× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৯ ডিসেম্বর ২০২১, বৃহস্পতিবার , ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৪ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৩ হিঃ
টাকায় কেনা কমিটি

ফের বিতর্কিত সিলেট ছাত্রলীগ

শেষের পাতা

ওয়েছ খছরু, সিলেট থেকে
১৬ অক্টোবর ২০২১, শনিবার

টাকায় কেনা ‘পদ’ নিয়ে বিতর্কিত হলো সিলেট ছাত্রলীগ। এই অভিযোগ করেছেন সিলেট জেলা ছাত্রলীগেরই সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ। বলেছেন; প্রমাণ আছে তার কাছে। অন্যদিকে- সামাদের এই অভিযোগকে অস্বীকার করেছেন সিলেট ছাত্রলীগের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা। তারা পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন। ফলে সিলেট ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটি নিয়ে কাদা ছোড়াছুড়ি চলছে। আর এ নিয়ে নতুন করে বিতর্কে জড়াচ্ছেন বলয় নিয়ন্ত্রণকারী সিলেট আওয়ামী লীগের নেতারা। নানা কারণে গত চার বছর সিলেটে ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা সম্ভব হয়নি।
২০১৭ সালে যখন কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছিলো তখন খুনোখুনিসহ নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে জর্জরিত ছিল সিলেট ছাত্রলীগ। এরপর থেকে গ্রুপ-উপগ্রুপে বিভক্ত থাকায় বড় ভাই, দাদাদের কাড়াকাড়ির কারণে কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি। নেতারা জানিয়েছেন- সিলেট ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে কখনোই এক হতে পারেননি ভাই ও দাদারা। তাদের বিরোধের কারণেই ছাত্রলীগে সব সময় গ্রুপিং চরমে থাকে। এবারের কমিটি ঘোষণার পর সেটি প্রমাণ হয়েছে। তারা জানিয়েছেন- ভাই ও দাদারা এক টেবিলে বসতে পারলেই সব দ্বন্দ্ব মিটে যাবে। কিন্তু তাদের এক টেবিলে বসার বিষয়টি দুঃস্বপ্নে পরিণত হয়েছে। কারণ- গত মঙ্গলবার ঘোষিত কমিটি নিয়ে তাদের মধ্যে যোজন-যোজন দূরত্ব তৈরি হয়েছে। আর ছাত্রলীগের চলমান বিরোধের কারণে চিড় ধরেছে আওয়ামী লীগের নেতাদের সম্পর্কেও। গত মঙ্গলবার সিলেট জেলা ও মহানগর কমিটি ঘোষণা করার পর বেশি প্রতিবাদী সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ। তার নেতৃত্বেই ক্ষোভ-বিক্ষোভ ও শোডাউন অব্যাহত রয়েছে। কমিটি বাতিল না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চলবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়েছে। এই ক্ষোভ বিক্ষোভের অন্যতম কারণ হচ্ছে; জেলা ছাত্রলীগের নবগঠিত কমিটির সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজ। তার কারণেই তেলীহাওর গ্রুপের শীর্ষ নেতা জাওয়াদ খানের কপাল পুড়েছে। বলয়ের সবার সিদ্ধান্ত অমান্য করে রাহেল সিরাজ সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন। এজন্য জেলার সাবেক সভাপতি শাহরিয়ার আলম সামাদ সংবাদ সম্মেলন করে ছাত্রলীগের কমিটি টাকা দিয়ে কেনা বলে দাবিও করেছিলেন। সামাদের ভাষ্য; ‘কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ১ কোটি ২০ লাখ টাকার বিনিময়ে অছাত্রদের দিয়ে কমিটি দিয়েছেন। যা অত্যন্ত দুঃখজনক। সম্প্রতি দেশে-বিদেশে সমালোচিত এমসি কলেজ ছাত্রাবাসের ধর্ষণ মামলার আসামিদের গডফাদার, বিভিন্ন চেক অবমূল্যায়ন (ডিজঅনার) মামলার আসামি, বিশেষ করে ফ্রিডম পার্টির নেতার নাতিকে নিয়ে সিলেট জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। যা দেখে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা লজ্জিত, চরম হতাশ এবং বিব্রত।’ আর সামাদের এই অভিযোগ নিয়ে সিলেটে এখন তোলপাড় হচ্ছে। বিশ্বাস পাচ্ছে সামাদের বক্তব্যও। এ কারণে আওয়ামী পরিবারের বেশির ভাগ নেতাকর্মীই সামাদের পক্ষে সমর্থন দিচ্ছেন। তবে- সামাদের এই অভিযোগকে উড়িয়ে দিয়েছেন জেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটির সভাপতি নাজমুল ইসলাম। তিনি অভিযোগের পাল্টা চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেছেন- যদি টাকা দেনদেনের বিষয়টি প্রমাণ না হয় তাহলে তিনি আইসিটি আইনে মামলা করবেন। নাজমুল হচ্ছেন সিলেটের টিলাগড়ের রঞ্জিত গ্রুপের নেতা। ছাত্রলীগের সভাপতি হতে তিনি অনেক আগে থেকেই মাঠে ছিলেন। এবং তার পক্ষে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক কমিটির নেতারাও অবস্থান নিয়েছিলেন। এজন্য এবার সভাপতি হতে নাজমুলকে বেশি বেগ পেতে হয়নি। আর সভাপতি হওয়ার পর তার পক্ষে বলয় নেতারা একাট্টা হয়ে মাঠে রয়েছেন। এদিকে- জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রাহেল সিরাজকে নিয়ে এখনো নাটকীয়তা চলছে সিলেটে। একক প্রচেষ্টায় সাধারণ সম্পাদক হওয়ার পর থেকে তিনি ঢাকায়ই অবস্থান করছেন। এখনো সিলেট আসতে পারেননি। ছাত্রলীগের নেতারা জানিয়েছেন- তেলীহাওর গ্রুপের নেতা রাহেল সিরাজকে নিয়ে তার গ্রুপের ভেতরেই ক্ষোভ বেশি। এ কারণে রাহেল সিরাজের বাসায়ও হামলার ঘটনা ঘটেছে। এ ছাড়া অন্য বলয়ের শীর্ষ নেতারা এই মুহূর্তে তাকে কাছে টানতেও নারাজ। এতে কিছুটা বেকায়দায় রাহেল সিরাজও। আপ্রাণ চেষ্টা করছেন নিজ বলয়ে ফিরতে। রাহেল সিরাজের ঘনিষ্ঠজনরা জানিয়েছেন- কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নির্দেশে সিলেট ছাত্রলীগের চার নেতা বঙ্গবন্ধুর মাজারে ফুলেল শ্রদ্ধা জানিয়ে ক’দিনের মধ্যে সিলেট ফিরবেন। তাদের সঙ্গে সিলেটে রাহেল সিরাজের ফেরার কথা রয়েছে। আর রাহেল সিরাজ ফিরলে নিজ বলয়ের কাছে ফিরবেন। এজন্য বলয় নেতাদের ক্ষোভ-বিক্ষোভ কমানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।
অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর