× প্রচ্ছদ অনলাইনপ্রথম পাতাশেষের পাতাখেলাবিনোদনএক্সক্লুসিভভারতবিশ্বজমিনবাংলারজমিনদেশ বিদেশশিক্ষাঙ্গনসাক্ষাতকাররকমারিপ্রবাসীদের কথামত-মতান্তরফেসবুক ডায়েরিবই থেকে নেয়া তথ্য প্রযুক্তি শরীর ও মন চলতে ফিরতে ষোলো আনা মন ভালো করা খবরকলকাতা কথকতাখোশ আমদেদ মাহে রমজানস্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীসেরা চিঠিইতিহাস থেকে
ঢাকা, ৫ ডিসেম্বর ২০২১, রবিবার , ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৯ রবিউস সানি ১৪৪৩ হিঃ

চট্টগ্রামে ডাক্তার স্ত্রীর মামলায় পুলিশ সার্জেন্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

বাংলারজমিন

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে
২৮ অক্টোবর ২০২১, বৃহস্পতিবার

 স্ত্রীর দায়ের করা যৌতুকের মামলায় ইকবাল হোসেন নামের এক ট্রাফিক সার্জেন্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালত। অভিযুক্ত সার্জেন্ট বর্তমানে খুলনায় দায়িত্বরত আছেন। আর স্ত্রী ডা. সোনিয়া সামাদ চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের বারৈয়ারহাট এলাকায় একটি ক্লিনিকে চিকিৎসক হিসেবে কর্মরত আছেন। গতকাল দুপুরে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর বিচারক বেগম ফেরদৌসের আদালত এই আদেশ দেন। সার্জেন্ট ইকবালের স্ত্রী ডা. সোনিয়া সামাদ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ১১ (গ) ধারায় (যৌতুকের জন্য জখম করা) মামলাটি করেছিলেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, বিয়ের পর থেকে স্ত্রী সোনিয়া সামাদের নামে ঢাকার সাভারে একটি বাড়ি ও একটি প্রাইভেটকার দখলে নিতে চাপ দিচ্ছিলেন ইকবাল। পাশাপাশি তার টাকা এবং গহনাও ইকবাল আত্মসাৎ করেন। এরমধ্যে গত ২৫শে জুলাই যৌতুকের জন্য মিরসরাইয়ের জোরারগঞ্জের বাসায় ইকবাল স্ত্রীকে মারধর করেন। এ সময় ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ এসে ওই নারীকে উদ্ধার করে। আদালত অভিযোগ আমলে নিয়ে মিরসরাই উপজেলার সমাজসেবা কর্মকর্তাকে ২৭শে সেপ্টেম্বরের মধ্যে তদন্ত শেষে প্রতিবেদন জমা দিতে নির্দেশ দিয়েছিল। সেখান থেকে চূড়ান্ত প্রতিবেদন আসার পর আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। এ বিষয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৭ এর পাবলিক প্রসিকিউটর এডভোকেট খন্দকার আরিফুল আলম বলেন, মামলার ভিত্তিতে সমাজসেবা কর্মকর্তা তদন্ত শেষে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেন। আদালত তদন্ত প্রতিবেদনের ওপর সন্তুষ্ট হয়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

অবশ্যই দিতে হবে *
অবশ্যই দিতে হবে *
অন্যান্য খবর