× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার , ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

ইরাক যুদ্ধের রূপকার কলিন পাওয়েল আর নেই

বিশ্বজমিন

মানবজমিন ডেস্ক
(১ মাস আগে) অক্টোবর ১৮, ২০২১, সোমবার, ৭:৪১ অপরাহ্ন

করোনায় মারা গেছেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ পররাষ্ট্রমন্ত্রী কলিন পাওয়েল। ইরাক যুদ্ধের রূপকার বলেও তার পরিচিতি আছে। পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, করোনায় আক্রান্ত হয়ে জটিলতায় তিনি ৮৪ বছর বয়সে সোমবার মারা গেছেন। ২০০৫ সালে সর্বশেষ চার তারকাবিশিষ্ট এই জেনারেল সরকারি দায়িত্বে ছিলেন। তার পরিবারের পক্ষ থেকে ফেসবুকে দেয়া এক পোস্টে এ কথা বলা হয়েছে। পরিবার বলেছে, ‘পূর্ণ ডোজ টিকা নিয়েছিলেন কলিন পাওয়েল। ওয়াল্টার রিড ন্যাশনাল মেডিকেল সেন্টারে তাকে যে সেবা দেয়া হয়েছে তার জন্য এর স্টাফদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমরা। একজন অসাধারণ ও ভালবাসাময় স্বামী, পিতা, দাদা ও একজন প্রবীণ আমেরিকানকে হারিয়েছি আমরা।’ এ খবর দিয়েছে অনলাইন আল জাজিরা।

রিপাবলিকান দলের প্রেসিডেন্সিয়াল প্রশাসনে কয়েক দশক ধরে পররাষ্ট্রনীতিতে তিনি ভূমিকা রাখছিলেন বলেও তার পরিচিতি আছে। বার্লিন দেয়ালের পতনের সময়, ১৯৮৯ সালে যুক্তরাষ্ট্রের পানামা যুদ্ধের সময়, ১৯৯১ সালে উপসাগরীয় অঞ্চলে যুদ্ধের সময়, বিশ্ব বাণিজ্য সংস্থায় ২০০১ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর সন্ত্রাসী হামলার সময়, ২০০১ সালে আফগানিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের হামলার সময় এবং ২০০৩ সালে ইরাকে হামলার সময় তিনি ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তা। ১৯৮৭ থেকে ১৯৮৯ সাল পর্যন্ত তিনি যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট রোনাল্ড রিগ্যানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টার দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৯ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচডব্লিউ বুশ এবং বিল ক্লিনটনের অধীনে তিনি ছিলেন জয়েন্ট চিফ অব স্টাফের চেয়ারম্যান। ২০০১ সালে তাকে সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে নিশ্চিত করা হয়। এর মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এ পদে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে তিনি আসীন হন। পরে এ পদে আসেন কন্ডোলিজা রাইস।

প্রথম দিকে ইরাকে সামরিক অভিযান চালানোর বিরোধিতা করা সত্ত্বেও ২০০৩ সালে ইরাকে যুক্তরাষ্ট্র আগ্রাসন চালায়। এ সময়ে জনগণকে কলিন পাওয়েল বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে আন্তর্জাতিক সমর্থন আদায় করেন। তিনি ২০০৩ সালের ৫ই ফেব্রুয়ারি জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে বিতর্কিত তথ্য উপস্থাপন করেন। বলেন, ইরাকের প্রেসিডেন্ট সাদ্দাম হোসেন বিশ্বের জন্য অত্যাসন্ন বিপদ হয়ে উঠেছেন। কারণ, তার কাছে বিপুল পরিমাণ রাসায়নিক ও জীবাণু অস্ত্র আছে। পরে অবশ্য তিনি নিজেই স্বীকার করেছেন, তার ওই অভিযোগ যথার্থ ছিল না। গোয়েন্দারা যে তথ্য দিয়েছে সেটাকে তিনি বিকৃতভাবে বুশ প্রশাসনের কাছে উপস্থাপন করেছেন।

তার মৃত্যুতে সোমবার সাবেক প্রেসিডেন্ট বুশ শোক প্রকাশ করেছেন। বলেছেন, পাওয়েল ছিলেন একজন মহৎপ্রাণ সরকারি কর্মকর্তা। তিনি প্রেসিডেন্টের এত প্রিয় ছিলেন যে দু’বার প্রেসিডেন্সিয়াল মেডেল অব ফ্রিডম অর্জন করেছেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর