× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২২ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার
রশীদপুর ট্রাজেডি

ধরখা গ্রামে চলছে মাতম

বাংলারজমিন

জয়নাল আবেদীন, ওসমানীনগর (সিলেট) থেকে
২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২১, শনিবার

সিলেটের ওসমানীনগরের সাদিপুর ইউপির ধরখা গ্রামে চলছে শোকের মাতম। শুক্রবার সকালে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের রশীদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এই গ্রামের ২ জন প্রাণ হারিয়েছেন। প্রিয়জনদের হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তাদের পরিবারের সদস্যরা। এক সঙ্গে গ্রামের দুইজনকে হারিয়ে গ্রামবাসীও বাকরুদ্ধ। নিহতরা হলেন, মৃত মানিক মিয়ার ছেলে এনা বাসের চালক মঞ্জুর আহমদ মঞ্জু (৪০) ও মনসুর আলীর ছেলে এনা বাসের চালকের সহকারী জাহাঙ্গীর হোসেন (৩০)।
তিন ভাইয়ের মধ্যে মঞ্জুর আহমদ মঞ্জু স্ত্রী ও দুই সন্তানকে নিয়ে আলাদা থাকেন। বড় ছেলের বয়স ১৪ বছর, ছোট ছেলের বয়স ৫ বছর। মঞ্জুর ছেলেদের নিয়ে প্রায়ই বড় বড় স্বপ্ন দেখতেন। কিন্তু একটা দুর্ঘটনা তার প্রাণের সঙ্গে কেড়ে নিয়েছে পুরো পরিবারের স্বপ্ন।
পরিবারের একমাত্র চালিকাশক্তিকে হারিয়ে বার বার শোকে মূর্চ্ছা যাচ্ছেন স্ত্রী সুরমা বেগম। দুই শিশুসন্তান নির্বাক হয়ে মায়ের পাশে বসে রয়েছে।
অন্যদিকে জাহাঙ্গীররা ২ ভাই। এর মধ্যে ১ ভাই ঢাকায় থাকেন। মা, স্ত্রী, ১ ছেলে (৪) ও ১ মেয়েকে (২) নিয়ে জাহাঙ্গীরের সংসার। তার আয়ের উপর নির্ভর করেই চলত অভাবী পরিবার। শুক্রবার ভোরে দুর্ঘটনার খবরে পুরো পরিবার কান্নায় ভেঙে পড়েছে।
মঞ্জুর আহমদ মঞ্জু ও জাহাঙ্গীর হোসেনের প্রতিবেশী ফয়েজ আহমদ বলেন, ‘এক সঙ্গে দুটো মানুষ চলে গেছে। তাদের পরিবারের দিকে তাকিয়ে গ্রামের কেউই সান্ত¡না দেওয়ার ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না।’ তিনি জানান, শুক্রবার রাতে স্থানীয় আওরঙ্গপুর মাদরাসা প্রাঙ্গণে নিহতদের জানাজা শেষে ধরখা পঞ্চায়েতি গোরস্তানে তাদের লাশ দাফন করা হয়।
প্রসঙ্গত, শুক্রবার সকালে সিলেটের দক্ষিণ সুরমায় ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে লন্ডন এক্সপ্রেস ও এনা পরিবহনের যাত্রীবাহী বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এনা বাসের চালক, সুপারভাইজার, চালকের সহকারী (হেলপার) সহ ৮ জন নিহত হন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর