× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২১, রবিবার , ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ
কলকাতা কথকতা

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল নিদর্শন, ৯ বছর বন্ধ থাকা দুর্গাপুজো ফের শুরু করল মুসলিমরা

কলকাতা কথকতা

বিশেষ সংবাদদাতা, কলকাতা
(১ মাস আগে) অক্টোবর ৭, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৯:৩৪ পূর্বাহ্ন

মধ্য কলকাতার প্রাট মেমোরিয়াল স্কুলের সামনে আবার মণ্ডপ বাঁধা হয়েছে। মণ্ডপ সাজানোর কাজও প্রায় শেষ। ওপারে আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের সিপিএম এর সদর দপ্তরে বসে থাকা নেতারা জ্বল-জ্বল করে তাকিয়ে দেখছেন, ৯ বছরের চেষ্টায় তারা যা পারেননি, তা করছে এলাকার একদল মুসলিম যুবক। তাদের চেষ্টাতেই ৯ বছর বন্ধ থাকার পর স্থানীয় দূর্গা পুজো আবার হচ্ছে। এই পুজো দীর্ঘদিন ধরে এলাকার হিন্দুরা করে আসছিলো। কিন্তু, এলাকা থেকে হিন্দু পরিবারগুলি একে একে চলে গেছে। কেউ সল্ট লেকে ডেরা বেঁধেছে, কেউ পাটুলি উপনগরীতে। ফলে, ষাটের দশকে শুরু হওয়া দূর্গাপুজোটি বন্ধ হয়ে যায়।
এলাকায় মুষ্টিমেয় হিন্দু পরিবারের একটি জয়ন্ত সেন- শর্মিলা সেন পরিবারের কাছে একদিন কিছু মুসলিম যুবক আসেন, তারা হিন্দুদের এই পুজো ফের শুরু করতে চান। যেমন ভাবা তেমন কাজ। পুজো হচ্ছে। জয়ন্ত সেন, মোহাম্মদ তৌসিফ ইসলাম ও অন্য মুসলিম যুবকরা হৈহৈ করে কুমারটুলি থেকে প্রতিমা এনেছেন। মুসলিমদের উদ্যোগে দুর্গাপুজো- সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এর থেকে ভালো বিজ্ঞাপন আর কি হতে পারে!

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Professor Dr, Mohamm
৭ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:৫৬

“সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির উজ্জ্বল নিদর্শন,৯ বছর বন্ধ থাকা দুর্গাপুজো ফের শুরু করল মুসলিমরা” খবরটির আগা, পাশ, তলা কোনটাই নেই । ভারতে বাংলা ভাষার এই দুর্গতি অনেক আগে থেকেই শুরু হয়েছে; এখন তাতে পচন ধরেছে । ভালভাবে না পড়লে বুঝার উপায় নেই যে, কি বলতে চাচ্ছে । যাক, এখন জানা গেল যেঃ সত্যিকারে মুসলমানরা সেখানে পুজা করছেনা বরং নিজেরা চাঁদা তুলে বন্ধ পুজাকে আবার চালুর বাবস্থা করেছে । তবে, এই কার্ত্তিক মাসে ভারতের আর কোথায়ও পুজার বাবস্থা নেই; শুধু বাংলা, বিহার, উড়িষ্যা আর আসাম ছাড়া এবং এর কারনটি ঐতিহাসিক । দুর্গা পুজাকে অনেকে কোম্পানির পুজা বলে থাকেন। ১৭৫৭ সালে সিরাজ উদ দউলাকে হত্যার পর নবদ্বীপের রাজা এবং কোম্পানির অন্যান্য দোসররা বাংলার শেষ স্বাধীন নবাবকে উৎখাতের তোহফা হিসেবে এই পুজার আয়োজন করে যেখানে কম্পানির সৈনিক এবং বেনিয়ারা অংশ নিত। এই বাবস্থা দীর্ঘদিন চালু ছিল । এমন হতে পারে, ইতিহাস সচেতন পশ্চিম বাংলার হিন্দুরা এই কারনে দুর্গা পুজাকে তাদের অবশ্য করনীয় কর্তব্য বলে বিবেচনা করে না।

sultan
৭ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার, ১০:৩৪

মুসলমানদের এই ধরনের ভাল কাজ কি তারা মনে রাখবে? তাদের অনেকেই সব সময় মুসলমানদের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়। শান্তি ও ভালো সম্পর্ক নিয়ে বেঁচে থাকার কথা ভাবেন না।

অন্যান্য খবর