× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার , ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

ব্যাংকে কর্মী ছাঁটাই নিয়ে কিছু পত্রিকায় অসত্য সংবাদ ছাপা হয়েছে: এবিবি

অনলাইন

অনলাইন ডেস্ক
(১ মাস আগে) সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১১:৪৯ পূর্বাহ্ন

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের সঙ্গে গত ১৩ই সেপ্টেম্বর ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) একটি প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ নিয়ে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে সংগঠনটি। এবিবি জানায়, সম্প্রতি ব্যাংকের কর্মী ছাঁটাই নিয়ে কিছু পত্রিকায় অসত্য ও বিভ্রান্তিকর সংবাদ ছাপা হয়েছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে এবিবি নেতারা গভর্নরের সঙ্গে দেখা করে ব্যাংকগুলোর অবস্থান ব্যাখ্যা করেছেন। তবে বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তিকর শিরোনামে কিছু মনগড়া সংবাদ ছাপা হয়েছে। শিরোনামগুলোর মধ্যে ছিল, ‘বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে ক্ষমা চাইলেন ছয় ব্যাংকের এমডি’, ‘কারণ ছাড়া ব্যাংকে কর্মী ছাঁটাই হয়নি: বৈঠকে এবিবির দাবি’, ‘ব্যাংকের কর্মী ছাঁটাই না করার নির্দেশ।’

এবিবি বলছে, সভায় এবিবি নেতারা কেন্দ্রীয় ব্যাংককে জানান যে, দেশের আইন যথাযথ পরিপালন করেই ব্যাংকে খারাপ পারদর্শিতা বা শৃঙ্খলাভঙ্গের কারণে কর্মীদের পদত্যাগ বা ছাঁটাইয়ের বিষয়টি ঘটে থাকে। অনেক কর্মী স্বেচ্ছায় বেশি বেতন ও সুবিধা নিয়ে অন্য ব্যাংকে যেমন চলে যান, তেমনি নানা পারিবারিক কারণ, স্থায়ীভাবে বিদেশ গমন ইত্যাদি কারণেও বড় সংখ্যক কর্মী স্বেচ্ছায় চাকরি ছাড়েন। আর যেসব ব্যাংকে আলাদা কমিশন আয়ভিত্তিক বিক্রয় প্রতিনিধি রয়েছে, সেগুলোর পদত্যাগকারী কর্মীর সংখ্যা স্বাভাবিক কারণেই বেশি হয়। অনেক ব্যাংক অন্য ব্যাংকের প্রশিক্ষিত বিক্রয়কর্মীদের স্থায়ী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ দিয়ে থাকে।
সভায় এবিবি চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখার বলেন, যদি যুক্তিসংগত কারণ ছাড়া কোনো ব্যাংক কোনো পদত্যাগকারী কর্মীর পাওনা বুঝিয়ে দেয়ার ব্যাপারে গড়িমসি করে থাকে, তাহলে এই সংগঠন তার নিন্দা জানায়।

এবিবি জানায়, গভর্নর করোনাকালে কর্মীদের পদত্যাগ ও ছাঁটাইয়ের বিষয়ে সংবেদনশীলতার দিকে দৃষ্টি রেখে ব্যাংক এমডিদের মানবিক আচরণ প্রদর্শনের আহ্বান জানান। তিনি ব্যাংকের প্রাথমিক স্তরের কর্মীদের কম বেতন প্রসঙ্গে ব্যাংক এমডিদের উদারতা প্রদর্শনেরও পরামর্শ দেন। তিনি বলেন যে চাকরি ছাড়া কর্মীর সংখ্যা মহামারির আগের বছরগুলোর চেয়ে বেশি হওয়া কাম্য নয়। এবিবি আরও বলেছে, সাক্ষাৎকার পর্বটি সৌহার্দ্যসুলভ পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে ব্যাংক এমডিদের ক্ষমা চাওয়ার মতো পরিস্থিতি, অবস্থা ও কারণ তৈরিই হয়নি।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
শামসুল আরেফিন
১৬ সেপ্টেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১২:১৯

বেশিরভাগ ব্যাংকের কর্মচারীরা প্রতিমাসে পঞ্চাশ হাজার বেতনের মাধ্যমে তাদের কর্মজীবন শুরু করে। কিন্তু সেবা গ্রহণকারীদের সাথে ব্যাংকের কর্মচারীদের আচরণ খুবই রুক্ষ এবং অসংযত। যে কারণে বাংলাদেশের ব্যাংকিং সেবা নিম্নমানের। ফলস্বরূপ, যারা ব্যাংকে কাজ করে তাদের কেউ পছন্দ করে না।

অন্যান্য খবর