× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার , ৫ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ সফর ১৪৪৩ হিঃ
খুলনা বিভাগ

করোনায় আরও ৪১ জনের মৃত্যু শনাক্ত ১০১৯

এক্সক্লুসিভ

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা থেকে
৩০ জুলাই ২০২১, শুক্রবার

খুলনা বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু ও শনাক্তের সংখ্যা বেড়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ৪১ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ১৯ জন। খুলনা বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তর সূত্রে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে খুলনায়। বাকিদের মধ্যে কুষ্টিয়ায় ৯, ঝিনাইদহে ৫, যশোরে ৪, মেহেরপুরে ৩, নড়াইল ও মাগুরায় ২ জন করে এবং চুয়াডাঙ্গায় একজন মারা গেছেন। করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে গতকাল সকাল পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় মোট শনাক্ত হয়েছেন ৯১ হাজার ৫৬৮ জন। আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ২ হাজার ৩৩৫ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৬৬ হাজার ৫৮০ জন।
এদিকে, চলমান লকডাউনে বিভিন্ন কৌশলে সড়কে মানুষের সমাগম বেড়েছে।
এতে করে উপেক্ষিত হচ্ছে স্বাস্থ্যবিধি, বাড়ছে সংক্রমণ। তাছাড়া প্রশাসনের চাপ এড়াতে পকেটে চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন, টিকা কার্ডসহ খালি ওষুধের প্যাকেট নিয়ে চলাচল করছেন। কেউ বা প্রশাসনের লোক দেখলে অসুস্থ রোগী দেখতে যাওয়া, নিজে অসুস্থ আছেন এমনভাব দেখান। এমন চিত্র চলছে বর্তমান ঢিলেঢালা লকডাউনে। তবে সময় বিশেষ সঠিক জবাবদিহিতা না করতে পারলে পুলিশ ইজিবাইক, মাহেন্দ্র আটক করছে।
নগরীর বয়রা এলাকা পুলিশের একটি চৌকি দলের কর্মকর্তা বলেন, আমরা সকাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় একশ’র বেশি বিভিন্ন যানবাহন দাঁড় করিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি। তবে অধিকাংশ মানুষ বলছেন, ওষুধ ক্রয় করতে যাচ্ছি, আমার রোগী করোনা হাসপাতালে ভর্তি, ওষুধ কিনতে হবে, কারো হাতে টিকা কার্ডসহ বিভিন্ন আবেগী অজুহাত দেখাচ্ছেন। তবে অনেকে মিথ্যা বলতে গিয়ে ধরাও খাচ্ছেন, তাদেরকে আমরা সময় বিশেষে আটক করলেও পরে ছেড়ে দিচ্ছি। তাছাড়া তারা যদি নিজেরা সতর্ক না হয় তাহলে তো সংক্রমণ বাড়বে। আমরা পুলিশের সদস্যরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দেশের জনগণকে বাঁচানোর চেষ্টা করছি।
এ ব্যাপারে খুলনা জেলা প্রশাসক মো. মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, আমরা লকডাউনের সময়ে কঠোর অবস্থানে আছি। কাউকে কোনো ছাড় দেবো না। তাছাড়া প্রতিদিন লকডাউনে আমরা অর্থদণ্ডসহ আটক অব্যাহত রেখেছি। তাছাড়া কেউ যদি নিজ থেকে সচেতন না হয়, তাহলে আমরা কঠোর অবস্থানে আছি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর