× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২১ এপ্রিল ২০২১, বুধবার

রাজারহাটে ভাতার টাকা আত্মসাৎ

বাংলারজমিন

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধি
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে বয়স্ক ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে। এ বিষয়ে গত ২২শে ফেব্রুয়ারি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগীরা।
সরজমিনে জানা যায়, রাজারহাট সদর ইউপি’র হরিশ্বর তালুক মৌজার মৃত আব্দুর রশিদের স্ত্রী ছবুরা বেওয়া, মৃত আব্দুল লতিফের স্ত্রী মজিরন বেগম ও মৃত ময়েজ উদ্দিনের পুত্র আছির উদ্দিন অনলাইনে ভাতার আবেদন করতে গিয়ে জানতে পারেন তাদের ৩ জনের নামে বয়স্ক ভাতার কার্ড ইস্যু করা হয়েছে। ঘটনাটি শুনে তারা হতবাক। পরে ছবুরা বেওয়ার ছেলে সাহেব আলী (৫০) উপজেলা সমাজসেবা অফিসে খোঁজখবর নিয়ে এর সত্যতা পান। তিনি জানতে পারেন, ওই তিনজনের বই সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. শহিদুল ইসলাম (বাবু) উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয় থেকে রেজিস্ট্রার খাতায় স্বাক্ষর করে উত্তোলন করেছেন। পরদিন ইউপি সদস্যের সঙ্গে দেখা করে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, বইগুলো তার কাছে রয়েছে, অনলাইনের কাজ বাকি আছে, পড়ে দেবেন। পরবর্তীতে ভুক্তভোগীরা তার পেছনে অনেকদিন ধরনা দিয়ে বইগুলো না পেয়ে ইউপি চেয়ারম্যান মো. এনামুল হকসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের নিকট অভিযোগ করেন।
কিন্তু তাতেও কোনো সুফল মেলেনি।
সোনালী ব্যাংক রাজারহাট শাখায় খোঁজ-খবর নিয়ে দেখা যায়- মোছা. ছবুরা বেওয়া ২০১৯ সালের ১৯শে আগস্ট একাউন্ট খোলার পর ২৭শে আগস্ট থেকে ২০২০ সালের ১৩ই মে পর্যন্ত ১২ হাজার টাকা জমা এবং উত্তোলন হয়। একই সময়ে মোছা. মজিরন বেগমের একাউন্টে ৭ হাজার ৫শ’ টাকা জমা ও উত্তোলন এবং মো. আছির উদ্দিনের একাউন্টে ১২ হাজার টাকা জমা এবং উত্তোলন হয়।
এ বিষয়ে ওই ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য মো. শহিদুল ইসলাম ব্যাপারী বলেন, ভুক্তভোগীরা বই তিনটির বিষয়ে তার কাছে মৌখিকভাবে নালিশ করেছিলেন। একাধিক দিন বাবুকে বিষয়টি নিয়ে মীমাংসার কথা বলে কোন প্রতিকার হয়নি। অভিযুক্ত ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলাম (বাবু)’র মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও পাওয়া যায়নি। রাজারহাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূরে তাসনিম বলেন, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, তদন্তপূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর