× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ২৯ নভেম্বর ২০২১, সোমবার , ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৩ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ
শিক্ষিকার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ

রবি শিক্ষার্থীদের চুল কাটার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি

অনলাইন

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি
(১ মাস আগে) অক্টোবর ২৫, ২০২১, সোমবার, ১২:০৫ অপরাহ্ন

সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের একে একে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেয়ার প্রমাণ পেয়েছে তদন্ত কমিটি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনকে অভিযুক্ত করে তাঁর বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করেছে কমিটি।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৬ সেপ্টেম্বর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা হলে প্রবেশপথে অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন নিজ হাতে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেন।

এদিকে শিক্ষক ফারহানাকে স্থায়ীভাবে বরখাস্তের দাবিতে আবারও তিনদিন যাবৎ উত্তাল হয়ে উঠেছে রবির ক্যাম্পাস। রোববার সকালে সিরাজগঞ্জ পৌর শহরের বিসিক মোড় এলাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসের একাডেমিক ভবন ও কান্দাপাড়া এলাকায় প্রশাসনিক ভবনে তালা দিয়ে বাইরে অবস্থান নেন তাঁরা। এ সময় দুপুর ২টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে রেজিস্ট্রারসহ ৩০ জন শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী একাডেমিক ভবন-১-এ অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। এতে ৮ ঘণ্টা ধরে একটি ভবনে অবরুদ্ধ ছিলেন ৩০ জন শিক্ষক, কর্মকর্তা ও কর্মচারী। পরে পুলিশের সহযোগীতায় অবরুদ্ধ থেকে মুক্ত হন শিক্ষক কর্মচারীরা।

দুপুরের দিকে আন্দোলনরত শিক্ষার্থী সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র শামীম হোসেন বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তাঁকে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।
অন্যদিকে একই বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র আবিদ হাসান নামের আরেক ছাত্র ব্লেড দিয়ে হাত কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে অন্যরা তাঁকে নিবৃত্ত করেন।

শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়ে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের রুটিন দায়িত্বে থাকা কোষাধ্যক্ষ আবদুল লতিফ বলেন, ‘রেজিস্ট্রার নিজে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে সার্বিক বিষয় নিয়ে কথা বলছেন। আমরা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনার চেষ্টা করছি।’

প্রসঙ্গত, গত ২৬ সেপ্টেম্বর রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের প্রথম বর্ষের ১৪ শিক্ষার্থীকে জোর করে চুল কেটে দেওয়ার অভিযোগ ওঠে শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে। এর প্রতিবাদে ২৮ সেপ্টেম্বর থেকে শিক্ষার্থীরা সব পরীক্ষা বন্ধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন। ৩০ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ফারহানাকে সাময়িক বরখাস্ত করে। এই ঘটনার তদন্তের জন্য রবীন্দ্র অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান লায়লা ফেরদৌসকে চেয়ারম্যান করে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। কমিটি সরেজমিনে তদন্ত করে গত বৃহস্পতিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলীর কাছে প্রতিবেদন জমা দেয়।

তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ২৬ সেপ্টেম্বর সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের পরীক্ষা ছিল। পরীক্ষা হলে প্রবেশপথে অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন নিজ হাতে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেন।

তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন সম্পর্কে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনের বক্তব্য নেয়ার জন্য একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

তদন্ত প্রতিবেদনের বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলী মানবজমিনকে বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পেয়ে গত শুক্রবার সিন্ডিকেট সভা ডাকা হয়েছিল। সেখানে আইনগত বিষয়গুলো পর্যালোচনার জন্য ১০ কার্যদিবস সময় নিয়ে সভা মুলতবি করা হয়েছে। এছাড়া ২৭ অক্টোবর বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) একটি তদন্ত দল বিষয়টি তদন্ত করতে ক্যাম্পাসে আসবে। তারপর এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। এদিকে ৩য় দিনের মতো আবারো ক্যাম্পাসে অবস্থান নিয়ে বসে আছে শিক্ষার্থীরা।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
পাঠকের মতামত
**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।
মাসুদ
২৬ অক্টোবর ২০২১, মঙ্গলবার, ৯:৩২

একই অপরাধে মাদ্রাসা শিক্ষক গ্রেপ্তার, রবি শিক্ষিকাকে বহিস্কারের সুপারিশ!!!!!!!!! আইন কি নিজস্ব গতিতে চলছে নাকি তার গতিপথ তৈরি করে দেয়া হচ্ছে?

