× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৭ এপ্রিল ২০২১, শনিবার

জর্দা ব্যবসায়ী কাউছ মিয়াকে সম্মাননা জানালো এনবিআর

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) মার্চ ৫, ২০২১, শুক্রবার, ৪:৪৬ অপরাহ্ন

মুজিববর্ষে সেরা করদাতা হিসেবে পুরান ঢাকার হাকিমপুরী জর্দা ব্যবসায়ী কাউছ মিয়াকে সম্মাননা জানিয়েছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর)।

শুক্রবার সেগুনবাগিচায় রাজস্ব বোর্ডের সম্মেলন কক্ষে কাউছ মিয়াকে সম্মাননা জানায় এনবিআর।

কাউছ মিয়া বলেন, ‘আমার বয়স হয়েছে। চিকিৎসক কথা কম বলতে বলেছেন। আমাকে এই সম্মান জানানোর জন্য কৃতজ্ঞ।’

তিনি আরো বলেন, জীবনের অনেকটা পথ পারি দিয়ে আজকের অবস্থানে এসেছি। সততার সঙ্গে ব্যবসা পরিচালনা করেছি। বাকিটা জীবনও যেন এভাবে পথ চলতে পারি। ধন্যবাদ সবাইকে। গত বেশ কয়েক বছর ধরেই সেরা করদাতার সম্মাননা পেয়ে আসছেন তিনি।

রাজস্ব বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, কাউছ মিয়া গত ৬১ বছর ধরে কর দিয়ে আসছেন।
১৯৫৮ সাল থেকে কর দেন তিনি। ১৯৬৭ সালে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে এক নম্বর করদাতা হয়েছিলেন কাউছ মিয়া।

হাকিমপুরী জর্দা উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানটির মালিক মো. কাউছ মিয়া তার ব্যবসা শুরু করেছিলেন মাত্র আড়াই হাজার টাকা নিয়ে, পঞ্চাশের দশকে।

তার বক্তব্য অনুযায়ী, এখন তার বিভিন্ন ব্যবসা আর জায়গা জমি মিলিয়ে মোট সম্পদের পরিমাণ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা। ১৯৫০ সালে চাঁদপুরে স্টেশনারি ব্যবসার শুরু করেন তিনি। ধীরে ধীরে ব্যবসা বাড়লে তিনি নারায়ণগঞ্জে চলে আসেন। শুরু করেন তামাকের ব্যবসা। বর্তমানে তিনি ৪০-৪৫ ধরনের ব্যবসায় জড়িত আছেন তিনি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
siddq
৬ মার্চ ২০২১, শনিবার, ৯:২৭

কাউছ মিয়ার হাকিমপুরী জর্দা আমাদের দেশের NBR কে তথা বাংলাদেশের অর্থ মন্ত্রণালয় কে যতটা না অর্থের জোগান দিয়েছে এবং সামনে আরও দিবে তার চেয়ে নিশ্চিতভাবে অনেকগুন বেশী অর্থের বন্দোবস্ত করছে আমাদের দেশের ক্যান্সার ও হৃদরোগ হাসপাতাল এবং ঔষধ প্রস্তুতকারী দেশী এবং বিদেশী কোম্পানি গুলোর জন্য। এর বেশ ভাল একটা অংকের টাকার ভাগ আমাদের আশে পাশের দেশ গুলোর হাঁসপাতাল গুলো ও কামাতে পারছে ও সামনের দিন গুলতে আরও ভাল কামাবে। তাই আমি মনে করি স্বাস্থ্য- মন্ত্রণালয়ও এই কাউছ মিয়ার হাকিমপুরী জর্দার জন্য মহাকালীস্থ মন্ত্রণালয় এর সম্মেলন কক্ষে কাউছ মিয়াকে ফুলের তোড়া কিম্বা লাল গালিচা সম্মাননা দিতে পারেন। আমরা বাংলাদেশের জনগন বাংলাদেশের অর্থ মন্ত্রণালয় এর টাকার সুফল !!!! পাই বা নাপাই আমাদের এবং আমাদের স্বজন, বন্ধু- বান্ধব দের এর জীবন কিন্তু নিশ্চিত ভাবেই হারাবে। চিকিৎসা, দাফন কাফন এর জন্য NBR, অর্থ মন্ত্রণালয় এবং স্বাস্থ্য- মন্ত্রণালয় কিন্তু কোন অর্থের জোগান দিবেনা। উল্টা জনগন কে কিছু VAT পরিশোধদের জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

মো জিয়া
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ১০:০০

অন্যরা তামাক জাতীয় জিনিস না খেলেই হয়। যাক শরীয়তপুরের মানুষ হিসেবে গর্বিত।

Mahmud
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ৮:০৮

He is earning money by selling tasty poison. By paying tax regularly he is not only legalizing it , he is earning fame and rewarded as the highest tax payer. Hard to believe !!

ডাক্তার ওবায়দুল হক
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ৬:০৫

হাকিমপুরী জর্দার কারখানা থেকে নমুনা সংগ্রহ করে গত ৭ নভেম্বর তা আণবিক শক্তি কমিশনে পরীক্ষা করা হয়, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কথা হচ্ছে সেখানে মারাত্মক পরিমাণে লেড, ক্রোমিয়াম, ক্যাডমিয়াম পাওয়া গেছে,এগুলো মানবস্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর, এদিকে আমাদের সরকার পুরস্কৃত করে দেশ ও জাতিকে উৎসাহিত করতেছে

জিলানী, লন্ডন
৫ মার্চ ২০২১, শুক্রবার, ৬:০৫

স্বাস্থ্য র জন্য যা ক্ষতিকর, কত মা, বোন, সন্তান সন্তাতির জীবন কেড়ে নিচ্ছে এই জর্দা। মানুষ কে উক্ত নেশা থেকে সরিয়ে আনা সরকারের দায়িত্ব, তা না করে ‌উৎসাহিত করা হচ্ছে, ‌আমি Extremely Sorry কিছুই বুঝতে পারলাম না। ঘটনা ছয় বসরের মেয়ে তার মাকে বলতেছে আব্বু জর্দা খেয়ে মারা গেল, তুমি কেন মানা করলে না। প্রকাশ করলাম মুখ গব্বরে ক্যান্সারে মারা গেছে। প্লিজ আপনার কিছু করুন। কি হল আমাদের মানবতা!

অন্যান্য খবর