× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৮ নভেম্বর ২০২১, রবিবার , ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

লালমোহনে দুই মাসে পানিতে ডুবে ১০ শিশুর মৃত্যু

বাংলারজমিন

লালমোহন (ভোলা) প্রতিনিধি
১৬ অক্টোবর ২০২১, শনিবার

ভোলার লালমোহনে আশঙ্কাজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে পুকুর ও ডোবার পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা। গত আগস্ট-সেপ্টেম্বর দুই মাসেই লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও থানার দেয়া তথ্যে উপজেলায় পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে অন্তত ১০টি। যার প্রকৃত সংখ্যা আরও অধিক। পানিতে ডুবে মারা যাওয়া এসব শিশুর অনেকেরই বয়স এক থেকে ৫ বছরের ভেতরে। লালমোহন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডা. মো. শহিদুল ইসলাম, ডা. সোহরওয়ার্দী ও ডা. ফয়সাল আহমেদ তৌহিদ একই যুক্তি দিয়ে বলেন, হাসপাতালের জরুরি বিভাগে পানিতে পড়া শিশুদের নিয়ে আসছে স্বজনরা। যা তুলনামূলকভাবে অনেক বেশি।  দেখা যাচ্ছে, অনেক সময় হাসপাতালে আনা হচ্ছে মৃত শিশুদেরও। তবে পরিবারের অসচেতনতার কারণেই এ শিশু মৃত্যু বৃদ্ধি পেয়েছে। তাই পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যু কমাতে পরিবারের সদস্যদের অধিক সচেতন হতে হবে।
এ ছাড়াও কোনো শিশু পানিতে পড়লে তাকে উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে বাঁচানো সম্ভব হতে পারে। তাই কোনো শিশু পানিতে পড়লে তাকে উদ্ধার করে তাৎক্ষণিক উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসতে হবে। লালমোহন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাকসুদুর রহমান মুরাদ বলেন, প্রায় সময় খবর পাচ্ছি পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর। এরপর পেছনের বড় কারণ হচ্ছে পরিবারের অসচেতনতা। সকলের উচিত বাচ্চা শিশুদের চোখের নজরে রাখা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পল্লব কুমার হাজরা বলেছেন, পানিতে ডুবে মারা যাওয়া শিশুদের পরিবারকে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে জেলা প্রশাসন থেকে ১০ হাজার টাকা করে আর্থিক সহায়তা দেয়া হচ্ছে। এ ছাড়াও পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা কমাতে সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে সচেতনতামূলক প্রচারণাসহ মাইকিং করা হচ্ছে। আশা করছি এতে করে আগামী দিনগুলোতে পানিতে ডুবে শিশু মৃত্যুর সংখ্যা কমে আসবে। তবে সকল শিশুর অভিভাবকদের  এ বিষয়ে অধিক সচেতন থাকতে হবে, যাতে করে শিশুরা পুকুর বা ডোবার পাড়ে খেলা করতে না পারে। বিশেষ করে যাদের বাড়ির পাশে পুকুর, ডোবা ও খাল রয়েছে তাদের।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর