× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ১৬ অক্টোবর ২০২১, শনিবার , ১ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ
কলকাতা কথকতা

সিটি অফ জয়-এ এক রিক্সাচালকের করুণ কাহিনী

কলকাতা কথকতা

জয়ন্ত চক্রবর্তী, কলকাতা
(১ মাস আগে) আগস্ট ২২, ২০২১, রবিবার, ৯:৫০ পূর্বাহ্ন
ফাইল ফটো

সিটি অফ জয়-এর সেই রিক্সাচালককে মনে আছে? সিনেমায় ওম পুরীর বাস্তব অভিনয়ে যা জীবন্ত হয়ে ধরা দিয়েছিলো? আসল বাস্তবে কলকাতা, দা সিটি অফ জয়-এর এক রিক্সাচালকের করুণ কাহিনী সামনে এসেছে। এই কালান্তক করোনা যার রুটি রুজি অনেকটা কেড়ে নেওয়ায় রিক্সাতেই স্ত্রী, দুই বাচ্চাকে নিয়ে দিন রাত গুজরান করছে। কারণ, বাড়িভাড়া দিতে না পারায় বাড়িওয়ালা তার ঘরে তালা লাগিয়ে দিয়েছে। রিক্সাচালক বাপ্পা জানান, তার স্ত্রী পুনম এবং তিন বছরের পুত্র ও আট মাসের মেয়ে রাত কাটাচ্ছিল রিক্সায়। জলঝড়, বিদ্যুৎ বাজ উপেক্ষা করে তারা দিন কাটাচ্ছিল। রাস্তার মানুষজন তাদের যে উচ্ছিস্ট খাওয়াছিল তাই খেয়ে তাদের দিন গুজরান হচ্ছিল। এমন সময় তাদের দেখা হয়ে গেল দেবু মন্ডলের সঙ্গে। দেবুরও প্রায় দিন আনা দিন খাওয়া গোছের অবস্থা।
তবু, দেবু তাদের নিজের বাড়িতে এনে আশ্রয় দেয়। পুনম এর ভাষায়, আমাদের বাঁচিয়ে দেয়। রিক্সায় আমরা বসবাস করায় তো বাপ্পা রিক্সা চালাতে পারছিলো না। কিন্তু, বিপত্তির এখানেই শেষ নয়। কে বা কারা রটিয়ে দেয় বাপ্পা-পুনম তাদের তিন বছর আর আট মাসের সন্তানকে বিক্রি করে দিয়েছে। পুলিশ আসে। বাপ্পা-পুনম এর করুণ কাহিনী শোনে। বেহালার পর্ণর্শী থানার পুলিশ এবং স্থানীয় কিছু মানুষজনের চেষ্টায় মাথার ওপর আবার ছাদ পায় বাপ্পা। পুলিশ পৈলান এ বাপ্পার সাবেক পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করেছে। করোনা কালে লোক কম বেরোতো বাড়ি থেকে। বাপ্পা রিক্সা চাপার লোক পেতোনা। আবার তার রিক্সা টুং টুং শব্দ তুলে চলছে। সিটি অফ জয় এর রিক্সাচালক ফিরে পেয়েছে তার পুরোনো অক্সিজেন। পুলিশ জানিয়েছে, তারা খোঁজ করছে কারা বাপ্পার ছেলে মেয়ে বিক্রি করার রটনা রটিয়েছিল।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর