× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠি
ঢাকা, ২৩ অক্টোবর ২০২১, শনিবার , ৭ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

অপেক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ও ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা

অনলাইন

স্টাফ রিপোর্টার
(১ মাস আগে) সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১, সোমবার, ৪:৫৫ অপরাহ্ন

দীর্ঘ অপেক্ষা শেষে ক্লাসে ফিরেছে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীরা। কিন্তু অপেক্ষাটা দীর্ঘ হচ্ছে উচ্চ-শিক্ষা পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের। এখনো অনুষ্ঠিত হয়নি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা। উচ্চ-শিক্ষা পর্যায়ের নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে মানবজমিন লাইভ ‘না বলা কথা’য় যুক্ত হবেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ আলমগীর। লাইভ চলাকালীন মন্তব্যের ঘরে প্রশ্ন রাখতে পারেন আপনিও।

আলোচনার বিষয়- অপেক্ষায় বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ও ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা।

মানবজমিন’র স্টাফ রিপোর্টার পিয়াস সরকারের উপস্থাপনায় লাইভটি হবে আজ সোমবার (২০ সেপ্টম্বর ২০২১) রাত ৮টায়। দেখতে চোখ রাখুন মানবজমিন ফেসবুক পেজ ও ইউটিউব চ্যানেলে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
আসলাম
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৬:৫১

Gst তে SSC 2016 কেন বাদ দেয়া হলো?

আবুল কাসেম
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৬:৩১

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার একটা ক্রমধারা অনুসরণ করা উচিত যাতে শিক্ষার্থী পরীক্ষার্থীরা হয়রানির শিকার না হয়। যেমন সবার আগে ১.মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ২.বুয়েট ভর্তি পরীক্ষা ৩.রুয়েট, কুয়েট, চুয়েট ভর্তিপরীক্ষা ৪.ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ৫.জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় এভাবে মান অনুযায়ী অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা নেয়া উচিত। এবার অন্যান্য বছরের মতো মেডিকেলর ভর্তি পরীক্ষা সবার আগে হয়েছে। তাই মেডিকেল কলেজে যারা পড়ার সিদ্ধান্ত আগেই নিয়ে রেখেছে তারা হয়রানির শিকার হয়নি। কিন্তু, এবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও বুয়েটে যারা ভর্তি পরীক্ষা দেবে তাদের জন্য হয়রানি অপেক্ষা করছে। কারণ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা বুয়েটের আগে হবে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা 'ক' ইউনিট ১লা অক্টোবর। আর বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা দুই বারে অনুষ্ঠিত হবে। প্রাক নির্বাচনী পরীক্ষা ২০ ও ২১ অক্টোবর। চূড়ান্ত ভর্তি পরীক্ষা ৬ আগস্ট। বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আগে হলে যারা এই ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হবে তাদের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা দিতে হবেনা। যাদের স্বপ্ন বুয়েটে পড়বে তারা প্রথমে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি দিয়ে যদি উত্তীর্ণ হয়, কিন্তু বুয়েটে পড়বে বলে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি না হয়, এরপর আবার বুয়েটে যদি চান্স না পায় তাহলে তাদের অবস্থা কি দাঁড়াবে! আর তারা যদি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হয়ে যায়, আবার বুয়েট ভর্তি পরীক্ষায়ও উত্তীর্ণ হয় তখন তাদের বুয়েটে ভর্তির সুযোগ হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। প্রকাশ থাকে যে, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সময় এইচএসসির মূল সনদ, নম্বর পত্র জমা নেওয়া হয়। অতীতে এমন ঘটনা দেখা গেছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থী বুয়েটে উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার জমা দেওয়া মূল কাগজপত্র ফেরত দেওয়া হয়না। ফলে ঐ শিক্ষার্থীর বুয়েটে পড়ার স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যায়। তাই আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার আগে বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষা নেয়া উচিত। তাহলে যাদের বুয়েটে পড়ার স্বপ্ন তারা বুয়েটে টিকে গেলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার দরকার নেই। সহজেই ঝামেলা এড়িয়ে যাওয়া যায়। কর্তৃপক্ষের বিষয়টি দেখা উচিত। এবার যেহেতু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা বুয়েটের আগে হবে তাই কর্তৃপক্ষের উচিত হবে কমছেকম বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষার রেজাল্ট ঘোষণার আগে যেনো ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি কার্যক্রম যেন শুরু করা না হয়।

Mahamud hasan Shuvo
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৫:৫৪

আমরা যারা যারা আবেদন করেছি।আমরা সবাই পরিক্ষা দিতে চাই। আজকে গুচ্ছ পরিক্ষা না হলে আমরা সবায় কোন না কোন বিশ্ববিদ্যালয় পরিক্ষা দিতে পারতাম।যেখানে আগের বছর গুলো দিকে তাকালে আমরা দেখতে পারি যে বিজ্ঞান বিভাগে ৭-৭.৫০ থাকলেও পরিক্ষা দেওয়া যেত সেখানে এই বছর ৮ এর উপরে পেয়েও আমরা পরিক্ষা দিতে পারছি না।তাই আমরা সবাই পরিক্ষা দিতে চাই। আমাদের সবাইকে পরিক্ষা দেওয়ার সুযোগ করে দিন।

Tanvir Ahmed
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৫:০০

প্রত্যেক বছর বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় সায়েন্স ও কমার্টসের শিক্ষার্থীদের বিভাগ পরিবর্তনের জন্য আলদাকরে ডি ইউনিট নামক একটা ইউনিট রাখা হতো অথবা মানবিক বিভাগের সাথে বাংলা,ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান পরীক্ষা দিয়ে বিভাগ পরিবর্তন করা যেতো।এবার কেনো গুচ্ছ পদ্ধতিতে সেটা রাখা হলো না?আমরা আজ থেকে প্রায় ৩ বছর ধরে বিভাগ পরিবর্তনের জন্য প্রিপারেশন নিচ্ছি। আমি একজন সেকেন্ড টাইমার। ঢাবি,জাবি,চবি,রাবির মতো বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভাগ পরিবর্তন ইউনিট বহাল রেখেছে, গুচ্ছ কমিটি কেনো রাখবেনা আপনাদের কাছে বিনীত অনুরোধ এই বিষয়টা তুলে ধরবেন।

NAZRUL ISLAM SAJIB
২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, সোমবার, ৫:৪০

আমি একজন শিক্ষার্থী ২০২০ এইচএসসি ব্যাচের। আমাদের ভাগ্য খারাপ আমরা আমাদের অধিকার পাচ্ছি না। আমরা আমাদের কষ্টের কথা কেউ শুনছে ও না। আমাদের অটোরেজাল্ট দিয়ে এখন সিলেকশন করে বাদ দিয়ে দিচ্ছে।আমরা তো আমাদের মেধা যাচাই করতে পাচ্ছি না

অন্যান্য খবর