× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী
ঢাকা, ২২ এপ্রিল ২০২১, বৃহস্পতিবার

করোনাকে শিক্ষিত করার জন্য বইমেলা খোলা রাখা হয়েছে!

অনলাইন

তারিক চয়ন
(২ সপ্তাহ আগে) এপ্রিল ৬, ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:৩৬ অপরাহ্ন

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের জারি করা লকডাউনের মধ্যেই বইমেলা চালু রাখা নিয়ে সমালোচনা থামছেই না। দুপুর ১২টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত বইমেলা খোলা রাখা হচ্ছে। যে সময়টায় এমনিতেও প্রচণ্ড তাপদাহে অতিষ্ঠ থাকেন সবাই। লকডাউনের প্রথম এবং দ্বিতীয় দিন সরেজমিন দেখা যায় হাতেগোনা লোকজন মেলাপ্রাঙ্গণে ঘুরছেন। অনেক স্টল-প্যাভিলিয়নই ক্রেতাশূণ্য। বেশকিছু স্টল বন্ধও পাওয়া যায়। লকডাউনের মধ্যে বইমেলা চালু রাখার বাংলা একাডেমির এমন সিদ্ধান্ত নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও চলছে তীব্র সমালোচনা, সাথে ঠাট্টা-তামাশাও। বিশেষ করে ফেসবুকে বিভিন্ন রম্য গ্রুপ থেকে শুরু করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, প্রকাশক, সাংবাদিক, আইনজীবী থেকে শুরু করে নানা শ্রেণি-পেশার মানুষ এ ধরনের ট্রলে অংশ নিয়েছেন।

সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী নাসের আলম ফেসবুকে তার ছোট্ট সন্তানের গালে হাত দেয়া একটি ছবি পোস্ট করে ক্যাপশনে লিখেছেন -করোনায় লকডাউন, কিন্তু বইমেলা চালু, ভীষণ চিন্তায় নিমগ্ন!

প্রকাশক সাঈদ বারী একটি বেসরকারি টেলিভিশনের ছবি পোস্ট করেছেন যেখানে টিভিস্ক্রলে লেখা- লকডাউনে ঘর থেকে বের হওয়া যাবে না, ১২ টা থেকে ৫ টা পর্যন্ত বইমেলা চলবে।
ছবিটি পোস্ট করে তিনি ক্যাপশনে লিখেছেনঃ বাংলা একাডেমি বইমেলাটাকে ছেলেখেলায় পরিণত করেছে!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোহাম্মদ মজিবুর রহমান লিখেছন- বইমেলা কী খুবই জরুরি? এই করোনা পরিস্থিতি ও লকডাউনের মধ্যেও বইমেলা চালু থাকা লাগবে? রাবিশ!

তিনি আরো লিখেছেন- বিনোদন ও পর্যটন কেন্দ্র খুলে দিয়ে, বইমেলা চালু করে, বিসিএস ও মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় লাখ লাখ মানুষ জড়ো করে, আনন্দ-উল্লাস ও হরতাল-মারামারি করে, স্বাস্থ্যসেবার যথাযথ উন্নয়ন না করে সবকিছু লেজেগোবরে করে হুট করে প্রস্তুতিহীন 'লকডাউন' খুব একটা কাজে আসবে না। এখন 'লকডাউন'কে বিনোদন মনে না করলে হয়তো কিছুটা রক্ষা পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আহমেদ সিয়াম নামে একজন লিখেছেন- সব বন্ধ, কিন্তু বইমেলা খোলা! করোনাকে শিক্ষিত করার জন্য বইমেলা খোলা রাখা হয়েছে।

এদিকে ঢাকার একটি সংবাদপত্র সংবাদ শিরোনাম করেছে, বইমেলা চালু কেন, বইমেলাতেই প্রশ্ন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Nurul Islan
৬ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:০৩

সব সম্ভব এর দেশ স্বাধীন বাংলাদেশ। এখানে সব করা সম্ভব শুধু মানুষের কথা বলার অধিকার নাই। রাবিশ।

Shahab
৬ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:০৩

Cause of model exporters of world.

Md Khalid, MD, Ph.D
৬ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার, ৭:১২

Lockdown Lockdown Lockdown. Bangladesh Government need more education about COVID-19 than educating "Book Fair" and it's Organizers.

জিলানী, লন্ডন
৬ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার, ৪:২৮

আফসোসের জন্য ত একটা ভুল হতে হবে। দায়িত্বশীল রা সচেতন ভাবে কেন ভুল করেন, তা আমার বোধগম্য হয় না। রাজনৈতিক প্রশাসন খুবই জটিল!

shobuj choudhuri
৬ এপ্রিল ২০২১, মঙ্গলবার, ৫:০৫

কোরোনাকে সিনেমা দেখানোর জন্য সিনেমা হলও খোলা রাখা হয়েছে! আর, কোরোনাকে নাটক শিখানোর জন্য নট-নটীদের নাটক বানানোও খোলা রেখেছে হাছিনা

অন্যান্য খবর