× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার

মুশতাকের মৃত্যুর দায় রাষ্ট্রের

প্রথম পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার

মতপ্রকাশের কারণে একজন লেখককে এভাবে দিনের পর দিন আটকে রাখা এবং একপর্যায়ে তার মৃত্যুর দায় রাষ্ট্র, সরকার, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান। মুশতাকের মৃত্যুর ঘটনাকে দুঃখজনক উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, এই মৃত্যু মেনে নেয়া যায় না। গতকাল গণমাধ্যমকে জানানো এক প্রতিক্রিয়ায় ড. মিজানুর রহমান বলেন, আমি মনে করি, বিচার বিভাগের আরো সতর্ক হওয়ার প্রয়োজন আছে। লেখক মুশতাকের ৬ বার জামিন আবেদন প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। বিচার বিভাগের আরো মানবিক ও মানবাধিকারের বিষয়টি দেখা দরকার ছিল। মানবাধিকার কমিশনের সাবেক এই চেয়ারম্যান প্রশ্ন রাখেন, একজন ব্যক্তি একটা কিছু লিখলেই তাকে এভাবে মাসের পর মাস কারাগারে রাখতে হবে, তার পেছনে কি এমন কারণ থাকতে পারে? দেখা দরকার ছিল, মুশতাক কী লিখেছেন। তাতে আদৌ সরকার বা রাষ্ট্রবিরোধী কিছু ছিল কি না। সবচেয়ে বড় কথা, মামলা হতে পারে, তাই বলে জামিন পাওয়ার অধিকার তো তার ছিল।
তাছাড়া এই মামলার অধিকতর তদন্তের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এই ব্যক্তি জামিনে থাকলে রাষ্ট্রের কী এমন ক্ষতির কারণ হতো! বরং তিনি চিকিৎসা পেতেন। তিনি বলেন, বর্তমান যুগে মানুষ সোশ্যাল মিডিয়ায় নানা রকম কথা বলেন। সরকারের সমালোচনাও হতে পারে। এতে দোষের কিছু নেই। মুশতাক কিছু কথা সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন। দেখতে হবে, সেখানে তিনি রাষ্ট্রবিরোধী কাজে যুক্ত কি না। ফেসবুক এক প্রকাশ্য মাধ্যম। এখানে লিখে তিনি রাষ্ট্রবিরোধী কাজে কীভাবে যুক্ত হয়েছেন, সেটাও পরিষ্কার হওয়া দরকার ছিল। ড. মিজান বলেন, বিচার বিভাগের এই বিষয়টির দিকে নজর দেয়া দরকার। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ধরে আনলেই আটকে রাখতে হবে, এমনটা তো নয়। বিচার বিভাগকে ব্যক্তির মানবাধিকারের বিষয়টি দেখতে হবে। ব্যক্তির বিরুদ্ধে যে অভিযোগ, তা আদৌ ঠিক কি না, সেটা বিবেচনায় আনতে হবে।
 

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মোঃ আবু মুসা আশারী
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৩:২১

ডঃ মিজান আজ অনেক ভালো কথা বলেছেন, কিন্তু এই প্রাণীটি নিজেই যখন মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ছিলেন তখন তিনি কোনদিন মানবাধিকার নিয়ে কোন কথা বলেন নি ৷ আপনি একজন সুবিধাবাদী ধান্দাবাজ হওয়ার পরেও আজ কিছু ভালো কথা বলেছেন তাই আপনাকে ধন্যবাদ ৷

Md. Harun al-Rashid
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার, ১০:৩৫

আপনাদের উপলব্ধি যথার্থ কিন্তু বিস্মৃত হই যখন দেখি কার্যতঃ আপনারা বিবৃতি জীবি একটা সুবিধাভোগি সম্প্রদায়।

Nurun Nabi
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৮:৪০

Digital Death in a Digital Jail.

Nejam Kutubi
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার, ৩:২৭

এত দিন পরে আপনাকে কথা বলতে শুনলাম!! আগে ঘন ঘন মানবাধিকারের বিবৃতি দিতেন!!

Sarwar
২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শুক্রবার, ১১:৪১

জনাব, আপনি বলেছেন এই দায় রাস্ট্রের। তাহলে কার বিরুদ্ধে অভিযোগ করতে হবে, রাস্ট্র প্রধানের বিরুদ্ধে নাকি সরকার প্রধানের বিরুদ্ধে?

অন্যান্য খবর