× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ১৬ এপ্রিল ২০২১, শুক্রবার

বাংলাদেশ, ভারতকে অবশ্যই সীমান্তের ছোটখাটো স্থানীয় সমস্যায় মনোনিবেশ করতে হবে

অনলাইন

তারিক চয়ন
(১ মাস আগে) মার্চ ৬, ২০২১, শনিবার, ৬:০৪ অপরাহ্ন

বাংলাদেশের স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উদযাপনের অংশ হিসেবে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ঢাকা সফরের প্রাক্কালে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের অধীন, স্বায়ত্তশাসিত অর্থনৈতিক গবেষণা প্রতিষ্ঠান- বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ (বিআইডিএস) এর সিনিয়র রিসার্চ ফেলো এবং বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদের বক্তব্য গুরুত্বসহকারে তুলে ধরেছে ভারতের আসাম রাজ্যের গোহাটি থেকে প্রকাশিত ইংরেজী দৈনিক পত্রিকা- দ্য সেন্টিনেল। আসামে এই পত্রিকাটি বহুল প্রচারিত।

ড. নাজনীনের বক্তব্য ছিল, 'প্রচলিত ধারা অনুযায়ী দুই দেশের মধ্যে আলোচনায় সবসময়ই সাধারণত বড়সড় ইস্যুগুলোতে মনোনিবেশ করা হয়। তবে স্থানীয় বিষয়গুলোকেও প্রাধান্য দেয়া দরকার যেগুলো হয়তো সংবাদের শিরোনাম হয় না, কিন্তু সীমান্ত অঞ্চলে বসবাসরত মানুষের দৈনন্দিন জীবনে প্রভাব ফেলে। এই ছোটখাটো উদ্যোগগুলো ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে স্থিতিশীল সম্পর্ক গঠনে সুদূরপ্রসারী প্রভাব রাখতে পারে।'

 

তিনি সীমান্ত বাণিজ্যে স্থানীয় সুবিধার বিষয়টি তুলে ধরে সেগুলোকে করণীয় তালিকার উপরের দিকে রাখতে বলেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, সীমান্ত হাট (বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সীমান্ত বাণিজ্য বাজার) অবশ্যই গুরুত্ব দিয়ে করা উচিৎ যাতে স্থানীয় পণ্যের বাজার বাড়তে পারে।

 

উল্লেখ্য, উভয় দেশের লোকদের মেলামেশার  এবং কেনাকাটা করার জন্য গত বছর পর্যন্ত এমন চারটি সীমান্ত হাট ছিল। পণ্য প্রদর্শনীর জন্য সীমান্ত হাট এবং বাণিজ্য মেলার ফ্রিকোয়েন্সি বাড়ানো দরকার বলেও মনে করেন ড. নাজনীন।

 

'কানেক্টিভিটি বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াবে এবং উভয় পক্ষের লোকেরা একবার ব্যবসার সুযোগ খুলতে দেখলে পারস্পরিক আস্থার এবং বন্ধুত্বের পরিবেশ স্বয়ংক্রিয়ভাবে গড়ে উঠবে। বুঝতে চেষ্টা করুন যে, অর্থ রাজনীতির চেয়ে বেশি প্রভাব ফেলে। কানেক্টিভিটি প্রসারিত হওয়ার সাথে সাথে নতুন ব্যবসার সুযোগ তৈরি হবে এবং এটি বিদ্যমান বিভ্রান্তিগুলোর সমাধান করবে', তিনি যোগ করেন।

 

ডিসেম্বরে পশ্চিমবঙ্গের হালদিবাড়ি এবং বাংলাদেশের চিলাহাটির মধ্যে  প্রায় ৫৫ বছর পর আবার রেল যোগাযোগ শুরু হয়েছে উল্লেখ করে সেন্টিনেল এর রিপোর্টে ঢাকা-শিলিগুড়ির মধ্যে এ বছরই বাস রুট উদ্বোধন হবার কথা এবং রেল ও সড়ক পথে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে সহজ যোগাযোগের জন্য বাংলাদেশ-ভুটান-ইন্ডিয়া-নেপাল ইনেশিয়েটিভ (বিবিআইএন) দ্রুত চালু করতে ভারতের আগ্রহের কথা জানানো হয়।

