× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার , ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

কুমিল্লার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত শনাক্ত

শেষের পাতা

স্টাফ রিপোর্টার
২০ অক্টোবর ২০২১, বুধবার

কুমিল্লার ঘটনায় মূল অভিযুক্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, মূল অভিযুক্ত বারবার অবস্থান পরিবর্তন করছে। খুব অল্প সময়ের মধ্যে তাকে আমরা ধরে ফেলতে পারবো বলে আমাদের বিশ্বাস। কুমিল্লায় কেন সে এই ঘটনা ঘটিয়েছে, কার মদতে এ কাণ্ড করেছে, শান্তি বিনষ্ট করেছে, তা আমরা জানতে পারবো। গতকাল দুপুরে রাজধানীর কুর্মিটোলায় র‌্যাব’র প্রযুক্তিগত আধুনিকায়ন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঁদপুরে কিছু উগ্র মানুষ হিন্দু সম্প্রদায়ের একটি উপাসনালয়ে ভাঙচুরের চেষ্টা করেছে। সেখানে পুলিশকে পরিস্থিতি মোকাবিলায় হিমশিম খেতে হয়েছে। সেখানে ৪ জন মারা গেছেন। আজ আরেকজন মেডিকেলে মারা গেছেন। কেন এই হত্যাকাণ্ড, কেন এই মৃত্যু? কার উদ্দেশ্য সফল হওয়ার জন্য এই মৃত্যু?
তিনি বলেন, আমরা দেখলাম রংপুরে পরিতোষ নামের এক অল্প বয়সী ছেলে ফেসবুকে আপত্তিকর স্ট্যাটাস দিয়েছে।  সেটাকে কেন্দ্র করে সহিংসতা। আমাদের পুলিশ বাহিনী তার বাড়িঘর রক্ষায় সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছে। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। কিন্তু, ইতিমধ্যে তার পাশের গ্রামে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ভাঙচুর করা হয়েছে। এটার আমরা নিন্দা জানাচ্ছি।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, ফেসবুকে মিথ্যা প্রচারের মাধ্যমে রামু, নাসিরনগর, ভোলায় অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের অপচেষ্টা করা হয়েছে। যখনই এসব ঘটনা আপনারা (গণমাধ্যমকর্মী) ফেসবুকে দেখেন, তার সত্যতা যাচাই করবেন। উত্তেজনা সংবরণ করবেন। খামাখা উস্কানিতে কাণ্ড ঘটিয়ে বসবেন না।
তিনি বলেন, স্বার্থান্বেষী একটি মহল অপপ্রচার ও উস্কানিমূলক প্রচারণা করে যাচ্ছে। বিভিন্ন সময় ঘটে যাওয়া নৃশংস ঘটনার ভিডিও ফুটেজ ব্যবহার করে তারা সাম্প্রতিক সময়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের চেষ্টা করে যাচ্ছে। গত ১৬ই মে রাজধানীর পল্লবীতে (সাহিনুদ্দিন হত্যা) একটি নৃশংস হত্যার ঘটনা ঘটে। দুই যুবক একজনকে চাপাতি দিয়ে নৃশংসভাবে কুপিয়ে হত্যা করছে। সেই ঘটনার ভিডিও ফুটেজ ক্লিপ আকারে প্রচার করে একটি মহল বলছে যাকে কোপানো হচ্ছে তিনি নোয়াখালীর যতন সাহা। বিষয়টি খুবই দুঃখজনক, ন্যক্কারজনক ও অমানবিকও বটে।
আসাদুজ্জামান খান কামাল আরও বলেন, যারা এই ধরনের অপপ্রচার চালিয়ে ফায়দা লোটার চেষ্টা করছে, তাদের হুঁশিয়ার করে দিচ্ছি, তাদের অবশ্যই খুঁজে বের করা হবে। তাদের জবাব দিতেই হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী তাদের খুঁজে বের করে উপযুক্ত শাস্তির ব্যবস্থা করবে। তাদের জবাবদিহিতার আওতায় আনা হবে।
তিনি আরও বলেন, তথ্য প্রযুক্তির সর্বোত্তম ও সার্বিক ব্যবহারে র‌্যাব ফোর্সেসের সব ব্যাটালিয়ন ও ক্যাম্প পর্যায়ে বিস্তৃত করার লক্ষ্যে র‌্যাবের প্রযুক্তিগত আধুনিকায়ন শীর্ষক কার্যক্রম শুরু হলো। অপরাধীদের শনাক্ত করতে র‌্যাব আরও এক ধাপ এগিয়ে গেল। আমি প্রত্যাশা করবো, সুযোগ-সুবিধা ব্যবহারে র‌্যাব আরও কার্যকরী ভূমিকা পালন করবে। র‌্যাবের দাপ্তরিক কাজ, প্রাইভেট কাজ, গুরুত্বপূর্ণ নথি, তথ্য সংরক্ষণে সক্ষমতা আরও বাড়বে।   
স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দীন বলেন, দেশের উন্নয়নের ধারাবাহিকতার জন্য আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্থিতিশীল থাকা অপরিহার্য। যারা আইন ভঙ্গ করবে তাদের শাস্তির মুখোমুখি করা হবে।
পুলিশের অতিরিক্ত আইজিপি (প্রশাসন ও ইন্সপেকশন) ড. মইনুর রহমান চৌধুরী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণে কাজ করছে সরকার। এটা স্বপ্ন নয় বাস্তব। দেশের বর্তমান পরিস্থিতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে আছে।
র‌্যাবের মহাপরিচালক চৌধুরী আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, তথ্য দিতে সেই ভয় পায়, যে অপরাধী। সাধারণ মানুষ কখনো তথ্য দিতে ভয় পায় না। অপরাধীরা যদি তথ্য দেয় তাহলে হয়তো ধরা পড়ে যাবে বা আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জালে আটকে যাবে, সেজন্য তথ্য দিতে ভয় পায়।
ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের পরিচালক (এনটিএমসি) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জিয়াউল আহসান বলেন, প্রযুক্তির ব্যবহার দিন দিন বাড়ছে। এর সঙ্গে বাড়ছে অপরাধও। র‌্যাবের এই ডাটাবেজ অপরাধ সহায়ক ভূমিকা রাখবে।
অনুষ্ঠানে এ সময় অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) কর্নেল কে এম আজাদ, গোয়েন্দা শাখার পরিচালক  লে. কর্নেল মশিউর রহমান জুয়েল, র‌্যাবের ফরেনসিক বিভাগের পরিচালক ইমতিয়াজ আহমেদ, র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম বিভাগের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন ও সহকারী পরিচালক মেজর রইসুল আজম মনি প্রমুখ।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর