× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৬ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার , ১০ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ

ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর হামলার ঘটনায় মামলা, থমথমে ভূঞাপুর

অনলাইন

ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি
(১ সপ্তাহ আগে) অক্টোবর ১৩, ২০২১, বুধবার, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় পরিবহন শ্রমিকদের হামলায় আহত উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল রনি বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। মঙ্গলবার রাতে একজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে এ মামলাটি দায়ের করেন তিনি।

এদিকে মঙ্গলবার বিকেল থেকেই ভূঞাপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে। অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে মোতায়েন করা হয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ। আজ সকালে বাস টার্মিনাল থেকে তেমন কোন বাস ঢাকা বা টাঙ্গাইলের উদ্দেশ্য ছেড়ে যায়নি। গ্রেপ্তার আতঙ্ক বিরাজ করছে শ্রমিকদের মাঝে।

ভূঞাপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মো.আব্দুল ওহাব জানিয়েছেন, ভ্রাম্যমাণ আদালতে পরিবহন শ্রমিকদের হামলার ঘটনায় একজনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা ১৫/২০ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। উপজেলা সহকারী কমিশনার ভূমি ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল রনি বাদী হয়ে মামলাটি করেছেন। ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।


উল্লেখ্য, মঙ্গলবার দুপুরে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল রনি। এ সময় যত্রতত্র গাড়ি পার্কিংয়ের দায়ে দুই পরিবহন শ্রমিককে ৫ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে ৭ দিনের কারাদণ্ড দেয়া হয়। বিষয়টি উপস্থিত শ্রমিকরা মেনে নিতে না পেরে হামলা চালায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেটের ওপর। হামলায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুল্লাহ আল রনির নাক ফেটে রক্ত বের হতে থাকে। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যান। এ ঘটনার পর উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন ও শ্রমিক পরিবহন নেতাদের সাথে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় সকল পক্ষের সাথে আলোচনা হয়। শ্রমিক নেতারা ইউএনও ও ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে ক্ষমা চান। পরে দুই পরিবহন শ্রমিককে ৫ হাজার টাকা করে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ছেড়ে দেয়া হয়। বিষয়টি প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অবগত হয়ে স্থানীয় প্রশাসনকে মামলার নির্দেশ দেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
Md.Abdullah
১৩ অক্টোবর ২০২১, বুধবার, ৪:০২

সরকারী অফিসারদের মারধর করা এখন নেতাদের সম্মানের বিষয়।

RABIUL ALAM Liton
১৩ অক্টোবর ২০২১, বুধবার, ১:৪৭

অবশ্যই অপরাধীদের গ্রেফতার করে আইনের আওতায় আনতে হবে। এখানে কে শ্রমিক আর ওমুক দেখার সুযোগ নেই ।

অন্যান্য খবর