× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ১ ডিসেম্বর ২০২১, বুধবার , ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

১৮ বছর পর ভোট হবে বানেশ্বর ইউনিয়নে

বাংলারজমিন

পুঠিয়া (রাজশাহী) প্রতিনিধি
২৫ অক্টোবর ২০২১, সোমবার

 দীর্ঘ ১৮ বছর পর ভোট হতে যাচ্ছে রাজশাহীর পুঠিয়া উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের। হাট এলাকাটি পৌরসভা নয়, ইউনিয়ন পরিষদই রাখার দাবিতে ইউপি নির্বাচন স্থগিতের মামলা দায়ের করা হয়। সেই জটিলতা কাটলো মামলা দায়েরের প্রায় ১৮ বছর পর। মামলাটি খারিজ হওয়ায় ভোটগ্রহণে এখন আর কোনো আইনি বাধা নেই। এদিকে দীর্ঘ প্রায় ১৮ বছর পর এই ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ খবর ছড়িয়ে পড়েছে উপজেলা জুড়ে।
বানেশ্বর ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান ও রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট আব্দুস সামাদ বলেন, বর্তমান চেয়ারম্যানের দায়েরকৃত ভোটগ্রহণ স্থগিত মামলাটি গত ৬ই সেপ্টেম্বর-২১ তারিখে মহামান্য হাইকোর্ট বিভাগ খারিজ করে দেন। এরপর আবারও ওই চেয়ারম্যান ৭ই সেপ্টেম্বর সুপ্রিম কোর্টে আপিল করেন। গত ২৯শে সেপ্টেম্বর আপিলের শুনানি হয়। শুনানি শেষে সুপ্রিম কোর্ট বর্তমান চেয়ারম্যানের দায়েরকৃত আপিলটি খারিজ করে দেওয়ায় এই ইউপি পরিষদের ভোটগ্রহণে আইনি আর কোনো বাধা নেই। তবে, যেহেতু মামলাটি ছিল পৌরসভা ঘোষণা বাতিলের, আর এখন সেই মামলা খারিজ হয়েছে। তাই নিয়ম অনুসারে এটা ইউনিয়নের পরিবর্তে পৌরসভা এলাকা হবে। তবে স্থানীয়দের দাবিতে প্রশাসনিক ভাবে বানেশ্বর এলাকাটি ইউনিয়ন পরিষদ রাখার পক্ষে কাজ করা হচ্ছে বলে জানান তিনি। শহিদুল ইসলাম নামের একজন জানান, এলাকার মানুষ ১৮ বছর আগে এখানে ইউনিয়ন পরিষদের ভোট দিয়েছিল। এখন এই এলাকার ভোটার প্রায় আগের তুলনায় দ্বিগুণ হয়েছে। এই এলাকার অধিকাংশ লোকজন এই জনপ্রতিনিধিদের কাজ-কর্মে অতিষ্ঠ। জনপ্রতিনিধিরা মামলার অযুহাতে দীর্ঘদিন তাদের একক ক্ষমতা ধরে রেখেছেন। প্রয়োজনীয় কাজ নিয়ে পরিষদে এলে চেয়ারম্যান ও সাধারণ সদস্যদের পাওয়া যায় না। বানেশ্বর ইউপি’র মেয়াদ উর্ত্তীণ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজি সুলতান বলেন, মামলাটি খারিজ হওয়ার বিষয়টি শুনেছি। তবে এখানে পৌরসভা না ইউনিয়ন থাকবে সেটা এখনো ঠিক হয়নি। তিনি বলেন, আমি একজন মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতার পক্ষে বিশ্বাসী। বর্তমানে এই এলাকা পরিচালনা করার মত আমার চেয়ে দায়িত্ববান আর কেউ নেই। যার কারণে আমার নিজের অর্থ খরচ করে মামলা চালিয়েছি। আর এলাকার জনগণের সেবা করে আসছি। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জয়নুল আবেদীন বলেন, মামলা জটিলতার কারণে বানেশ্বর ইউনিয়নের ভোট গ্রহণ দীর্ঘদিন থেকে বন্ধ আছে। সেখানে নির্বাচন দিতে আমাদের পক্ষ থেকে কোনো বাধা নেই। তবে এখানে পৌরসভা বা ইউনিয়ন হবে সে বিষয়ে কোনো কাগজপত্র আসেনি। আর ভোট যেটায় হউক আমরা প্রস্তুত আছি। নির্দেশনা এলে অবশ্যই সেখানে ভোটগ্রহণ করা হবে।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর