× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার , ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

নতুন নিয়ম: আইপিওতে ১০ হাজার টাকার বেশি শেয়ারের আবেদন করা যাবে না

অনলাইন

অর্থনৈতিক রিপোর্টার
(১ মাস আগে) সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২১, শনিবার, ৯:১৬ অপরাহ্ন

শেয়ারবাজারে নতুন আসা আইপিওতে (প্রাথমিক গণপ্রস্তাব) সাধারণ বিনিয়োগকারীরা এখন থেকে ১০ হাজার টাকার বেশি শেয়ারের জন্য আবেদন করতে পারবেন না। চাঁদা গ্রহণের অপেক্ষায় থাকা সেনাকল্যাণ ইনস্যুরেন্স কোম্পানির আইপিওর মধ্য দিয়ে নতুন এ সিদ্ধান্ত কার্যকর করা হবে। কোম্পানিটির আইপিওর সম্মতিপত্রে (কনসেন্ট লেটার) বিষয়টি উল্লেখ করে দিয়েছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি)।

বর্তমানে একজন সাধারণ বিনিয়োগকারী আইপিও সর্বনিম্ন ১০ হাজার থেকে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকার সমপরিমাণ শেয়ারের জন্য আবেদন করতে পারেন। ফলে আবেদনকারীদের মধ্যে আইপিও শেয়ারপ্রাপ্তিতে কমবেশি হয়। শেয়ারপ্রাপ্তির এ ব্যবধান কমিয়ে আনতে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের জন্য আইপিওতে আবেদন ১০ হাজার টাকায় নির্দিষ্ট করে দেয়া হচ্ছে। ফলে আবেদনকারী সব বিনিয়োগকারী আইপিওতে সমানসংখ্যক শেয়ার পাবেন।

বিএসইসির মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, সাধারণ বিনিয়োগকারীরা যাতে আইপিওতে বেশি শেয়ার পান, সে জন্য এ বিধান করা হয়েছে। ফলে কেউ চাইলে বেশি টাকার আবেদন করতে পারবেন না, বেশি শেয়ারও পাবেন না। নতুন এ শর্ত কোম্পানিগুলোর আইপিওর সম্মতিপত্রে উল্লেখ করে দেয়া হবে।
এরই মধ্যে সেনাকল্যাণ ইনস্যুরেন্স কোম্পানির আইপিওর সম্মতিপত্রে এ শর্ত যুক্ত করে দেয়া হয়েছে।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই) সূত্রে জানা গেছে, সেনাকল্যাণ ইনস্যুরেন্সের আইপিওর চাঁদা গ্রহণ শুরু হবে আগামী ৩ অক্টোবর। আইপিওতে কোম্পানিটির প্রতিটি শেয়ার ১০ টাকা অভিহিত মূল্য বা ফেসভ্যালুতে বিক্রি হবে। কোম্পানিটি ১ কোটি ৬০ লাখ শেয়ার ছেড়ে বাজার থেকে ১৬ কোটি টাকা সংগ্রহ করবে।

এদিকে গত এপ্রিল থেকে শেয়ারবাজারে আইপিওর ক্ষেত্রে লটারি প্রথা তুলে দিয়েছে বিএসইসি। লটারি পদ্ধতির বদলে আবেদনকারীদের মধ্যে আনুপাতিক হারে শেয়ার বরাদ্দ দেয়া হচ্ছে। এত দিন একজন বিনিয়োগকারী ন্যূনতম ১০ হাজার টাকা বা তার গুণিতক পরিমাণ হিসাবে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকার শেয়ারের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এখন গুণিতকের বদলে ১০ হাজার টাকা নির্দিষ্ট করে দেয়া হয়েছে

আইপিও আবেদনের নতুন বিধান অনুযায়ী, আইপিওতে আবেদনের আগে প্রত্যেক বিনিয়োগকারীর বা আবেদনকারীর বাজারমূল্যে ন্যূনতম ২০ হাজার টাকা সেকেন্ডারি বাজারে তালিকাভুক্ত সিকিউরিটিজে বিনিয়োগ থাকতে হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
MONIR
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৩:০৭

কোম্পানী আইনে সর্বসাধারনের কাছ থেকে মুলধন সংগ্রহের কথা বলা থাকলেও, SEC ২০,০০০ টাকা নূন্যতম বিনিয়োগ বেধে দেয়ায় সর্বসাধারন আর আবেদন করতে পারছে না । অন্য দিকে নূন্যতম বিনিয়োগ ৫০,০০০ টাকা করলে ক্ষুদ্র বিনিয়োগ কারীরা বাধ্য হয়ে উচ্চমূল্যে সেকেন্ডারী শেয়ার কিনবে । আবার বাজার ধস হলে এই ক্ষুদ্র বিনিয়োগ কারীদের ক্ষতি হবে ।

Gowtam Bhattacharyya
১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, রবিবার, ৬:২০

Some days ago BSEC noted and speech on BO Holders those who have several BO Account under their relatives name but no participation of those relatives, BSEC will identify and take necessary step.

জামশেদ পাটোয়ারী
১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, শনিবার, ১০:০২

ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা এখনো কেউ এক বিও একাউন্টের বিপরীতে এক লটের বেশী কেউ করেনা। তবে আইপিও কোম্পানীগুলো অনেক শেয়ার অনিয়মের মাধ্যমে বেশী টাকা নিয়ে লাখ লাখ শেয়ার বিক্রী করে দেয়। এই সিদ্ধান্তের ফলে সেটি এখন বন্ধ হবে বলে করা হলেও আসলে বন্ধ হবেনা। যারা এই বড় অংকের শেয়ার কিনে তারাও নিয়ন্ত্রক সংস্থা থেকে চালাক কোন অংশে কম নয়। তারা অনেকগুলো বিও একাউন্ট খুলে প্রতিটি একাউন্টের বিপরীতে নতুন নিয়ম অনুযায়ী আবেদন করবে।

অন্যান্য খবর