× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২৩ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার, ১০ রমজান ১৪৪২ হিঃ

ডুমুরিয়ায় ভারপ্রাপ্ত দিয়েই চলছে ১২ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান

বাংলারজমিন

ডুমুরিয়া (খুলনা) প্রতিনিধি
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার

ডুমুরিয়া উপজেলাতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষ দিয়েই চলছে ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। এর মধ্যে কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে ঘটেছে বিভিন্ন ধরনের ঘটনা।
সংশ্লিষ্ট দপ্তরে খোজ নিয়ে জানা যায়, উপজেলাতে মোট শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে ১০৮টি। এর ভেতর মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে ৬৩ টি। কলেজ ১২ ও ইবতেদায়ীসহ মাদ্রাসা রয়েছে ৩৩টি। দীর্ঘদিন ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে পরিচালিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী চুকনগর দিব্যাপল্লী সহ ৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। চুকনগর ডিগ্রি কলেজ সহ ১২টি কলেজ ও নরনিয়া ইসলামিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসা । এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দীর্ঘদিন ধরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক দিয়ে পরিচালিত হলেও নিয়োগের কোনধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি কর্তৃপক্ষ। এরমধ্যে কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বর্তমানে দায়িত্বে থাকা ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের কয়েকজন পূর্ণ দায়িত্বে নিয়োগ পাওয়ার জন্য বিভিন্ন মহলের কাছে দেন দরবার করছেন।
অপরদিকে এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানের নিয়োগ না দিলেও অন্যান্য পদের নিয়োগের কার্যক্রম চলমান রয়েছে। ইতিমধ্যে নূরানিয়া ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মো. রহমত উল্লাহর বিরুদ্ধে কাম কম্পিউটার পদে নিয়োগের জন্য টাকা লেনেদেন করেন। এছাড়াও স্বাক্ষর জালের অভিযোগে সাময়িক বরখাস্ত করেছেন পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি। বিষয়টি নিশ্চিত করেন নূরানিয়া ইসলামিয়া ফাজিল (ডিগ্রি) মাদ্রাসা পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি মো. নূর আলী। উল্লেখ্য, চুকনগর দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি একাধিক বার পরিবর্তন করা হলেও প্রধান শিক্ষকের নিয়োগের কোন কার্যক্রম করেনি কর্তৃপক্ষ। অপরদিকে চুকনগর ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষের নিয়োগ না দিয়ে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ পরিবর্তন সহ চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর নিয়োগের কর্যক্রম চলমান। এবিষয় নিয়ে এলাকার সচেতন মহলে শুরু হয়েছে নানান গুজ্ঞন। তবে কয়েক মাস আগে চুকনগর দিব্যপল্লী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিয়োগের কার্যক্রম শুরু করে তৎকালীন স্কুলটির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি। তখন সভাপতির বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ উঠলে নানা নাটকীয়তার মধ্যে নিয়োগের কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। সংশ্লিষ্ট দপ্তরের একটি সূত্র জানিয়েছে, একটি মহল সদয় না হলে এই সকল নিয়োগ সম্ভব হবে না। এই সকল বিষয় নিয়ে স্থানীয় সচেতন মহলের সাথে কথা বললে সকলেই মনে করে অতিদ্রুত এই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক ও অধ্যক্ষের নিয়োগ দেয়া প্রয়োজন। তা না হলে ডুমুরিয়া উপজেলার শিক্ষা ব্যবস্থা হুমকির মুখে পড়বে বলে মনে করেন অনেকেই। এ বিষয় নিয়ে কথা বললে মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শেখ ফিরোজ আহমেদ বলেন, অধিকাংশ স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির এ্যাডক কমিটি দিয়ে চলছে যে কারণে নিয়োগ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। তবে অতি দ্রুত যাতে নিয়োগ দেয়া যায় সে ব্যাপারে কথা বলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে কথা বললে চুকনগর ডিগ্রি কলেজের পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবদুল ওয়াদুদ মানবজমিনকে নিয়োগের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, নিয়োগ স্থগিত আছে। তবে অতি দ্রুত অধ্যক্ষ নিয়োগের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
প্রতাপ কুমার রায়
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ৩:৫৬

এরকম একটি জনগুরুত্বপূর্ণ সংবাদ পরিবেশনের জন্য সাংবাদিক মহোদয়কে ধন্যবাদ।

অন্যান্য খবর