এন ইসলাম
২৫ অক্টোবর ২০২১, সোমবার, ১:৫৯

Dr. Mohamm, চুল কাটার ঘটনায় এই শিক্ষক চাকুরী হারানোর ঝুঁকিতে । আরেকজন ইতিমধ্যেই জেলে, কারণ তিনি বর্তমান রাষ্ট্রচিন্তার ধারক-বাহকদের দৃষ্টিতে অত্যন্ত নীচু শ্রেণীর মানুষ, মাদ্রাসা শিক্ষক । শুনেছি পশ্চিমা দেশগুলোতে নিজের সন্তানকেও মারধর করলে অনেক সময় বাবা-মাকে জেলে যেতে হয় । এদেশেও ওই অবস্থা চালুর অপেক্ষা । আমার টিনএজ ছেলে বা মেয়ে বিয়ে না করেই গার্ল/বয়ফ্রেন্ড নিয়ে এসে আমার বাড়িতেই এক বিছানায় রাত কাটাবে, আমি শাসন করতে পারবেনা । আমি হয়তো এই দিন দেখবোনা, যেহেতু আমার মোটামুটি বয়স হয়েছে । যারা নিজেদেরকে আধুনিক দাবী করছেন, এই শিক্ষকদের নৈতিকতা, রুচি, মূল্যবোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন, তারা হয়তো ওই ধরনের আধুনিকতা দেখতে পাবেন । আজ থেকে ২৩/২৪ বছর আগেও অফিসে যেয়ে বসের সামনে পড়েছি, তিনি হাত-পায়ের নখ দেখেছেন, ঠিকমতো কেটেছি কিনা । কখনও মনে হয়নি যে তিনি আমার ব্যক্তিগত বিষয়ে নাক গলাচ্ছেন, বরং বাবার স্নেহ অনুভব করেছি ।

Professor Dr, Mohamm
২৫ অক্টোবর ২০২১, সোমবার, ১:৫৪

গত ২৬ সেপ্টেম্বর রবিতে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের পরীক্ষা হলে প্রবেশপথে অভিযুক্ত? শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন নিজ হাতে ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেন যা নিয়ে ছাত্র অসন্তোষ শুরু হয়েছে। আমার ধারনা, এই ঘটনা অন্য বিশ্ববিদ্যালয়কেও সংক্রমিত করতে পারে ।আমি ইউ ছি এল, লন্ডন এর ছাত্র । বিজ্ঞানের ছাত্র হিসেবে আমাদের নির্দিষ্ট ড্রেস কোড ছিল এবং ল্যাবরেটোরিতে থাকা অবস্থায় আচরণ বিধি আমাকে মানতে হত এবং হলপ নামায় সই করতে হয়েছে । আমার মনে হয় না যে আমাদের দেশের কোন বিশ্ব বিদ্যালয়ে এই ব্যাপারে কোন কিছু লিখিত আছে – এক মাত্র আই ইউ বি এ টি ছাড়া, যদিও সেটা সরকারি নয়। তবে, আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক (প্রয়াত ), অ্যানাটমি বিভাগের প্রফেসর আফিজ মিয়ান আমাদের লম্বা চুল নিয়ে ক্লাশে ঢুকতে দিতেন না । জানিনা, এটা তার আমেরিকান শিক্ষার কারনে কিনা? আমার এম এস সি গবেষণা সুপার ভাইসর, (প্রায়াত) ডঃ বারনারড ফেল আমাকে বাঁধা জুতা ছাড়া ক্লাসে বা ল্যাবরেটরিতে আসতে দিতেন না । তাই বলে আমি গা কাটার চেষ্টা বা আত্মহননের পথ বেছে নেইনি । আমার বাবা আমাকে শিক্ষা দিয়েছিলেন; বাবা মায়ের মত, গুরুর আদেশও শিরোধার্য । চুল কাটা নিয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিন সম্ভবত কিছু অপরিচ্ছন্নদের পরিচ্ছন্নতা শেখানোর চেষ্টা করছিলেন, কিন্তু এখন তিনি চাকুরি হারাবেন! যাই হোক, চুল কাটার ঘটনায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থী সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র শামীম হোসেন বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। তাঁকে শাহজাদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।অন্যদিকে একই বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র আবিদ হাসান নামের আরেক ছাত্র ব্লেড দিয়ে হাত কেটে আত্মহত্যার চেষ্টা করলে অন্যরা তাঁকে নিবৃত্ত করেন। উপরের দুটি খবরই ভয়ঙ্কর যার কারনে, এঁদের দুজনের মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষার প্রয়োজন রয়েছে বলে আমি মনে করি । এদের বাবা, মা বা অবিভাকদের তাদের আত্মহত্যা বা শরীরকে ক্ষতবিক্ষত করার প্রবনতা সম্পর্কে অবহিত করা প্রয়োজন।

অন্যান্য খবর