 

রিপোর্টে বলা হয়- যদিও নাজনীন উল্লেখ করেছেন যে, নদীর পানিবন্টন সংক্রান্ত (বিশেষত তিস্তা) সমস্যাসহ দুই প্রতিবেশীর মধ্যে বেশ কয়েকটি বড় সমস্যা রয়ে গেছে কিন্তু তিনি মনে করেন, দুই নেতাকে অবশ্যই সেসব দিকে মনোনিবেশ করতে হবে যেগুলোতে উন্নতি হচ্ছে।

তিনি বলেন, 'দু'দেশের মধ্যে যে বিষয়গুলোর সমাধান করা মুশকিল, সেদিকে মনোনিবেশ করার আমি কোনও কারণ দেখছি না। ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে যে বিষয়গুলো ভালোভাবে কাজ করছে সেগুলোতে জোর দেয়া যাক। আলোচনার কেন্দ্র নতুন সুযোগের দিকে থাকা উচিত।'

 

গত বছর হুট করে বাংলাদেশে  পিঁয়াজ  রপ্তানি বন্ধ করার ভারতীয় সিদ্ধান্তের বিষয়ে তিনি বলেন, 'এটা হয়তো তেমন বড় কিছু না। কিন্তু অনেক সময় এমন ছোট ইস্যুগুলোই তিক্ত স্বাদের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। এগুলো ত্যাগ করলে সম্পর্ক মজবুতই হবে।'

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
ওবাইদুল ইসলাম
৯ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার, ৫:৪৭

বালাদেশের রাজনৈতিক দুর্বলতা বিশেষ করে ক্ষমতাসীন দলের ভারতীয় দালালদের অপতৎপরতা ও ভারতীয় সরকারের বাংলাদেশের উন্নয়ন ঠেকিয়া রাখার ব্যার্থ চেষ্টা থেকে হতাশার বহির্প্রকাশ হোল সীমান্ত হত্যা । এটা নিশ্চিত যে, ভারতের সীমান্ত রক্ষীরা শুধু বাংলাদেশ সীমান্তেই হত্যা কান্ড ঘটিয়ে থাকে।

shahin
৮ মার্চ ২০২১, সোমবার, ১১:২৩

উনি ওনার দৃষ্টি কোন থেকে যা বলেছেন তাকে সাধুবাদ জানাই কিন্ত উনি জানেন না যে এর কারনে স্থানীর বাজার গুলোর কি করুন আবস্থা। এই বাজার গুলোর কারনে বাংলাদেশের স্থানীয় বাজার গুলো রয়েছে তার ব্যবসা নাই বললেই চলে। সীমন্তহাটের যে বাজার রয়েছে তার হলো নেশার অন্যতম কারখানা। বাংলাদেশের দোকান দারগুলো যদি 200 টাকা বিত্রি করে ইন্ডিয়ান দোকানদার গুলো বিক্রি করে 5000 টাকা। এতে সুবিধা হলো ইন্ডিয়ার আমাদেরে দেশের লাভ কি???

সৈয়দ রফিকুজ্জামান রো
৬ মার্চ ২০২১, শনিবার, ১০:২৫

শুধু ভারতের আসাম রাজ্যেই নয়- সেদিন অতি নিকটবর্তী- যে, আন্তরজাতিক ভাবে বিশ্বব্যাপি বিভিন্ন মাধ্যমে (ইলকট্রনিক্স, প্রিন্ট, গনমাধ্যম) বিভিন্ন "টপিকসের " উপর বিআইডিএস এর খ্যাতনাম জ্যেষ্ঠ ইকোনমিস্ট ড. নাজনীন এর বাস্তবনিষ্ঠ লিখা দেখতে যাচ্ছি। এই লিখার জন্যই - সুস্থ্য, দীর্ঘজীবি হোন।

আফনান পারভেজ
৬ মার্চ ২০২১, শনিবার, ৭:৪১

বাহ ! তার মানে, কেউ গরু মেরে জুতো দান করলে - জুতো নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হবে।

অন্যান্য খবর