস্ট্রেটদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর