× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার , ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

ভেড়ামারায় নৌকার বিজয় ঠেকাতে মরিয়া আওয়ামীলীগের বিদ্রোহীরা

অনলাইন

ভেড়ামারা (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২১, ২০২১, বৃহস্পতিবার, ৬:২০ অপরাহ্ন

কুষ্টিয়ার ভেড়ামারায় নৌকার বিজয় ঠেকাতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। অভিযোগ রয়েছে ক্ষমতা আর প্রভাব খাটিয়ে নৌকার সমর্থক, কর্মী এবং ভোটারদের হুমকি ধামকি দেওয়া হচ্ছে। ভেড়ামারার ৬ টি ইউনিয়নের ৪টিতেই এখন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহীরা মাঠ দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে। আওয়ামীলীগ নেতারা মনে করেন, বিদ্রোহী প্রার্থীরা এমন ভাবে মাঠে থাকলে, আওয়ামীলীগের সাথে আওয়ামীলীগের লড়াই হবে, আর সুবিধা নেবে জাসদ প্রার্থীরা। তাই এখনই বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিস্কার অথবা নৌকার প্রার্থীর পক্ষে একাট্রা হয়ে কাজ করে নৌকা প্রার্থীর বিজয় নিশ্চিত করতে হবে।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দ্বিতীয় ধাপে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারার ৬টি ইউনিয়নে নির্বাচন আগামী ১১ নভেম্বর। উৎসব মুখর পরিবেশে প্রার্থীরা মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন। নির্বাচনে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী ৬, জাসদ (ইনু) মনোনীত প্রার্থী ৬, আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ৪, ইসলামী আন্দোলনের ৪, স্বতন্ত্র প্রার্থী ৭ জন সহ মোট ২৭ চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচনী যুদ্ধে অংশ নিচ্ছেন। ধরমপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান শাহাবুল আলম লালু (নৌকা)’র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন ধরমপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি শামসুল হক ম্যানেজার, জুনিয়াদহ ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী শওকত আলী (নৌকা)’র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক হাসানুজ্জামান হাসান এবং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এ কে এম শাহানুল হক। চাঁদগ্রাম ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী বুলবুল কবীর (নৌকা)’র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মুকুল হোসেন, বাহিরচর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী রওশন আরা সিদ্দিকী (নৌকা)’র বিরুদ্ধে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামীলীগ নেতা ও তার পরিবারেই শফিকুল ইসলাম শফি হাজী। এ সব বিদ্রোহী প্রার্থীরা আওয়ামীলীগের ক্ষমতা কে কাজে লাগিয়ে এখন আওয়ামীলীগের নৌকার বিপক্ষেই অবস্থান নিয়েছে।


ধরমপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের নেতা শাবান মাহমুদ বলেন, ভেড়ামারায় আওয়ামীলীগ এবং জাসদ প্রার্থীর মধ্যে মূল লড়াই হবে। কিন্তু নির্বাচনী মাঠে উত্তাপ ছড়াচ্ছে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা। তাদের লড়াই আওয়ামীলীগের নৌকা প্রার্থীর বিরুদ্ধে। নৌকার প্রার্থীকে হারাতে পারলেই যেন তাদের বিজয়, এমন মনে করেই তারা আওয়ামীলীগ প্রার্থীর কর্মী, সমর্থক এবং সাধারন ভোটারদের হুমকি ধামকি দিচ্ছে, প্রচার প্রচারনা চালাচ্ছে।

ভেড়ামারার ধরমপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ শাহাবুল আলম লালু। তিনি ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক। পরপর দু’বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন বিপুল ভোটে। বিএনপি, জাসদ, স্বতন্ত প্রার্থী মিলে যা ভোট পান, তার থেকেও বেশি ভোটে তিনি বারবার নির্বাচিত হন। এ ইউনিয়ন থেকে ৪ জন প্রার্থী নৌকার কান্ডারী হওয়ার জন্য মনোনয়ন চান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শাহাবুল আলম লালুকে যোগ্য কান্ডারী মনে করে মনোনয়ন দেন।

শাহাবুল আলম লালু বলেন, বিগত দুটি নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হিসাবে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছি। এবারো দল আমাকে মনোনয়ন দিয়েছে। এ নির্বাচনেও রেকর্ড পরিমান ভোট পেয়ে বিজয়ী হবো ইনশাল্লাহ। তিনি বলেন, দল এবং জনগন আমার সাথে আছে সব সময়। কিন্তু তাদের ভয় ভীতি, হুমকি ধামকি দিচ্ছে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শামসুল হক এবং তার ক্যাডার বাহিনী। ভয়ে ভীত সন্তস্ত আওয়ামীলীগের কর্মী  এবং সাধারন ভোটাররা। তার ক্যাডাররা আমাকেও হুমকি ধামকি দিচ্ছে। তিনি বলেন, নির্বাচনে আমি লড়াই করবো বিরোধী প্রার্থীর বিরুদ্ধে। কিন্তু এখন লড়াই করতে হচ্ছে নিজ দল আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীর বিরুদ্ধে। ¬¬
একই বক্তব্য দেন, আওয়ামীলীগ মনোনীত বাহিরচর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রার্থী রওশান আরা সিদ্দিকী, জুনিয়াদহ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শওকত আলী, চাঁদগ্রাম ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী বুলবুল কবীর। তারা বলেন, আওয়ামীলীগের সভানেত্রী, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আমাদের নেতা মাহাবুব-উল-আলম হানিফ আমাদের যোগ্য মনে করে মনোনয়ন দিয়েছে। নৌকার প্রার্থী হয়েছি। আর সে নির্দেশ অমান্য করে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে আওয়ামীলীগের নেতারা। এটা খুবই দুঃখজনক। তারা চান, এখনই দল থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের বহিস্কার অথবা মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নৌকার বিজয় সুনিশ্চিত করতে।

তিনি আরও বলেন, নৌকার বিজয় ঠেকাতে মরিয়া আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থীদের বিষয়ে, ভেড়ামারা উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ রফিকুল আলম চুনু এবং সাধারন সম্পাদক ভেড়ামারা পৌরসভার সাবেক মেয়র আলহাজ শামিমুল ইসলাম ছানা বলেন, নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে আওয়ামীলীগের নেতারা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন, এটা খুবই দুঃখজনক। আমরা চেষ্টা করছি তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নেওয়ার। আর যদি প্রত্যাহার না করে তাহলে তাদের দল থেকে বহিস্কার করার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর