× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ সফর ১৪৪৩ হিঃ

বিচারহীনতার কারণে বারবার দুর্ঘটনা ঘটছে

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, রূপগঞ্জ থেকে
১২ জুলাই ২০২১, সোমবার

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ড. জাফরু উল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, সরকারের সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোর দুর্নীতি ও ব্যর্থতার কারণেই এই দুর্ঘটনা ও এত প্রাণহানি ঘটেছে। রানাপ্লাজার দুর্ঘটনার পর দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত মালিকসহ দায়ীদের কারো কোনো বিচার হয়নি। এই বিচারহীনতার কারণেই বারবার দেশে শিল্প কারখানায় দুর্ঘটনা ঘটছে। তিনি বলেন, যেহেতু রাতের আঁধারে এ সরকারকে প্রশাসন ক্ষমতায় নিয়ে এসেছে তাই প্রশাসনিক কর্মকর্তারা জনগণকে পরোয়া করে না। গতকাল দুপুরে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে দুপুরে দুর্ঘটনাকবলিত হাসেম ফুড কারখানা পরিদর্শনে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জুনায়েদ সাকি। দুর্ঘটনাকবলিত ভবনটি ঘুরে দেখে তারা এ ভয়াবহ দুর্ঘটনা ও প্রাণহানির জন্য সরকারকে দায়ী করে বলেন, এসব তদারকি করার জন্য সরকারের যে সমস্ত সংস্থা আছে তাদের দুর্নীতি ও ব্যর্থতার কারণেই এতগুলো প্রাণ আজকে ঝরে পড়েছে। তিনি দাবি করেন, কলকারখানা অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা যদি নিয়মিত পরিদর্শনে আসতেন তাহলে মালিক পক্ষের অনিয়মগুলি ধরা পড়তো।
কিন্তু তারা মলিকপক্ষের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণ করে এসব পরিদর্শন না করে নীরবে বসে থাকেন। তিনি এসব দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান। তিনি আরো বলেন, মালিকপক্ষকে শুধু গ্রেপ্তার করলেই হবে না শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। কারণ রানাপ্লাজার দুর্ঘটনার পর দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও এখন পর্যন্ত মালিকসহ দায়ীদের কোনো বিচার হয়নি। এ সময় জুনায়েদ সাকি এই দুর্ঘটনায় যারা প্রাণ হারিয়েছে তাদের প্রত্যেককেই ক্ষতিপূরণ হিসেবে ৫০ লাখ টাকা করে দিতে সরকারের কাছে দাবি জানান। একইসঙ্গে যাদের পরিবারে কাজের উপযুক্ত লোক আছে তাদের চাকরির ব্যবস্থা করা, যাদের সন্তান লেখাপড়া করে তাদের লেখাপড়ার দায়িত্ব সরকারকে নিতে অনুরোধ করেন। তিনি বলেন, এ দুর্ঘটনার সময় যারা আগুন নেভাতে এসেছিল সেই নিহতদের স্বজন, এলাকাবাসীর ওপর পুলিশি হামলার নিন্দা জানাই। একইসঙ্গে নারায়ণগঞ্জে গণসংহতি আন্দোলনের কর্মীদের সমাবেশে পুলিশের হামলা চালিয়ে সমাবেশ পণ্ড করে দেয়ার নিন্দা জানাই। তিনি আরও বলেন, সরকারের প্রশাসন যন্ত্রের উপর নিয়ন্ত্রণ যে কাজ করে না তারই উদাহরণ সেজান জুস কারখানার এ অগ্নিকাণ্ড। কারণ প্রশাসনযন্ত্র যদি সঠিকভাবে মনিটরিং করতো তবে এ দুর্ঘটনা ঘটতো না।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Nurun Nabi
১২ জুলাই ২০২১, সোমবার, ৮:৫১

Who cares for these TRAGEDIES. This will happen again and again.

Nurun Nabi
১২ জুলাই ২০২১, সোমবার, ৫:১১

Govt. should check the safety of each Industrial building every week to see Fire exit stair and see if they are not locked. In any case these doors cannot be locked. But we need regular Inspection by authority.

অন্যান্য খবর